• বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৬
  • ||

সিলেটে গণজমায়েত রোধে টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী

প্রকাশ:  ২৬ মার্চ ২০২০, ১৪:১৪
সিলেট প্রতিনিধি
ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় সামাজিক সঙ্গ নিরোধ এবং হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) থেকে সিলেট নগরসহ সিলেট জেলার সর্বত্রই টহল দিতে দেখা যায় সশস্ত্র বাহিনীকে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানোর লক্ষ্যে সিলেটের সব এলাকায় সামাজিক দূরত্ব ও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুবিধার্থে প্রশাসনকে সহায়তায় নিয়োজিত হয়েছে সেনাবাহিনী।

জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের সমন্বয়ে তারা জেলা ও বিভাগীয় করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাব্যবস্থা, সন্দেহজনক ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থা পর্যালোচনা করবে।

বৃহস্পতিবার সকালে সিলেট জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (মিডিয়া) মো. মেজবাহ উদ্দিন বলেন, গত মঙ্গলবার সিলেট বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে এক জরুরি মিটিং হয়। তার পরদিন (বুধবার) থেকেই সেনাবাহিনী প্রস্তুতি নেয়। তবে আজ (বৃহস্পতিবার) থেকে টহল দিচ্ছে তারা।

সিলেট নগরের বন্দরবাজার, জিন্দাবাজার, আম্বরখানাসহ মহানগরীর বিভিন্ন জায়গায় সেনাবাহিনীকে টহল দিতে ও বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া মানুষকে ঘর থেকে বের না হতে পরামর্শ দিতে দেখা যায়।

এদিকে, সেনাবাহিনী ছাড়াও সিলেটে জনসমাগম রোধ করতে পুলিশেরও টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে বলে জানালেন সিলেট মেট্রোপলিটন অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া ও কমিউনিটি সার্ভিস) মো. জেদান আল মুসা।

তিনি জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সকল বাহিনী ও সশস্ত্র বাহিনীর সমন্বিত কার্যক্রমেই আমরা এ পরিস্থিতিটা মোকাবেলা করার চেষ্টা করছি। সেনাবাহিনীর পাশাপাশি পুলিশও সিলেটে বিশেষভাবে টহল দেবে- যাতে জনসমাগম বৃদ্ধি না করার সরকারি নির্দেশটা কার্যকর হয় এবং সিলেটে ভয়ঙ্কর এই ভাইরাসটার সংক্রমণ না ঘটে।

জেদান আল মুসা আরও বলেন, ইতিপূর্বে এসএমপি'র উদ্যোগে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে মাইকিং করা হয়েছে, আগামীতে আরও করা হবে। এই অবস্থায় কাউকে বাইরে অযথা ভিড় করতে দেখলে বাধ্যতামূলক ঘরে পাঠানো হবে, প্রয়োজনে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বুধবার রাতে সিলেটের জেলা প্রশাসক (সিলেট ডিসি) ফেসবুক একাউন্ট থেকে এক পোস্টে বলা হয়, ‌আগামীকাল (শুক্রবার) থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত জরুরি প্রয়োজন ব্যতিত কেউ ঘরের বাইরে বের হবেন না। সকাল থেকে পুলিশ ও সেনাবাহিনী মাঠে থাকবে।'

এর আগে গত সোমবার সচিবালয়ে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান, জেলা ম্যাজিস্ট্রেটদের সমন্বয়ে সেনাবাহিনী সদস্যরা জেলা ও বিভাগীয় করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাব্যবস্থা, সন্দেহজনক ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থা পর্যালোচনা করবে। সেনাবাহিনী বিশেষ করে বিদেশফেরত ব্যক্তিদের কেউ নির্ধারিত কোয়ারেন্টাইনে বাধ্যতামূলক সময় পালনে ত্রুটি বা অবহেলা করছে কি না, তা পর্যালোচনা করবে। জেলা ম্যাজিস্ট্রেটরা এ জন্য স্থানীয় সেনা কমান্ডারের কাছে সেনাবাহিনী কর্তৃক অবস্থা পর্যালোচনার জন্য আইন অনুসারে অনুরোধ জানাবেন।


পূর্বপশ্চিমবিডি/ইমি

সিলেট,সেনাবাহিনী,করোনাভাইরাস
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close