• শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ২০ আষাঢ় ১৪২৭
  • ||
শিরোনাম

করোনায় ৫ হাজার পরিবারের পাশে রাউজানের সাংসদপুত্র ফারাজ করিম

প্রকাশ:  ২৬ মার্চ ২০২০, ১৮:১৫
রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের কার্যালয়ে চলছে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী প্যাকেকজাত করণের কাজ। ছবি: পূর্বপশ্চিম

চট্টগ্রামের রাউজানে করোনা ভাইরাস সতর্কতায় ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারের আহবানে সাড়া দিয়ে ঘরে অবস্থান করছে এলাকার জনসাধারণ। পাশাপাশি এই সময়ে মানুষকে সচেতন করতে রাউজানে মাঠে নেমেছে উপজেলা প্রশাসন।

করোনার সতর্কতায় শুরু থেকেই বেশ সরব ছিলেন রাউজানের সাংসদ এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরীর জ্যেষ্ট পুত্র, উদীয়মান রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক ফারাজ করিম চৌধুরী। এবার করোনাভাইরাসের সতর্কতায় বাসা-বাড়িতে অবস্থানরত গরীব, অসহায় ও খেটে খাওয়া মানুষের জন্য খাদ্যদ্রব্য সামগ্রী সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন তিনি। তার মানবিক ডাকে সাড়া দিয়ে ইতিমধ্যেই রাউজানের রাজনীতিক, ব্যবসায়ী, ব্যাংকার, ডাক্তার, সমাজকর্মী থেকে শুরু করে বিভিন্ন পেশাজীবি মানুষ এগিয়ে আসছেন মানবিকতার টানে। তাদের আর্থিক সহায়তায় পর্যাপ্ত পরিমাণে খাদ্য দ্রব্যে সংগ্রহ করে প্যাকেজিংয়ে ব্যস্ত সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের হেল্পডেস্ক টিম ও স্যোশাল সার্ভিসেস ইউনিয়ন অব রাউজানের নেতৃবৃন্দরা। রাউজানের মুন্সিরঘাটা চত্বরে অবস্থিত সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের কার্যালয়ে চলছে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী প্যাকেকজাত করণের কাজ।

সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের সভাপতি সাইদুল ইসলাম বলেন, রাউজানের সাংসদপুত্র, তরুণ প্রজন্মের অহংকার, আমাদের সংগঠনের প্রধান পৃষ্টপোষক ফারাজ করিম চৌধুরী আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন যাতে করে দেশের চলমান পরিস্থিতিতে এলাকার গরীব, খেটে খাওয়া মানুষ তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে দুশ্চিন্তায় না পড়েন সে লক্ষ্যে মানবিক কারণে তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে।

রাউজানের সাংসদপুত্র ফারাজ করিম চৌধুরী পূর্বপশ্চিমকে বলেন, দেশে করোনা পরিস্থিতিতে এলাকার খেটে খাওয়া মানুষ খুব কষ্টে আছে। বিশেষ করে রিক্সাচালক থেকে শুরু করে যারা শ্রমজীবি মানুষ তারা পরিবারের ভরণপোষণ চালাতে হিমশিম খাচ্ছে। এই সময়ে আমাদের নৈতিক দায়িত্ব তাদের পাশে দাঁড়ানো। আমাদের উদ্যোগে সাড়া দিয়ে রাউজানের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ এগিয়ে এসেছে। আমি মনে করি সবাই যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী আমাদের প্রতিবেশীদের মধ্যে যারা কষ্টে দিনাতিপাত করছে তাদের পাশে যদি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিই তাহলে পরিবারগুলোর কষ্ট কিছুটা হলেও লাঘব হবে। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে পাঁচ হাজারের অধিক পরিবারের জন্য খাদ্যদ্রব্য ও ওষুধ সামগ্রী প্রদানের লক্ষ্যে প্যাকেটজাত করণের কাজ চলছে। পর্যায়ক্রমে আরো অধিক পরিবারকে এই সহায়তার আওতায় নিয়ে আসা হবে। এই বিষয়ে সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে আসলে আমাদের এই প্রচেষ্টা আরও বেগবান হবে।


পূর্বপশ্চিমবিডি/এনইউআর/কেএম

করোনাভাইরাস,রাউজান,ফারাজ করিম
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
Latest news
close