Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৪ কার্তিক ১৪২৬
  • ||

পদ্মাসেতুর আদলে দুর্গাপূজার মঞ্চ

প্রকাশ:  ০৩ অক্টোবর ২০১৯, ১৭:০৭ | আপডেট : ০৩ অক্টোবর ২০১৯, ১৭:১১
খুলনা সংবাদদাতা
প্রিন্ট icon

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজাকে ঘিরে এরই মধ্যে খুলনায় আমেজ দেখা দিয়েছে। শহর থেকে শুরু করে গ্রামগঞ্জের মণ্ডপগুলোও সেজেছে বর্ণিল সাজে। সৌন্দর্য বেশি ফুটে উঠে সন্ধ্যা নামার পর ঝলমলে আলোকসজ্জায়। শুক্রবার (৪ অক্টোবর) ষষ্ঠী দিয়ে পূজা শুরু হবে, মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) বিসর্জনের মাধ্যমে সমাপ্ত হবে সনাতন সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা।

এবার পুজোয় খুলনার ৯টি উপজেলার ডুমুরিয়া সদরের কেন্দ্রীয় কালীবাড়ি ও মঠ মন্দিরের ভিন্নধর্মী উদ্যোগ সকলের দৃষ্টি আর্কষণে সক্ষম হয়েছে। এখানে দুর্গোৎসবের প্রচলিত ধ্যান-ধারণার দুর্গা, অসুর, কার্তিক, গণেশ, লক্ষ্মী, সরস্বতীর প্রতিমা স্থাপনের বাইরে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে ধর্মীয় বিভিন্ন পৌরাণিক কাহিনী। আর মঞ্চে আনা হয়েছে নতুনত্ব।

মূলত, এ অঞ্চলের প্রাণের দাবি পদ্মাসেতু বাস্তবায়নের একটি ভিন্ন রূপ ফুটে উঠেছে এখানে। মঞ্চটিতে আনা হয়েছে পদ্মাসেতুর রূপ। তার ওপরে একে একে সাজিয়ে রাখা হয়েছে এখানে স্থাপিত ১২৫টি প্রতিমা।

সেখানকার মন্দিরে প্রবেশ করতেই চোখে পড়বে পদ্মাসেতুর আদলে তৈরি অর্ধডিম্বাকৃতির মঞ্চ। সেই মঞ্চের পূর্ব-দক্ষিণ প্রান্ত থেকে উত্তর দিকে প্রতিমা স্থাপন করা হয়েছে। একেকটি প্রতিমায় একেকটি পূরাণিক কাহিনী ফুটে উঠেছে। প্রতিমাগুলো রং-তুলির আঁচরে হয়ে উঠেছে জীবন্ত।

পদ্মাসেতু মঞ্চটিকেও রং করে আকর্ষণীয় করে তোলার কাজ চলছে। এ মন্দিরের প্রধান আকর্ষণ দুর্গাদেবীর প্রতিমা। সেখানে দুর্গা, অসুর, কার্তিক, গণেশ, লক্ষ্মী, সরস্বতী প্রতিমার পাশাপাশি তাদের বাহন সিংহ, মহিষ, ময়ূর, ইঁদুর, পেঁচা, রাজহাঁসও স্থাপন করা হয়েছে।

ডুমুরিয়া কেন্দ্রীয় কালিবাড়ি মঠ ও মন্দির কমিটির যুগ্ম আহবায়ক তুষার কান্তি দত্ত জানান, কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এবার পদ্মাসেতুর আদলে মঞ্চ তৈরি করা হয়। সেই মঞ্চের উপর তারা প্রতিমা স্থাপন করেছেন।

ডুমুরিয়ার এই মন্দিরের প্রতিমা তৈরির কারিগর সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার অনীল কুমার ভাস্কর। তিনি ৫জন সহকারী নিয়ে দিনরাত কাজ করেছেন।

আয়োজক কমিটির সদস্য পরিতোষ কুমার বৈরাগী জানান, ছেলে-মেয়েরা এখন আর ধর্মীয় কাহিনী শুনতেও চায় না, পড়তেও চায় না। তাই পৌরাণিক দেব-দেবীকে তাদের সামনে পরিচিত করিয়ে দিতেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এবার খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় চার হাজার নয়শ ৭০টি মণ্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে খুলনা জেলায় সর্বাধিক নয়শ ৯৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া যশোরে ছয়শ ৭৮টি, মাগুরায় ছয়শ ৫৩টি বাগেরহাটে ছয়শ ৪১টি এবং নড়াইলে পাঁচশত ৮২টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। সাতক্ষীরায় পাঁচশ ৭৮টি, ঝিনাইদহে চারশত ৩৫টি, কুষ্টিয়ায় দুইশ ৪৬টি, চুয়াডাঙ্গায় একশ ১৭টি এবং মেহেরপুরে ৪২টি মণ্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।

গত বছর খুলনা বিভাগে চার হাজার আটশ ৪১টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। অর্থাৎ এবার ১২৯টি বেশি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/অ-ভি

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত