• শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
  • ||

পুলিশ হেফাজতে ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু, স্বজনদের দাবি হত্যা

প্রকাশ:  ১৫ মার্চ ২০২০, ০২:০৪
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

চুয়াডাঙ্গায় পুলিশ হেফাজতে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি জাহিদ হাসানের (৪০) মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (১৪ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় তাকে আটক করে জেলার দামুড়হুদা থানা পুলিশ। এর কিছুক্ষণ পরেই তিনি মারা যান।

নিহত জাহিদুল ইসলাম দামুড়হুদা উপজেলার জয়রামপুর গ্রামের মৃত লাল মোহাম্মদের ছেলে। তিনি চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ছিলেন।

স্বজনদের দাবি, কোনো মামলা ছাড়াই পুলিশ জাহিদ হাসানকে আটকের পর নির্যাতন করে হত্যা করেছে। তবে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) কনক কুমার দাস নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করে জানিয়েছেন, হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে জাহিদের মৃত্যু হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার সন্ধ্যার আগে দামুড়হুদা থানা থেকে পোশাক পরিহিত ও সাদা পোশাকে একদল পুলিশ জয়রামপুর গ্রামে যায়। পুলিশ সদস্যরা জয়রামপুর দাখিল মাদরাসার শিক্ষক হাবিবুর রহমানকে মাদক গ্রহণের অভিযোগে আটক করে। এ সময় জাহিদ হাসানসহ স্থানীয়রা সংগঠিত হয়ে হাবিবুরকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। ওই সময় পুলিশ সদস্যরা জাহিদ হাসানকে পিকআপে তুলে রওনা দেয়।

জাহিদ হাসানের খালা হেলেনা খাতুন অভিযোগ করেন, বিনা অভিযোগে পুলিশ ভাগনেকে আটক ও পিটিয়ে হত্যা করেছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রেজাউল করিম বলেন, আমার সামনে থেকেই জাহিদকে পুলিশ আটক করে। আমি পরিচয় দেওয়ার পরও তাকে ছাড়া হয়নি। পরে শুনি তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) কনক কুমার দাস বলেন, পুলিশের গাড়িতে করে থানায় আনার সময় জাহিদ হাসান অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসকেরা উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে নিতে বলেন। সেখান থেকে সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক শাকিল আর সালান বলেন, রাত আটটার কিছুক্ষণ আগে পুলিশ ও স্বজনেরা জাহিদ হাসানকে হাসপাতালে নিয়ে আসে। তবে হাসপাতালে আনার আগেই জাহিদ মারা যান।


পূর্বপশ্চিমবিডি/ইমি

চুয়াডাঙ্গা,ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close