• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৩ কার্তিক ১৪২৮
  • ||

তিন ব্যাংক থেকে ৩৪ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে পলাতক শিক্ষক

প্রকাশ:  ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৪৮
ভোলা প্রতিনিধি

বিভিন্ন ব্যাংক থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ ঋণ নিয়ে প্রায় আড়াই বছর আগে পালিয়ে যান ভাস্কর চন্দ্র হাওলাদার। এ বিষয়ে ওই ব্যক্তির নামে মামলা করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। পেশায় স্বর্ণ ব্যবসায়ী হলেও তিনি ছিলেন লালমোহন সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। আড়াই বছর ধরে ব্যাংকের করা মামলায় তিনি পলাতক থাকলেও স্কুলের বেতন তুলছেন নিয়মিতই।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ভাস্কর স্থানীয় ইসলামি ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক ও রূপালী ব্যাংক থেকে প্রায় ৩৪ লাখ টাকা ঋণ নেন। এ ছাড়া বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকেও বিভিন্ন সময়ে টাকা ধার নেন তিনি। পরে ২০১৯ সালের ৯ এপ্রিল সব টাকা নিয়ে পালিয়ে যান। সেদিন থেকে আর স্কুলেও যাননি। গত ১২ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু হলেও এখনো ভাস্কর অনুপস্থিত। এ কয়েক দিন তাঁকে অনুপস্থিত দেখানো হয়েছে বলে প্রধান শিক্ষক জানান। কিন্তু প্রতি মাসে ভাস্করের বেতন অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছে।

সম্পর্কিত খবর

    এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, করোনার কারণে বিদ্যালয় বন্ধ থাকার জন্য ভাস্কর বিদ্যালয়ে আসেনি। তার আগে তিনি নিয়মিত স্কুলে এসেছেন। একজন শিক্ষক দুই বছর মেডিকেল ছুটি নিতে পারে। তিনি কিছুদিন আগেও ডাকযোগে মেডিকেল ছুটির আবেদন পাঠিয়েছেন। সে কারণেই তাঁর অ্যাকাউন্টে বেতন জমা পড়ছে।

    অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মো. জামাল উদ্দিন জানান, ভাস্কর তাঁর বিদ্যালয়ের চেক দেখিয়ে লালমোহন অগ্রণী ব্যাংক থেকে ২ লাখ টাকা ঋণ নেন। লালমোহন মহাজন পট্টিতে তাঁর একটি স্বর্ণের দোকানের জন্য বাড়ির দলিল রেখে ঋণ নেন আরও ৪ লাখ টাকা। চেক রেখে ভোগ্যপণ্য ঋণ বাবদ ২ লাখ টাকা নিয়ে সেই ঋণ শোধ করেননি ভাস্কর হাওলাদার। এ কারণে তাঁর বিরুদ্ধে ভোলার যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা করা হয়েছে। ওই মামলায় ভাস্কর পলাতক রয়েছেন। গত বুধবারও আদালতে মামলার শুনানি হয়েছে। শুনানিতে ব্যাংকের পক্ষ থেকে ব্যবস্থাপক হিসেবে তিনি নিজে হাজির ছিলেন। কিন্তু ভাস্কর হাজির হননি। এ ছাড়া ঋণের এই ৪ লাখ টাকা এখন প্রায় ৬ লাখ টাকা হয়েছে। এ টাকার জন্যও আবারও মামলা হবে বলে তিনি জানান।

    রূপালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মো. জহির উদ্দিন বলেন, ভাস্কর রূপালি ব্যাংক থেকে ১৮ লাখ টাকা বন্ধকি ঋণ নেন। এ ছাড়া শিক্ষক ঋণ নেন সাড়ে ৪ লাখ টাকা। এসব টাকা না দেওয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। অন্যদিকে একই বাড়ির দলিল রেখে ইসলামী ব্যাংক থেকেও ঋণ নিয়েছেন ৬ লাখ টাকা। এ কারণেও তাঁর বিরুদ্ধে ইসলামী ব্যাংক থেকে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান ওই ব্যাংকের ব্যবস্থাপক।

    এসব টাকা না দিয়ে পলাতক থাকায় দুই ব্যাংক থেকে ভাস্করের বাড়িতে সাইনবোর্ড ঝোলানো হয়েছে। এ বিষয়ে লালমোহন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পল্লব কুমার হাজরা বলেন, বিদ্যালয়ে অনুপস্থিতির বিষয়টি তাঁর জানা ছিল না। এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন তিনি।

    পিপি/জেআর

    মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

    সারাদেশ

    অনুসন্ধান করুন
    • সর্বশেষ
    • সর্বাধিক পঠিত
    close