• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
  • ||

ইউপি সদস্য নির্বাচনে গ্রামবাসীদের ভোটের আগে ভোট

প্রকাশ:  ২৫ অক্টোবর ২০২১, ২৩:৩৩
দিনাজপুর প্রতিনিধি

একে একে আসছেন আর নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ব্যলটের মাধ্যমে ভোট প্রদান করছেন। ভোট কেন্দ্রে রয়েছে প্রিসাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার, ব্যালট, গোপন ভোট কক্ষসহ যাবতীয় সরঞ্জাম। ভোট শেষে ভোটারদের হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে মিষ্টি আর শিঙাড়া। আজ সোমবার সকালে ব্যতিক্রম এমন ভোটের আয়োজন করেন দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার ২ নম্বর কাটলা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়াড়ের ব্যাপারীর পাড়া গ্রামের।

গ্রামের দুজন ইউপি সদস্য নির্বাচনের প্রার্থী হওয়ায় গ্রামবাসীরা প্রার্থী নির্বাচনে জন্য ভোটের আগেই ব্যতিক্রম আয়োজন করেন।

সম্পর্কিত খবর

    সরকার ঘোষিত তৃতীয় দফা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আগামী ২৮ নভেম্বর হওয়ার কথা। ভোটে মোস্তাফিজুর রহমান বাবু ও বকুল হোসেন নামের দুজন অংশগ্রহণ করেন। নির্দিষ্ট সময় ভোট গণনা শেষে দুই প্রার্থীর মধ্যে মোস্তাফিজুর রহমান বাবু ২৩ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হন।

    আজ সোমবার সকাল ১০টায় গ্রামের মোস্তাক হোসেনের বাড়ির সামনে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় গ্রামের ১২৭ জন পুরুষ ভোটার অংশগ্রহণ করেন। নির্বাচন বাস্তবায়নকারী কর্মকর্তা হিসেবে গোলাপ হোসেন দায়িত্ব পালন করেন।

    গ্রামের বাসিন্দা মানিক হোসেন জানান, ‘আগামী ২৮ নভেম্বর স্থানীয় সরকারের ইউনিয়ন নির্বাচন হবে। ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ব্যাপারীপাড়া থেকে ইউপি সদস্য পদে মোস্তাফিজুর রহমান বাবু ও বকুল হোসেন প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। প্রার্থী দুজনই আমাদের প্রিয় মানুষ। একই পাড়ার দু’জন প্রার্থী হওয়ায় আমরা ভোটাররা প্রার্থী নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিড়ম্বনায় পড়ি। ফলে গ্রামে নিজেদের মধ্যে বিশৃঙ্খলা এড়াতে ও আমাদের এই আয়োজন।

    খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এই ওয়ার্ডে মোট পাঁচজন প্রার্থী ইউপি সদস্য নির্বাচনের জন্য প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। এরা হলেন, মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, বকুল হোসেন, রশিদুল ইসলাম, আব্দুর রাজ্জাক, আরিফুল ইসলাম। তাদের মধ্যে মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, বকুল হোসেন একই গ্রামের বাসিন্দা।

    নির্বাচন বাস্তবায়নকারী কর্মকর্তা গোলাপ হোসেন জানান, গ্রামের বাসিন্দাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সোমবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ভোটদানে ভোটারদের সময় বেঁধে দেওয়া হয়। এ সময়ের মধ্যে ১২৭ জন পুরুষ ভোটার ভোট দেন। ভোটে মোস্তাফিজুর রহমান বাবু ৭২ ভোট বিজয়ী হন এবং তার প্রতিদ্বন্দ্বী বকুল হোসেন ৪৯ ভোট পান। আর ৬টি ভোট নষ্ট হয়। ভোট সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে।

    প্রাক-নির্বাচনে অংশ নেওয়া বকুল হোসেন বলেন, ‘গ্রামের সব মানুষ আমাকে সমর্থন দেননি। নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে আমার কোনো অভিযোগ নেই। ফলাফল মেনে নিয়েছি।’

    পিপি/জেআর

    মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

    সারাদেশ

    অনুসন্ধান করুন
    • সর্বশেষ
    • সর্বাধিক পঠিত
    close