• বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৭ আশ্বিন ১৪২৭
  • ||

সড়ক বিভাগে হিসাবরক্ষক যখন ঠিকাদার!

প্রকাশ:  ১৩ আগস্ট ২০২০, ১৫:১১ | আপডেট : ১৩ আগস্ট ২০২০, ১৫:১৮
গাজীপুর প্রতিনিধি
মমতাজ আলা জাকির আহম্মেদ

গণপূর্ত, জনস্বাস্থ্য ও সড়ক বিভাগ গাজীপুরের বিভাগীয় হিসাবরক্ষক মমতাজ আলা জাকির আহম্মেদের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তিনি অন্যের লাইসেন্সে ঠিকাদারি করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে ফাইল আটকে কমিশন আদায়, হয়রানি, ঠিকাদার ও স্টাফদের সঙ্গে অসদাচরণসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে তিনি কোটি কোটি টাকার সম্পদের মালিক হয়ে গেছেন। তার ধানমণ্ডিতে একটি ফ্ল্যাট, ঢাকা উদ্যানে ৫ কাঠা জমিতে টিনশেড ঘর করে ভাড়া দিয়েছেন। ঢাকার মিরপুরে একটি ফ্ল্যাট, নিকুঞ্জে ৫ কাঠা জমির ওপর টিনশেড বাসা করে ভাড়া দিয়েছেন। তার নিজের ও আত্মীয়স্বজনের নামে-বেনামে ব্যাংকে টাকা রেখেছেন।

জানা গেছে, আলা জাকির আহাম্মেদ ২০১৭ সালে বিভাগীয় হিসাবরক্ষক হিসেবে সড়ক ও জনপথ গাজীপুরে যোগদান করেন। এর আগে তিনি কুড়িগ্রাম, নরসিংদী ও নারায়গঞ্জ সড়ক বিভাগেও চাকরির সময় নানা অঘটনের জন্ম দিয়েছেন। মারামারি, অর্থ আত্মসাৎসহ নানা অভিযোগে জেলও খেটেছেন। তিনি বর্তমানে গাজীপুর সড়ক বিভাগ ছাড়াও গণপূর্ত ও জনস্বাস্থ্য বিভাগ গাজীপুরেরও দায়িত্বে আছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আলা জাকির কুড়িগ্রামে সড়ক ভবনের দুই কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জেল খেটেছেন। সিডিউল বিক্রির টাকা ট্রেজারিতে জমা না দিয়ে আত্মসাৎ করার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আঁখি এন্টারপ্রাইজের নামে তিনি গাজীপুর সড়ক ভবনের পেছনে স্টাফ কোয়ার্টারের সংস্কার করেছেন। এছাড়া ঢাকার মাইনউদ্দিন বাঁশি ও আর টি কনস্ট্রাকশন কোং নামেও কাজ নিয়ে তিনি ঠিকাদারি করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

গাজীপুর সড়ক বিভাগের ঠিকাদার ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর মো. সফর আলী বলেন, মমতাজ আলা জাকির আহাম্মেদ ঠিকাদারদের ফাইল আটকিয়ে টাকা আদায় করেন। গত জুন মাসে তিনিসহ অন্যান্য ঠিকাদারদের কাজের বিল নিতে গিয়ে তাকে টু-পার্সেন্ট হারে ঘুষ দিতে হয়েছে। এছাড়া তিনি ঠিকমতো অফিসে আসেন না, এলেও মানুষের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেন। তিনি নিজেই বিভিন্ন ঠিকাদারি ফার্মের নামে কাজ করেন বলে অভিযোগ করেন সফর আলী।

অপর ঠিকাদার মিজান বলেন, মমতাজ আলা জাকির সরকারি চাকরির পাশাপাশি ঠিকাদারিও করেন। সম্প্রতি তিনি সড়ক ভবনের পেছনে স্টাফ কোয়ার্টার সংস্কারের ১৪ লাখ টাকার কাজ আঁখি এন্টারপ্রাইজের নামে করেছেন। এছাড়া কাপাসিয়ায়ও একটি রাস্তার কাজ করেছেন। তার এসব কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করায় ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে তিনি মামলা-মোকদ্দমাও করেছেন।

ঠিকাদার আবদুুল কাদির, মাসুদ, মজিবুর রহমানসহ বেশ কয়েকজন ঠিকাদারও একই অভিযোগ করেন। তাদের অভিযোগ মমতাজ আলা জাকিরের বিরুদ্ধে কেউ অভিযোগ দিতে চাইলে তিনি উপরমহলে হাত আছে বলে হুমকি দেন। তিনি প্রায়ই বলে বেড়ান এজি অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আমি মাসোয়ারা দিই। তাই হেড অফিসে অভিযোগ করে কোনো কাজ হবে না বলে দম্ভোক্তি করেন।

এসব অভিযোগের বিষয়ে বিভাগীয় হিসাররক্ষক মমতাজ আলা জাকির আহম্মেদ বলেন, আপনার মতো অনেক সাংবাদিক প্রতিদিনই আমার অফিসে আসে, লেখে নিয়ে যায়। আপনিও লেখে নিয়ে যান। পরে ইচ্ছামতো ছাপিয়ে দিন, যা শুনছেন ওইসব অভিযোগ একটাও সত্য নয়।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ গাজীপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাইফুদ্দিন বিভাগীয় হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা মমতাজ আলা জাকির আহম্মেদের কর্মকাণ্ডে বিব্রত বলে জানিয়েছেন।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

গাজীপুর,দুর্নীতি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close