• সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭
  • ||

তিন নেতার বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে প্রশ্নবিদ্ধ লক্ষ্মীপুর যুবলীগ

প্রকাশ:  ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩:৪০
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি
বিতর্কিত তিন যুবলীগ নেতা

লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ নেতাকর্মীদের বেপরোয়া ক্ষমতা প্রয়োগে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। সম্প্রতি কয়েকজন যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ইউপি চেয়ারম্যানকে মারধরের হুমকি, বৈদ্যুতিক সংযোগের নামে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। প্রতারণার দায়ে এক যুবলীগ নেতা র‌্যাব-১১ এর অভিযানে গ্রেপ্তারও হয়েছেন।

জানা গেছে, তফছির আহমেদ নামে এক যুবলীগ নেতা প্রকাশ্যে সদর উপজেলার লাহারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন মুশু পাটোয়ারীকে মারধরের হুমকি দেন। গত ১০ সেপ্টেম্বর ওই ইউনিয়ন ভূমি অফিসে যুবলীগ নেতা প্রকাশ্যে এ ঘটনা ঘটায়। তফছির একই ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক। এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান মোশারেফ সদর থানায় তফছিরের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছেন। গত ৫ সেপ্টেম্বর আবিরনগর গ্রামে একটি সালিসী বৈঠকেও যুবলীগ নেতা তফছির ওই ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর চওড়া হন।

এর আগে সদরের তেওয়ারীগঞ্জ ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি সেলিম মাঝি বৈদ্যুতিক সংযোগের নামে ২৬০ পরিবারের কাছ থেকে প্রায় ৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। ২ বছর আগে এ টাকা নিলেও এখনো বিদ্যুৎ পৌঁছেনি তেওয়ারীগঞ্জের আন্দারমানিক গ্রামের ওইসব পরিবারে। এসব অভিযোগে তাকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।

এদিকে সদর কুশাখালীতে পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ দেয়ার নামে গ্রাহকদের কাছ থেকে ৬০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে মো. কামাল উদ্দিন (৩২) নামে এক যুবলীগ নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ১৩ সেপ্টেম্বর প্রতারণা মামলায় র‌্যাব-১১ তাকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তার কামাল কুশাখালী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক।

যুবলীগ নেতা তফছির আহমেদ বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন আমাকে কোনো বরাদ্দ দেয় না। উনার কাছে কোনো বরাদ্দ চাইলে তিনি কর্ণপাত করেন না। এজন্য তার সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়েছে।

তবে ইউপি চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন মশু পাটোয়ারী বলেন, যুবলীগ নেতা তফছির আমার কাছে অন্যায় আবদার করে। সরকার বরাদ্দ দেয় অসহায় মানুষের জন্য, আমি যথাযথভাবে তা বন্টন করি। তফছিরকে বরাদ্দ না দেওয়ায় সম্প্রতি একটি মারামারির ঘটনা মীমাংসা করতে গেলে ভূমি অফিসে প্রকাশ্যে তিনি আমাকে মারধরের হুমকি দেয়। এনিয়ে আমি সদর থানায় জিডি ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) ঘটনাটি অবিহিত করেছি।

জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, ঘটনাগুলো শুনেছি। এ ব্যাপারে দলীয়ভাবে তদন্ত করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, যুবলীগ নেতা তফছিরের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান লিখিত অভিযোগ করেছেন। এনিয়ে তফছিরের সঙ্গে কথা হয়েছে। ফের এ ধরণের কোন ঘটনা না ঘটানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/ এনএন

লক্ষ্মীপুর
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close