• রোববার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭
  • ||

সিলেটে শ্রমিক নেতাকে হত্যা: ২০ জনকে আসামি করে মামলা

প্রকাশ:  ১১ জুলাই ২০২০, ২০:৪৪
সিলেট প্রতিনিধি

সিলেট জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতির বহিষ্কারের একদিন পর দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে খুন হয়েছেন বিভাগীয় ট্যাঙ্ক লরি শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন রিপন (৪০)। শুক্রবার (১০ জুলাই) রাত ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শ্রমিকরা বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ করলে পুলিশ ২ জনকে গ্রেপ্তার করে।

নিহত রিপন দক্ষিণ সুরমার খোজারখলা এলাকার আবিল হোসেনের ছেলে।

দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ জানায়, রাত ১১টার দিকে দক্ষিণ সুরমার বাবনা পয়েন্ট এলাকায় রিপনকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় অজ্ঞাত দুুর্বৃত্তরা। পরে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত ১২টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় দক্ষিণ সুরমার হুমায়ুন রশীদ চত্বরে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করছে শ্রমিকরা। এর আগে বাবনা পয়েন্টেও বিক্ষোভ করা হয়।

গত বৃহস্পতিবার শ্রমিকদের কল্যাণ তহবিলের দুই কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিক মিয়াকে বহিষ্কার করা হয়। এর পরই ঘটল এই শ্রমিক নেতার মৃত্যুর ঘটনা।

তবে বিভাগীয় ট্যাংক লরি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. মনির হোসেন ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমির আলীর অভিযোগ, গত রমজানে বাবনা মোড়ে ট্যাংকলরির সদস্য মো. ইউনুস মিয়ার তেলের দোকানে সন্ত্রাসীরা চাঁদা দাবি করে। একপর্যায়ে তিন লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনায় ইউনুস মিয়া বাদি হয়ে দক্ষিণ সুরমা থানায় একটি মামলা দায়েরের পর সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল আহমদ রিপন জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। তিনি আসামিদের গ্রেপ্তার করতে পুলিশ প্রশাসনকে বার বার অনুরোধ করলেও কোনো আসামি গ্রেপ্তার করা হয়নি। আর এর জেরেইে তাকে হত্যা করা হয়।

তাদের ভাষ্য, ছিনতাইয়ের ঘটনার পর পুলিশ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতো তাহলে এই খুনের ঘটনা ঘটতো না।

এদিকে, এ ঘটনায় দক্ষিণ সুরমা থানায় ২০ জনকে আসামি করে মামলা করেন নিহতের স্ত্রী ফারজানা আক্তার। পরে নোমান ও সাদ্দাম নামের দুইজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

দক্ষিণ সুরমা থানার ওসি খায়রুল ফজল বলেন, অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

সিলেট
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close