• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮
  • ||

খুলনায় পূজামণ্ডপের প্রবেশ পথে ১৮টি বোমা সদৃশ বস্তু

প্রকাশ:  ১৫ অক্টোবর ২০২১, ০০:৫২
খুলনা প্রতিনিধি

খুলনার রূপসার মহাশশ্মান মন্দিরের প্রধান প্রবেশ পথ থেকে ককটেল ও বিস্ফোরক সাদৃশ্য ১৮টি বস্তু উদ্ধার করেছে র‌্যাব।

বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব ৬-এর একটি দল ও বোম ডিস্পোজাল ইউনিট বোমা সাদৃশ্য বস্তুগুলো উদ্ধার করে।

সম্পর্কিত খবর

    র‌্যাব-৬-এর এস আই আ. খালেক এতথ্য নিশ্চিত করেছেন। ঘটনাস্থলে বিপুল সংখ্যক র‌্যাব, পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত আছেন।

    এ ঘটনার পর থেকে মন্দিরে দশনার্থীদের প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা ও রূপসা-শিপইয়ার্ড সড়কে চলাচল সীমিত করা হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অভিযান চলছিল।

    স্থানীয় সূত্র জানায়, রূপসা মহাশ্মশান ও শ্মশান কালি মন্দিরের পুরোহিত সুরেশ চক্রবর্তী টুটপাড়ায় একটি পূজায় অংশ নিয়ে মন্দিরে ফিরছিলেন। পথিমধ্যে সাদা পোষাকে দু’জন ব্যক্তি নিজেদের র‌্যাব কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে বলেন, তাদের কাছে গোয়েন্দা সূত্রে খবর আছে মন্দিরের প্রবেশ পথে বোমা রাখা হয়েছে। এরপর তারা ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে বাজারের একটি ব্যাগে ১৬টি ও বাইরে ২টি বোমা সদৃশ্য কৌটা দেখতে পান। সূত্র আরো জানায়, কৌটাগুলো কালো টেপ দিয়ে মোড়ানো ছিল। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ও র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌছান। তারা মন্দিরের দর্শনাথীদের প্রবেশ বন্ধ করে দেন।

    র‌্যাব-৬-এর পরিচালক লেফটেনেন্ট কর্ণেল মোস্তাক আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, এটি একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা। গোয়েন্দা অনুসন্ধানের মাধ্যমে প্রকৃত দোষীদের খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় আনা হবে।

    র‌্যাবের এস আই আ. খালেক বলেন, ‘রূপসা মহা শ্মশানের প্রধান গেটে বোমা বা বোমা সাদৃশ্য বস্তুর তথ্য পেয়ে র‌্যব সদস্যরা স্থানটি ঘিরে রাখে। পরে বোমা ডিসপোজাল ইউনিট এসে উদ্ধার অভিযান শুরু করে।’

    তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের অভিযান এখনো শেষ হয়নি। ইতোমধ্যে ১৮টি বোমা বা বোমা সাদৃশ্য বস্তু উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযান শেষে বিস্তারিত জানানো হবে।’

    এ সময় খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. মাসুদুর রহমান ভূঞার নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল উপস্থিত ছিলেন।

    পিপি/জেআর

    মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

    সারাদেশ

    অনুসন্ধান করুন
    • সর্বশেষ
    • সর্বাধিক পঠিত
    close