• বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮
  • ||

বন্ধ ঘরের বিছানায় দুই শিশুর লাশ, মেঝেতে পাওয়া গেল অচেতন মাকে

প্রকাশ:  ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:২৬
গাজীপুর প্রতিনিধি

ভেতর থেকে বন্ধ করে রাখা একটি কক্ষের দরোজা ভেঙে দুই শিশুর মরদেহ ও অচেতন অবস্থায় তাদের মাকে উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশের ধারণা, দুই কন্যাসন্তানকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে অচেতন হয়ে যান মা। শিশু দুটির মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে আর জ্ঞান হারানো মাকে ওই হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যায় গাজীপুরের জেলার জয়দেবপুরের মোক্তারটেক এলাকার একটি আবাসিক ভবনের দ্বিতীয় তলার আবদ্ধ কক্ষ থেকে তাদের উদ্ধার করে পুলিশ। মৃত দুই শিশুর পাশে অচেতন হয়ে পড়ে থাকা ওই মা মানসিক ভারসাম্যহীন বলে দাবি করেছেন শিশু দুটির বাবা।

প্রতিবেশীরা জানান, গ্রামের বাড়ি থেকে মাত্র একদিন আগে স্বামীর ভাড়া বাসায় এসে ওঠেন লিজা বেগম নামের ওই মা। সঙ্গে নিয়ে আসেন সাত মাসের শিশুকন্যা তাসমিম জাহান বুশরা ও চার বছরের তাসনিহা জাহান তারিহাকে। আসার পর থেকে মোক্তারটেকের ওই বাসায় দুই সন্তানকে নিয়ে অবস্থান করছিলেন।

শনিবার সন্ধ্যার পর তাদেরকে ঘরে রেখে বিল্লাল মেয়েদের জন্য খাবার আনতে দোকানে যান। এই সুযোগে ঘরের ভেতর থেকে দরজা আটকে দেন লিজা। পরে দুই সন্তানকে বালিশচাপা দিয়ে হত্যা করে ঘরের মেঝেতে পাশাপাশি ফেলে রাখেন। আর ঘরের ভেতর একটু দূরেই তিনি জ্ঞান হারিয়ে পড়ে থাকেন।

প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, মাস তিনেক আগে কুমিল্লার দেবিদ্বার থানার বড় আলমপুর গ্রামের বাসিন্দা বিল্লাল পশ্চিম জয়দেবপুর মোক্তারটেক এলাকার শামসুল হকের তিনতলা বাড়ির দ্বিতীয় তলায় ভাড়ায় ওঠেন। এখানে থেকে ভবন নির্মাণের সয়েল টেস্টের মিস্ত্রির কাজ করতেন তিনি। শুক্রবার সকালে স্ত্রী তার দুই মেয়েকে নিয়ে স্বামীর এখানে আসেন। শনিবার সন্ধ্যার পর বিল্লাল পার্শ্ববর্তী দোকানে যান শিশুদের খাবার আনতে। বাসায় এসে দেখেন ঘরের ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ​অনেক ডাকাডাকির পরও কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে প্রতিবেশীদেরকে ডেকে আনেন বিল্লাল। এক পর্যায়ে স্থানীয়রা ভবনের বাইরে দিয়ে গিয়ে জানালা দিয়ে দেখতে পান তিন জন বিছানায় পড়ে আছেন। পরে তারা দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে দুই শিশুর মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেন। আর পাশেই অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন লিজাকে। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেন।

এ বিষয়ে গাজীপুর মহানগর পুলিশের সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আমরা দেখি শিশু দু’টির শরীর তখনও গরম। হয়তো অল্পক্ষণ আগে তার প্রাণ হারিয়েছে।

তিনি বলেন, লিজা বেগম একসময় মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন বলে জানিয়েছেন তার স্বামী বিল্লাল। কুমিল্লায় তার চিকিৎসাও হয়েছে। কেন ওই মা নিজের দুই কন্যাকে তিনি হত্যা করেছেন সেটা অনুসন্ধানে কাজ করছে পুলিশ।

পূর্বপশ্চিম- এনই

অচেতন মা,গাজীপুর,দুই শিশুরু লাশ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close