• সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭
  • ||

মেঘনার পেটে বেড়িবাঁধ, কথা রাখেননি এমপি মান্নান

প্রকাশ:  ০৮ জুলাই ২০২০, ১৩:২৩ | আপডেট : ০৮ জুলাই ২০২০, ১৪:৫৭
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

মেঘনার উপকূল, লক্ষ্মীপুরের রামগতির চরগাজী বয়ারচর টাঙ্কি। লক্ষ্মীপুরের রামগতি ও নোয়াখালীর হাতিয়ার হরণী সীমান্তবর্তী এ চরে প্রায় ১০ হাজার মানুষের বসবাস। বয়ারচর লক্ষ্মীপুরের হলেও নোয়াখালীর সঙ্গে সীমানা জটিলতা নিয়ে বিরোধ রয়েছে। তবে ওই এলাকায় প্রায় ৯০ শতাংশ লোক রামগতির ভোটার।

মেঘনা তীরের টাংকির বাজারের উত্তর দিকে প্রায় ১৫ কি. মি বেড়িবাঁধ। সবুজ বৃক্ষেঘেরা বাঁধ। বাঁধের কোলে আড়ছে পড়া নদীর ঢেউয়ের অপরূপ দৃশ্য। কিন্তু প্রায় ৩শ মিটার দূরত্বে হেঁটে গেলেই এ অপরুপ দৃশ্যের ভয়ঙ্কর রুপ মুহুর্তে যে কারো মন খারাপ করে দিবে। কারণ, উত্তাল নদীর প্রতিটা ঢেউ গিলে খাচ্ছে অপরূপ সৌন্দয্যে ভরা বেড়িবাঁধ ও সবুজ বৃক্ষ।

বাসিন্দারের অভিযোগ, এলাকাবাসীর দাবি ছিলো বাঁধটির টেকসই মেরামত। স্থানীয় সংসদ সদস্য মেজর (অব.) মান্নান গত নির্বাচনের আগে বয়ারচরের টাংকিবাজারে এসে নদী ভাঙন রোধে বাঁধ মেরামতের আশ্বাস দেন। নির্বাচনের পর প্রায় দেড় বছর পার হলেও সর্বনাশী মেঘনা ভাঙনরোধে কথা রাখেননি সাংসদ। এরই মধ্যে ভিটেমাটি হারিয়েছেন অনেকে। এতে করে বাসিন্দাদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা গেছে, চর উন্নয়ন বসতি স্থাপন প্রকল্প (সিডিএসপি) এর আওতায় নেদারল্যান্ডের অর্থায়নে প্রায় ১৫ বছর আগে লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালীর সীমান্ত এলাকা বয়ার চরে নির্মাণ করা হয় এ বেড়িবাঁধটি।

গত ৫ বছর আগে মেঘনা নদী বেড়ি থেকে প্রায় তিন কি.মি. দূরত্বে ছিলো। কিন্তু দিনের পর দিন ভিটেমাটি এবং ফসলি জমি গিলে খেয়েছে করালগ্রাসী মেঘনা। আর এখন বেড়িবাধঁটি মেঘনার পেটে যেতে শুরু করেছে।

বয়ারচরের বাসিন্দা বৃদ্ধ নুরুল ইসলামের পৈত্রিক বাড়ি ছিলো বাঁধ থেকে প্রায় দেড় কি. মি. দূরে। চার বছর আগে তার ওই পৈত্রিক বাড়িটি কেড়ে নিয়েছে মেঘনা। সাথে আড়াই একর ফসলি জমিও। ভিটেমাটি হারিয়ে ১০ নং টাংকি সমাজের বেড়িবাঁধের পাশে এসে আশ্রয় নেন। আশ্রয়স্থলের দখলটি তাকে কিনতে হয়েছে সাত হাজার টাকা দিয়ে।

কিন্তু মেঘনার নজর এখন সেই আশ্রয়স্থলের দিকে। মেঘনা চলে এসেছে বসত ঘরের দুই ফুটের মধ্যে। করেয়কদিন মধ্যে মেঘনার পেটে যাবে তার বসতি। ছেলে মেয়েসহ পরিবারের ১৫ সদস্য নিয়ে কোথায় যাবেন সে চিন্তায় দিশেহারা তিনি।

পাশের বাসিন্দা কৃষক আবু তাহের ও তার দুই পুত্রের তিনটি ঘর। দুই সপ্তাহ আগে ভিটে থেকে ঘরটি ভেঙ্গে ফেলেছেন তিনি। ভাঙ্গন ঘরের কাছে চলে আসায়, কয়েকদিনের মধ্যে তার দুই ছেলেও ঘরও ভেঙ্গে ফেলতে হবে।

