• রোববার, ২০ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮
  • ||

সংবাদ প্রকাশে ক্ষিপ্ত প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশ:  ০৩ মে ২০২১, ১৩:৫৭
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশের জেরে দৈনিক কালের কন্ঠের আঞ্চলিক প্রতিনিধি কুদ্দুস বিশ্বাসের ব্যক্তিগত অফিস ও কুরিয়ার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তালা দেয়ার ৫ দিন পার হলেও তালা খুলে দেয়া হয়নি। প্রতিমন্ত্রীর নিদের্শে তার ভাই মারুফ আহমেদ সিক্ত মন্ডল ১৫/১৬ সহযোগিকে নিয়ে গত বুধবার দুপুর ২টার দিকে রৌমারী উপজেলা রোডে ওই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে প্রকাশ্যে সন্ত্রাসী কায়দায় তালা লাগানো হয় বলে অভিযোগ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ওইদিন রাতে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করার এতদিনেও কোনো মামলাও নেয়নি পুলিশ।

জানা গেছে, তালা লাগানোর বিষয়টি সঙ্গে রৌমারী থানা পুলিশকে জানানোর পর দুইজন পুলিশ সদস্য আসেন ঘটনাস্থলে। এসময় স্থানীয় সাংবাদিকরা তালা দেয়ার ঘটনা পুলিশকে জানানোর পরও তারা তাক্ষণিক কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

প্রতিষ্ঠান তালাবদ্ধ থাকায় কুরিয়ার সার্ভিসের অসংখ্য গ্রাহক হয়রানির মুখে পড়েছে। এ অবস্থায় কুরিয়ার সার্ভিসের কর্মচারী রাজু আহমেদ তালাবদ্ধ প্রতিষ্ঠানের বাইরে দাঁড়িয়ে জরুরি কিছু কার্যক্রম চালানোর চেষ্টা করলে সেখান থেকেও তাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয়। সন্ত্রাসীদের হুমকিতে বন্ধ রয়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

ভুক্তভোগী সাংবাদিক কুদ্দুস বিশ্বাস অভিযোগ করেন, সত্য বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করে আমার অপরাধটা কি। মন্ত্রীর লোকজন বলছে আমি মন্ত্রীর কাছে গিয়ে ক্ষমা চাইলে, মন্ত্রীকে নিয়ে আর কোনো সংবাদ না করার প্রতিশ্রুতি দিলে তারা আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে দিবে। এর আগে তারা তালা খুলে দিবে না বলে আমাকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে।

রৌমারীতে ওই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন রাজীবপুর প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে। রাজীবপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে উপজেলা শিশু পার্কের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। কর্মসূচিতে সাংবাদিক কুদ্দুস বিশ্বাস ও তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলায় জড়িতদের গ্রেপ্তার দাবি করে প্রধামমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানিয়েছেন। কর্মসূচিতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর আরো অসংখ্য অনিয়ম দুর্নীতির তথ্য তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন সাংবাদিকরা।

প্রসঙ্গত, স্থানীয় সংসদ সদস্য ও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর জাকির হোসেনের অনিয়ম দুর্নীতি নিয়ে গত ২৫ এপ্রিল কয়েকটি সংবাদপত্রে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন তিনি। প্রতিমন্ত্রীর নির্দেশ পেয়ে তার ছোট চাচাতো ভাই মারুফ আহমেদ সিক্ত এবং তার সঙ্গীয় ১৫/১৬ জনের একটি দল গত ২৮ এপ্রিল বুধবার দুপুর ২টার দিকে রৌমারী উপজেলা রোডে কালেরকন্ঠের সাংবাদিক কুদ্দুস বিশ্বাসের ব্যক্তিগত অফিস ও কুরিয়ার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে সাংবাদিককে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। জীবননাশের হুমকি দেয়। এ অবস্থায় নিরাপত্তার অভাবে ওই সাংবাদিক অফিসের বাইরে চলে যান। এর কয়েক মিনিট পরে মন্ত্রীর ওই ভাই দলবল নিয়ে আবার এসে সাংবাদিককে খুঁজতে থাকে। তাকে না পেয়ে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তালা লাগিয়ে দেয়।

এ প্রসঙ্গে রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আল ইমরান বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে মন্ত্রী স্যারের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও পাইনি। মন্ত্রীর লোকদের সঙ্গে কথা হয়েছে তাতে তালা খুলতে মন্ত্রী স্যারের সঙ্গেই কথা বলতে হবে। আমি বিকালে স্যারের বাসভবনে গিয়ে কথা বলে তালা খোলার ব্যবস্থা করব।’

একই ধরনের কথা বলেন রৌমারী থানার ওসি মোন্তাছের বিল্লাহও তিনি বলেন, ‘আমি কয়েকদিন ধরেই বিষয়টি নিয়ে ঘুরছি।’ মামলা প্রসঙ্গে বলেন, মামলাও নেয়া হবে।

কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার (এসপি) সৈয়দা জান্নাত আরা বলেন, আমি ঘটনাটি শুনেছি। যাচাই বাচাই করে খুব দ্রত সময়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, ইউএনও অনেক চেষ্টা করছেন। আমি মন্ত্রী মহোদয়কে ফোন করেছি। তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

কুড়িগ্রাম,সাংবাদিক
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close