• শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ২০ আষাঢ় ১৪২৭
  • ||
শিরোনাম

যৌন হয়রানীর মামলায়ও সিরাজের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চায় নুসরাতের পরিবার

প্রকাশ:  ২৭ অক্টোবর ২০১৯, ১৯:০৭ | আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০১৯, ১৯:১০
ফেনী প্রতিনিধি

ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসার মেধাবী ছাত্রী সুসরাত জাহান রাফিকে যৌন হয়রানীর অভিযোগে দায়ের করা মামলাও হত‌্যা মামলার মত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চায় নুসরাতের মাসহ পুরো পরিবার। ২৮ মার্চের এ মামলার জের ধরেই পরে নুসরাত হত‌্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়।

রোববার (২৭অক্টোবর) মামলাটির বাদীর সাক্ষ‌্য প্রধানের নির্ধারিত তারিখ ছিলো। ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মানুনুর রশিদের আদালতের অধিবেশন না থাকায় চলতি বছরের নভেম্বর মাসের ১৩ তারিখ সাক্ষ‌্য প্রধানের তারিখ পুনরায় ঘোষণা করা হয়।

মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী শাহজাহান সাজু বলেন, চলতি বছরের ২৭ মার্চ মাদরাসায় আলিম পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠানের দিন মাদরাসার অধ‌্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা মাদরাসার পিয়ন নুরুল আমিন দিয়ে তার কক্ষে নুসরাতকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর সিরাজ নুসরাতকে বলে, তুই মাদরাসার অন‌্য ছেলেদের সাথে প্রেম করিস, আমার সাথে প্রেম করলে কি হয়। ওরা তোকে কি দেয়, আমি তোরে পরীক্ষার প্রশ্ন দিবো- এমন প্রস্তাবে নুসরাত রাজি না হলে সিরাজ নুসরাতকে জড়িয়ে ধরে এবং স্পর্শ কাতর স্থানে হাত দেয়। পরে নুসরাত কাঁদতে কাঁদতে অধ‌্যক্ষ সিরাজের কক্ষ থেকে বের হয়। যা নুসরাতের অপর সহপাঠীরা দেখতে পায়।

এর পরের দিন ২৮ মার্চ নুসরাতের মা স্থানীয় ২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ইয়াসিনকে নিয়ে মাদরাসায় যায়, এবং সিরাজের কক্ষে গিয়ে তাকে তার বেত দিয়ে বেত্রাঘাত করে। এক পর্যায়ে মাদরাসা কমিটিকে জানানো হয়। পরে মাদরাসা কমিটি পুলিশ তলব করে। পুলিশ গিয়ে সিরাজকে আটক করে। এবং সেদিনই নুসরাতের মা শিরিন আখতার সিরাজকে ১ মাত্র আসামি করে মামলা দায়ের করে। সেদিন পুলিশ সিরাজকে ওই মামলায় জেল হাজতে প্রেরণ করে।

একইদিন নুসরাতের মা শিরিন আখতার ফেনীর সিনিয়র জুড়িশিয়াল ম‌্যাজিষ্ট্রেট এসএম কায়সারের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্ধী দেয়। নুসরাতও ২২ দারায় জবানবন্দি প্রদান করে। সে জবানীতে নুসরাত বর্ণনা করে সিরাজ নুসরাতের কোন যায়গায় কিভাবে স্পর্শ করে।

এরপর পিবিআইয়ের পরিদর্শক শাহআলম ৮ জুলাই ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদের আদালতে দাখিল করে।

পরের দিন অভিযোগ গঠনের মাদরাসা হয় এবং অপরাধ আমলে আনেন আদালত। আদালত নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২০০৩ এর ১০ দারায় ১৭ জুলাই অভিযোগ গঠন করেন। আজ ২৭ অক্টোবর মামলাটির সাক্ষ‌্য গ্রহণের দিন ধার্য‌্য ছিলো। আদালতের অধিবেশন না থাকায় তা পিছিয়ে নভেম্বর মাসের ১৩ তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

নুসরাতের মা শিরিন আখতার বলেন, এক মামলায়তো কুলাঙ্গার সিরাজের ফাঁসি হয়েছে এই মামলায়ও যেন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়।

সরকার পক্ষের আইনজীবী ফেনী জজকোর্টের পিপি হাফেজ আহম্মদ জানান, নারী শিশু আইন ২০০৩ এর ১০ দারায় এ মামলায় আসামির ১০ বছরের শাস্তি হতে পারে। অপরাধের সকল তথ‌্য প্রমাণ আছে। আমরা আশা করবো এ মামলাও সিরাজের দারা অনুযায়ী দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হবে।


পূর্বপশ্চিমবিডি/ইমি

ফেনী,নুসরাত হত্যাকাণ্ড,নুসরাত জাহান রাফি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
Latest news
close