তিনি বলেন, কয়েক বছর থেকে মেঘনার ভাঙন অব্যাহত ছিলো। এখন বেড়িবাঁধ ভাঙতে শুরু করেছে। বাঁধের বিপরীত পাশেই আমাদের বাড়ি। সাথে ফসলি জমিও আছে। যে কোন সময় নদীতে তলিয়ে যাবে সহায় সম্বল। তিনি বলেন, ঘুর্ণিঝড় আম্পানের পর থেকেই ভাঙন পরিস্থিতি তীব্র আকার ধারণ করেছে।

বাঁধের পাশের বাসিন্দা ছালেহা বেগমের স্বামীর বাড়ি ছিলো রামগতির চরগাসিয়া এলাকায়। তিন বছর আগে ভিটেমাটি হারা হন তিনি। আশ্রয় নেন কামাল বাজার এলাকায়। এক বছরের ব্যবধানে সেই আশ্রয়টিও কেড়ে নেয় মেঘনা। চলে আসেন বয়ারচরে। দুই বছরের মাথায় আবারও ভাঙনের মুখে পড়েছেন। স্বামী ও চার সন্তান এই জেলে পরিবারের পরবর্তী যাত্রা কোথায় হবে তা অনিশ্চিত।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, বাঁধটি একপাশে মেঘনা নদী, অন্যপাশে মানুষের বসবাস। বাঁধের দুই পাশে বন বিভাগের পক্ষ থেকে গাছ লাগিয়ে সবুজ বেষ্টনি তৈরী করা হয়েছে।

নদীতে জোয়ারের সময় ভারী ঢেউ বাঁধে এসে আঁড়ছে পড়ছে। এত নদী সংলগ্ন বাঁধের পাশের গাছগুলো ইতোমধ্যে নদীতে ভেঙে পড়েছে। বাঁধের বেশিরভাগ অংশ নদীতে তলিয়ে গেছে।

বাঁধ সংলগ্ন বাসিন্দারের অধিকাংশই জেলে এবং কৃষক। কোনরকম দিন পার করছেন তারা। এরই মধ্যে বাসিন্দাদের মধ্যে ভাঙন আতঙ্ক বিরাজ করছে। কোন জনপ্রতিনিধি তাদের দিকে নজর না দেওয়ায় হতাশা বিরাজ করছে তাদের মধ্যে।

কয়েকজন এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে বর্তমান সংসদ সদস্য মেজর (অব.) মান্নান ভোট চাইতে টাংকি বাজারে আসেন। ওই সময় এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে, বাঁধ মেরামতের প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। কিন্তু নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এ এলাকায় তার আর দেখা নেই।

তারা বলেন, এলাকার কোন উন্নয়নে সংসদ সদস্যের ভূমিকা ছিলো না। সরকারি বরাদ্ধ ও হতদরিদ্রের জন্য আসা বরাদ্ধ কোথায় আসে, কিভাবে আসে কারা পায়, কোথায় যায় সেটি তারা জানেন না। সরকারের বিনামূল্যে দেওয়া কোন ঘর পাননি এ এলাকার অসহায় বাসিন্দারা। করোনাকালেও অসহায়দের কোন খবর রাখেননি তিনি।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক নেতা বলেন, সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের দলীয় না হওয়ায় উপকূলীয় এলাকার বাসিন্দারের উন্নয়নে কোন কাজ করেননি। দলীয় সংসদ সদস্য হলে হয়তো এ এলাকার মানুষের খবর রাখতেন।

স্থানীয় সংবাদকর্মী আবদুল কাইয়ুম বলেন, বায়রচরের বাসিন্দারা দুই জেলার বিতর্কিত সীমান্তে হওয়ায় স্থানীয় প্রশাসন তাদের দিকে নজর দিচ্ছে না।

ফলে সবুজ বেষ্টনি ঘেরা বয়ারচর রক্ষা বাঁধটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। সেই সাথে ভিটেমাটি হারাচ্ছে ওই এলাকার বাসিন্দারা। ভাঙন আতঙ্কে আছে কয়েকশ পরিবার।

তিনি বলেন, বাঁধটি মেরামতের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্যকেই এগিয়ে আসতে হবে। কারণ এ এলাকার প্রায় ৯০ শতাংশ ভোটার রামগতির। টেকসই প্রকল্পের মাধ্যমে সিসি ব্লকের মাধ্যমে বাধটি মেরামতের জন্য প্রধানমন্ত্রী এবং স্থানীয় সাংসদ মেজর (অব.) মান্নানের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর-৪ (কমলনগর-রামগতি) আসনের এমপি মেজর (অব.) মান্নানের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

পূর্বপশ্চিমবিডি/আরএইচ

লক্ষ্মীপুর,বেড়িবাঁধ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close