• রোববার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে চলছে অবৈধ বালু উত্তোলন, নিরব প্রশাসন

প্রকাশ:  ০৬ নভেম্বর ২০১৯, ১৮:১০
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে দিনে-রাতে চলছে অবৈধ বালু উত্তোলন। সরকারি বালুমহাল ছেড়ে আশপাশের আরও ৩টি মৌজা থেকেও চলছে অবৈধ এই মহোৎসব। এতে কৃষকের নদীতীরের প্রায় ২০ বিঘা অবাদী জমি নদীতে পরিণত হয়েছে। একাজে বাধা দিতে গিয়ে মারপিট, হামলা ও মামলার শিকার হয়েছেন শতাধিক গ্রামবাসী। প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন ও প্রশাসনের দারস্ত হলেও তা কোন কাজে আসছে না বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

সরেজমিনে ফুলজোড় নদীর সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার আলোকদিয়া, বাদুল্লাপুর ও আমডাঙ্গা এবং কামারখন্দ উপজেলার ধামকৈল ও দোগাছি এলাকা ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

উল্লাপাড়া উপজেলা ভুমি অফিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে ফুলজোড় নদীর উল্লাপাড়া উপজেলার আলোকদিয়া মৌজার বালুমহাল ইজারা পায় সিরাজগঞ্জ শহরের রায়পুর মহল্লার হেলাল উদ্দিন। তার কাছ থেকে বালুমহালটি কিনে নেয় নারায়ণগঞ্জের জাকির হোসেন। তিনি আগষ্ট মাস থেকে ৪টি ড্রেজার দিয়ে শুরু করেন বালু উত্তোলন।

কিন্ত গত মৌসুমে এই বালুমহাল থেকে অতিরিক্ত বালু উত্তোলন করায় চলতি মৌসুমে মহালটিতে বালুর অভাব দেখা দেয়। যে কারণে ইজারাদার মহালের বাইরে গিয়ে বালু উত্তোলন করতে থাকে। এতে আশপাশের ব্যক্তি মালিকানাধীন আবাদি জমি ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় গ্রামবাসী ফুঁসে উঠে। তারা নদীতীরে গিয়ে বালু উত্তোলনে বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে। ওই সময় পুলিশ ও গ্রামবাসীর মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় শতাধিক গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে সলঙ্গা থানা পুলিশ ১টি এবং ইজারাদারের পক্ষ থেকে আরও ২টি মোট ৩টি মামলা দায়ের করে। এ ঘটনায় কয়েকজনকে গ্রেফতারও করে পুলিশ।

গ্রামবাসী বিষয়টি নিয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন এবং উপজেলা প্রশাসনের অভিযোগ করেন। এ অবস্থায় উপজেলা ভূমি অফিস সরেজমিন জরিপ করে ইজারাদারকে বালুমহালের সীমানা বুঝিয়ে দেন এবং সরকারি মহালের বাইরে গিয়ে বালু উত্তোলনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। ইজারাদারও মহালের বাইরে গিয়ে বালু উত্তোলন করবে না মর্মে লিখিত দেয়।

কিন্ত গত ২ মাস রাতের আধারে মহালের বাইরে গিয়ে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বাদুল্লাপুর ও আমডাঙ্গা এবং কামারখন্দ উপজেলার ধামকৈল ও দোগাছি মৌজায় গিয়ে বালু উত্তোলন করেছেন ইজারাদার। রোববার থেকে ইজারাদার মহালের বাইরে থেকে দিনের বেলায়ও বালু উত্তোলন শুরু করেছেন। প্রকাশ্যে এমন কর্মকাণ্ড চললেও অজ্ঞাত কারণে দুটি উপজেলার প্রশাসন রয়েছেন নিরব ভূমিকায়।

উল্লাপাড়া উপজেলার আলোকদিয়া গ্রামের আব্দুর রহমান, আমডাঙ্গা গ্রামের সম্বল হালদার, একই গ্রামের সোহাগ ও বেলাল জানান, এই অবৈধ বালু উত্তোলনের কারণে নদীতীরের ৪টি মৌজার প্রায় ২০ বিঘা আবাদি জমি নদীতে পরিণত হয়েছে।

কামারখন্দ উপজেলার দৌগাছি গ্রামের কৃষক মকবুল হোসেন ও ধামকৈল গ্রামের মোতালেব হোসেন জানান, ইজারাদার উল্লাপাড়া উপজেলার আলোকদিয়া মৌজার বালুমহাল ইজারা নিয়েছে। অথচ আমাদের এলাকায় এসে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় আবাদি নদীগর্ভে বিলীন হচ্ছে।

পাশাপাশি অন্তত ১৫টি স্থানে উত্তোলিত বালু স্তপ করে রাখায় আরও প্রায় ২০/২৫ বিঘা জমিতে আবাদ করতে পারছেন বলে অভিযোগ করেছেন এই সকল কৃষকরা। তাদের অভিযোগ, প্রশাসনকে জানানোর পরও তারা বিষয়টি কর্ণপাত করছে না। যে কারণে তারা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন।

আলোকদিয়া গ্রামের মনিরুল ইসলাম মাষ্টার বলেন, অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করতে গিয়ে নিজেসহ গ্রামের শতাধিক মানুষ ৩টি মামলার মিথ্যা মামলার শিকার হয়েছি। কয়েকজন হাজতবাসও করেছে। প্রতিনিয়ত এসব মামলার হাজিরা দিতে গিয়ে আমরা অর্থনৈতিকসহ নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি।

উল্লাপাড়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহবুব হাসান সোমবার (৪ নভেম্বর) বিকেলে বলেন, সরেজমিন গেলে সেখানে ড্রেজার মেশিন বা বালু উত্তোলনকারীদের ঘটনাস্থলে পাওয়া যায় না। যে কারণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সমস্যা হচ্ছে। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে কামারখন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমার উপজেলায় কোন বালুমহাল নেই। আজই সার্ভেয়ার পাঠিয়ে বিষয়টি দেখা হবে। কেউ অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করলে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিষয়ে ইজারাদার জাকির হোসেনের সাথে মোবাইলে কথা বলার চেষ্টা করেও তার ব্যবহৃত ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে। তবে তার পক্ষে বালু মহালের দায়িত্বে নিয়োজিত শাহ আলম বলেন, বালুমহাল এলাকায় ঝামেলা করার কারণে গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মামলা করতে হয়েছে। যে কারণে কিছুদিন রাতের বেলায়ও বালু উত্তোলন করেছি। ৪টি ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের অভিযোগ থাকলেও বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে ২টি ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনে প্রশাসনের অনুমোদন রয়েছে বলেও জানান তিনি।


পূর্বপশ্চিমবিডি/ইমি

অবৈধ বালু উত্তোলন,সিরাজগঞ্জ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত