• বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮
  • ||

স্কুলছাত্রীকে ভারতে পাচারের চেষ্টা, খালু গ্রেপ্তার

প্রকাশ:  ১৫ জানুয়ারি ২০২২, ১৯:১৮
মনিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি

যশোরের মনিরামপুরে ষষ্ঠ শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ভারতে পাচারের সময় হাবিবুর রহমান নামে এক পাচারকারীকে আটক করে পুলিশ দিয়েছেন জনতা।

শনিবার (১৫ জানুয়ারি) দুপুরে ওই কিশোরীর মা বাদী হয়ে মনিরামপুর থানায় মামলা করেছেন।

গ্রেপ্তার হাবিবুর উপজেলার কিসমত চাকলা গ্রামের ওয়াজেদ গায়েনের ছেলে। তিনি সম্পর্কে কিশোরীর খালু। মাত্র ১৬ হাজার টাকায় ওই কিশোরীকে দালালের হাতে তুলে দেন তিনি।

মামলার বাদী বলেন, আমার স্বামী দিনমজুর। পারখাজুরা আশ্রয়ণ পল্লীতে আমরা থাকি। শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) বিকেলে আমার বোন জামাই হাবিবুর আমাদের পল্লীতে আসেন। তিনি আমার মেয়েকে বোরখা কিনে দেওয়ার কথা বলে স্থানীয় কাঁঠালতলা বাজারে নিয়ে যান।

ভাল বোরখা না পাওয়ার অজুহাত দিয়ে পরে মেয়েকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে ঝিকরগাছার বাঁকড়ার উদ্দেশে রওয়ানা দেন হাবিবুর। পরে বাঁকড়া বাজারে না নিয়ে পাশের মুকুন্দুপুর মহিলা মাদ্রাসার সামনে নিয়ে যান। সেখানে থ্রি হুইলার (সিএনজি) নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলো দুই দালাল। তখন তাদের কথায় সন্দেহ হলে আমার মেয়ে চিৎকার করে। পরে আশপাশের লোকজন জড়ো হয়ে হাবিবুরকে আটক করে পুলিশে দেয়।

মনিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূর-ই-আলম সিদ্দীকি বলেন, ১৬ হাজার টাকায় কলারোয়া এলাকার পাকুড়িয়া গ্রামের কবির হোসেনের কাছে স্কুলছাত্রীকে বেচে দেয় হাবিবুর। বিকেলে বাড়ি থেকে নিয়ে কিছুদূর যাওয়ার পর ঝিকরগাছার মুকুন্দুপুর এলাকায় দালাল কবির ও তার স্ত্রী মনোয়ারা হাবিবুরের সাথে যুক্ত হয়। সেখানে তাদের কথাবার্তায় সন্দেহ হলে কান্নাকাটি শুরু করে মেয়েটি। কান্নাকাটি শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসেন। পরে তারা বাঁকড়া ফাঁড়িতে খবর দিলে পুলিশ হাবিবুরকে আটক করে এবং ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে হেফাজতে নেয়।

ওসি বলেন, লোকজন জড়ো হতে দেখে কবির ও তার স্ত্রী পালিয়ে যায়। রাতে বাঁকড়া পুলিশ আমাদের খবর দিলে পুলিশ পাঠিয়ে ওদের থানায় নিয়ে আসি। এ ঘটনায় মেয়েটির মা বাদী হয়ে মানব পাচার আইনে মামলা করেছেন। শনিবার দুপুরে হাবিবুরকে আদালতে হাজির করা হয়েছে।


পূর্বপশ্চিমবিডি/জিএস

স্কুলছাত্রী,ভারত,গ্রেপ্তার
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close