• শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯
  • ||

শিগগিরই জিআই মর্যাদা পাচ্ছে বগুড়ার দই

প্রকাশ:  ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০১:০৬
পূর্বপশ্চিম ডেস্ক

ঐতিহ্যবাহী বগুড়ার দই জিওগ্রাফিক্যাল ইন্ডিকেশন (জিআই) বা ভৌগোলিক নির্দেশক চিহ্ন হিসেবে শিগগিরই অনুমোদন পেতে যাচ্ছে। এ পণ্য জিআই স্বীকৃতি পাওয়ার বিষয়ে কাজ করছে শিল্প মন্ত্রণালয়ের প্রতিষ্ঠান পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর (ডিপিডিটি)। জিআই স্বীকৃতি পেলে বগুড়ার তৈরী দই আরো একধাপ গিয়ে বিদেশের বাজারেও প্রবেশ করতে পারবে।

সাধারণত একটি নির্দিষ্ট উৎপত্তিস্থলের কারণে কোনো পণ্যের গুণগত মান নিয়ে খ্যাতি তৈরি হলে তাকে জিআই স্বীকৃতি দেওয়া হয়। পণ্যের উৎপত্তিস্থল তথা শহর, অঞ্চল বা দেশের নামে এ নিবন্ধন দেওয়া হয়। তবে এ জন্য কোনো প্রতিষ্ঠান বা সংগঠনকে পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর বরাবর আবেদন করতে হয়। বগুড়ার দইয়ের জন্য আবেদন করা হয়েছিল। বর্তমানে সেটি যাচাই-বাছাই চলছে। প্রক্রিয়াটি শেষ পর্যায়ে আছে। কয়েক দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এরপর গেজেট প্রকাশ করা হবে। এই খবর জানার পর বগুড়ার দই ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের মাঝে উৎফুল্ল দেখা দিয়েছে।

বগুড়ার দইকে জিআই পণ্য করার জন্য আনুষ্ঠানিক আবেদন করে বগুড়া জেলা রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি। সংগঠনটি ২০১৭ সালের ২৬ ডিসেম্বর পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তরে (ডিপিডিটি) এ আবেদন করে। তা কয়েক দফায় যাচাই বাছাই শেষে এখন চূড়ান্ত অনুমোদনের পর্যায়ে রয়েছে। রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির উল্লেখ করা হয় প্রায় দেড়শ বছর আগে বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলা সদরের প্রয়াত নীলকণ্ঠ ঘোষ প্রথম দই তৈরি শুরু করেন। এরপর থেকে ধীরে ধীরে বগুড়ার বিভিন্ন এলাকায় ভারে করে বাড়ি বাড়ি দই বিক্রি শুরু করা হয়। এক সময় বগুড়ার দই ব্রিটেনের মহারানি ভিক্টোরিয়া আর রানি এলিজাবেথও খেয়েছিলেন। তারা বগুড়ার দইয়ের প্রসাংশা করেছিলেন সেই সময়।

কথিত আছে, নীলকণ্ঠ ঘোষ এর পরবর্তী সময়ে উনিশ শতাব্দীর ৬০ এর দশকের দিকে গৌর গোপাল পাল নামের এক ব্যবসায়ী পরীক্ষামূলকভাবে বগুড়া শহরে দই তৈরি করেন। তখন দই সম্পর্কে সবার ভালো ধারণা ছিল না। গৌর গোপালের এই দইই ধীরে ধীরে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। বগুড়ার ঐতিহ্যবাহী নবাব পরিবার ও সাতানী পরিবারের কাছে এ দই সরবরাহ করতেন গৌর গোপাল। সে সময়ে এই দইয়ের নাম ছিল নবাববাড়ির দই। নবাবী আমলে বিশেষ খাবার ছিল এই দই। কালে কালে দিন গড়িয়ে গেলেও এখনো বিশেষ খাবার হিসেবে ধরে রেখেছে দই। বিয়ে, জন্মদিন, ঈদ, পূজা, আকিকা, হালখাতা বা পারিবারিক যে কোন অনুষ্ঠানে দই বিশেষ খাবার হিসেবে পরিবেশিত হয়ে থাকে। তাছাড়া প্রতিদিনই দই বিক্রি হয়ে থাকে।

স্বাধীনতার পর বগুড়ায় দই তৈরিতে শহরের গৌর গোপালের পাশাপাশি মহরম আলী ও বাঘোপাড়ার রফাত আলীর নাম ছড়িয়ে পড়ে। সে সময় ছোট ছোট মাটির পাত্রে (স্থানীয় ভাষায় হাড়ি) দই ভরানো হতো। ঘোষদের ছোট ছোট দোকান থাকলেও তখনও ফেরি করেই দই বিক্রি হতো।

জানা যায়, দইয়ের শহর বগুড়ায় স্বাধীনতার আগে ও পরে দই বিক্রি হতো ভারে করে। বাঁশের তৈরী বিশেষ ধরনের ভার বহনকারী ভারে দইয়ের হাড়ি বসিয়ে ফেরি করে দই বিক্রি করতেন। পাড়ায় পাড়ায়, গ্রামে গ্রামে, ফেরি করে দই বিক্রির একটি প্রচলিত রীতি ছিল। কিন্তু কালের বিবর্তনে এখন অনেকাংশে কমে গেছে। ভারে করে দই বিক্রি তেমন আর দেখা যায় না। এখন জেলার সকল এলাকায় কম বেশি দই বিক্রির শোরুম গড়ে উঠছে।

সরজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বগুড়ার গাবতলী উপজেলার হাতীবান্ধা গ্রামের রন্টু ঘোষ ভারে করে দই বিক্রি করছেন জেলা শহরের ভাটকান্দি এলাকায়। তিনি কয়েক কিলোমিটার পায়ে হেঁটে ভার নিয়ে দই বিক্রি করছেন। তার ভারে সাজানো রয়েছে মিষ্টি দই, টক দই, সাদা দই।

ফেরি করে দই বিক্রেতা রন্টু ঘোষ জানান, তার দাদাও ভাড়ে করে ফেরি করে দই বিক্রি করেছেন। তার বাবার পর রন্টু ঘোষ ফেরি করে দই বিক্রির পেশায় নিয়োজিত। রন্টু ঘোষ আরো জানান, আগে ফেরি করেই দই বিক্রি হতো। কিন্তু এখন ফেরি করে তেমন দই বিক্রি হয় না। সবাই শোরুম করেছে। শোরুম থেকেই দই বেশি বিক্রি হয়। যাদের বাপ দাদার আমল থেকে দইয়ের ব্যবসা ছিল তাদের কেউ কেউ ফেরি করে দই বিক্রি করে থাকে। তাছাড়া এখন আর গোয়ালারা তেমন দই বিক্রি করে না।

বগুড়ার প্রবীণরা জানান, দইয়ের শুরুটা হয়েছিল বগুড়া শহর থেকে ২০ কিলোমিটার দক্ষিণে শেরপুর উপজেলায়। খাবার হিসেবে দইয়ের প্রচলন বেশি হওয়ায় জেলা শহরের আনাচে কানাচে দইয়ের শোরুম গড়ে উঠেছে। হিসাব কষলে ১২ উপজেলায় প্রায় দুই সহস্রাধিক দই এর শোরুম রয়েছে। এসব শোররুম থেকে প্রতিদিনই দই বিক্রি হচ্ছে। এরমধ্যে বর্তমানে সুনাম ছড়িয়েছে কবি নজরুল ইসলাম সড়কের আকবরিয়া লিমিটেড, বগুড়া শহরের এশিয়া সুইট মিট, নবাববাড়ির রুচিতা, বিআরটিসি মার্কেটের দইবাজার, মিষ্টিমহল, মহরম আলী, শ্যামলী, এনাম দই ঘর, শেরপুর দই ঘর, বাঘোপাড়ার রফাত দই ঘর, শেরপুরের রিপন দধি ভান্ডার, সাউদিয়া, জলযোগ, শম্পা, বৈকালী ও শুভ দধি ভান্ডার থেকে প্রতিদিন প্রচুর দই বিক্রি হয়।

দই তৈরীর কারিগরদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দই তৈরীর রহস্য এক ধরনের দক্ষতা। দক্ষতা ছাড়া ভাল মানের দই তৈরী করা যায় না। দই তৈরীর মূল উপকরণ হলো ভাল মানের দুধ। দুধ যত ভাল মানের হবে দই তত স্বাদের হবে। দই তৈরীর কাজে বিশেষ দক্ষ কারিগর না হলে উপকরণ নষ্ট হয়ে যায়। বগুড়া দই ব্যবসায়ীরা জানান, বগুড়ায় তৈরী দই দেশের বাইরেও নিয়ে যাওয়া হয়। স্থানীয়ভাবে যে প্যাকেটে দই দেন তা শীতকালে থাকে ৪/৫ দিন। আর গরম কালে থাকে ২/৩ দিন। উত্তরাঞ্চলে কোন বিদেশি বেড়াতে এলে তারা ফেরার সময় দই কিনে নিয়ে যান। হাতে হাতে করেই এই দই পৌঁছে যায় বিভিন্ন এলাকায়। তবে বিভিন্ন ব্যক্তি নিজ উদ্যোগে বগুড়ার দই বিদেশে নিয়ে যায়। বর্তমানে বগুড়া প্রতি পিচ দই বিক্রি হচ্ছে ২৪০-৩০০ টাকা পর্যন্ত।

বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির বগুড়া জেলা শাখার সভাপতি মো. রেজাউল করিম জানান, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বগুড়ার দই পৌঁছে গেছে। ফলে এ পণ্যের রপ্তানির সম্ভাবনা রয়েছে। তবে ট্যারিফ লাইনে দইয়ের নাম না থাকায় রপ্তানি করতে সমস্যা হচ্ছে। পণ্যটি জিআই স্বীকৃতি পেলে রপ্তানির সুযোগ তৈরি হবে।

পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর (ডিপিডিটির) উপনিবন্ধক আলেয়া খাতুন জানান, বগুড়ার রেস্তোরাঁ মালিকদের পক্ষ থেকে দইয়ের জন্য জিআই মর্যাদা পেতে একটি আবেদন করা হয়েছিল। যেটির যাচাই বাছাই শেষ পর্যায়ে। কয়েক দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। খুব শিগগরই এ বিষয়ে গেজেট প্রকাশ করা হবে।

গেজেট প্রকাশের দুই মাসের মধ্যে অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান বা দেশ তাতে আপত্তি না জানালে চূড়ান্ত স্বীকৃতির সনদ দেয় ডিপিডিটি। তখন ওই পণ্যের একক স্বত্ব হয়ে যায় শুধু বাংলাদেশের। সে অনুযায়ী চূড়ান্তভাবে জিআই সনদ পেলে সারা বিশ্বে বগুড়ার দই একক ব্যবসা তৈরি হবে। এতে বাংলাদেশের পাশাপাশি বিশ্ববাজারেও বগুড়ার দইয়ের ক্রেতারা আস্থা পাবেন। সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

দই,বগুড়া,মর্যাদা,জিআই
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close