• শনিবার, ০৮ আগস্ট ২০২০, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭
  • ||

সাভারে নারী ও কিশোরী ধর্ষণের পৃথক ঘটনায় গ্রেপ্তার ২

প্রকাশ:  ১২ জুলাই ২০২০, ০৯:১৩
সাভার প্রতিনিধি

সাভারে পাওনা টাকা চাওয়ায় ইট ভাটার এক শ্রমিকের স্ত্রীকে (১৯) গণধর্ষণ ও অপর ঘটনায় স্কুল শিক্ষার্থী (১৪) এক কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগে দুই জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। উভয় ঘটনায় সাভার মডেল থানা ও আশুলিয়া থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এঘটনায় স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ধর্ষিতা নারী ও কিশোরীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে প্রেরণ করা হয়েছে।

শনিবার (১১ জুলাই) বিকেলে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ ও আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিজাউল হক দিপু।

এর আগে শুক্রবার (১০ জুলাই) দুপুরে সাভারের ভাকুর্তা মোগরাকান্দা এলাকায় গণধর্ষণের শিকার হন ওই ইটভাটা শ্রমিকের স্ত্রী। অপর ঘটনায় একই দিন (শুক্রবার) রাতে নিজ বাড়িতে প্রকৃতির ডাকে সারা দিতে বেরুলে প্রতিবেশি গার্মেন্ট শ্রমিক যুবকের ধর্ষণের শিকার হন ওই স্কুল শিক্ষার্থী।

সাভারে ইটভাটা শ্রমিককে গণধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ইটভাটা শ্রমিকদের সরদার আলাউদ্দিন (৪০) কুড়িগ্রাম জেলার ভুরুঙ্গামারী থানার মইদাম গ্রামের জহুর উদ্দিনের ছেলে। মামলায় অভিযুক্ত জুয়েল, ওয়াহিদ ও শহিদুল পলাতক রয়েছেন।

আশুলিয়ায় কিশোরী ধর্ষণের অপর ঘটনায় গ্রেপ্তার রাসেল (২৪) স্থানীয় একটি তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিক।

সাভারে গণধর্ষণের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গতকাল দুপুরে ভুক্তভোগী নারীর স্বামী উপজেলার ভাকুর্তা মোগরাকান্দা এলাকার একটি ইটভাটায় তার পাওনা বকেয়া মজুরির টাকা আনতে যান। এসময় পাওনা টাকা চাওয়া ইটভাটার শ্রমিকদের সরদার আলাউদ্দিন, তার দুই সহযোগী ওয়াহিদ ও শহিদের সহযোগীতায় তাকে একটি বাগানের ভিতরে নিয়ে হাত-পা বেঁধে মারধর করে। পরে জুয়েল নামে আলাউদ্দিনের আরেক সহযোগী কৌশলে ভুক্তভোগী ইটভাটা শ্রমিকের স্ত্রীকে ঘটনাস্থলে ডেকে আনেন। পরে ইটভাটার শ্রমিক সরদার আলাউদ্দিন ও তার সঙ্গী শহিদুলের সহযোগিতায় ওয়াহিদ ও জুয়েল ওই ইটভাটা শ্রমিকের স্ত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এসময় তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ জানান, গণধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত চার জনের মধ্যে একজনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

অপরদিকে আশুলিয়ায় স্কুল শিক্ষার্থী ধর্ষণের মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, নরসিংহপুর বুড়ির পাড় এলাকায় হোটেল ব্যবসায়ী বাবা ও গার্মেন্ট শ্রমিক মায়ের সাথে ভাড়া বাসায় থেকে স্থানীয় একটি স্কুলে পড়াশুনা করে আসছে ভুক্তভোগী ওই কিশোরী। কিন্তু অনেক দিন থেকেই একই বাসার ভাড়াটিয়া রাসেল নামে এক যুবক ওই কিশোরীর দিকে লোলুপ দৃষ্টি দিয়ে আসছিল। সবশেষ গতকাল রাতে ওই কিশোরী প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে বাইরে আসলে আগে থেকে উৎ পেতে থাকা বখাটে রাসেল তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিজাউল হক দিপু জানান, ধর্ষিতা কিশোরীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে প্রেরণ করা হয়েছে। এঘটনায় মামলা দায়েরের পর অভিযুক্ত রাসেলকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

পূর্বপশ্চিমবিডি/আরএইচ

সাভার,ধর্ষণ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close