Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৫ আশ্বিন ১৪২৬
  • ||

এমপির সামনে উপজেলা ও ইউপি চেয়ারম্যানের হাতাহাতি 

প্রকাশ:  ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৫৯
রাজশাহী প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

রাজশাহীর পবা উপজেলা পরিষদে স্থানীয় এমপির সামনে উপজেলা ও ইউপি চেয়ারম্যানের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে।

এ সময় জুতা-স্যান্ডেল নিক্ষেপের ঘটনাও ঘটে।

বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে পবা উপজেলা পরিষদের দ্বিতীয় তলায় ভাইস-চেয়ারম্যানদের কক্ষে এ ঘটনা ঘটেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রত্যক্ষদর্শী এক ইউপি চেয়ারম্যান জানান, পবা উপজেলার পারিলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল বারী ভুলু স্থানীয় এমপি আয়েন উদ্দিনকে বিভিন্নভাবে গালাগালি করে এমন অভিযোগ নিয়ে দু’জনের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এর এক পর্যায়ে ভুলু ওই রুম থেকে বের হতে গেলে উপজেলা চেয়ামর‌্যান মনসুর রহমান পিছন থেকে তাকে ধরে কিল-ঘুষি মারে। এ সময় ভুলুও ঘুরে উঠে মনসুরকেও কিল-ঘুষি মারে। তাদের মধ্যে এই হাতাহাতির এক পর্যায়ে ওই কক্ষে উপস্থিত অন্যরা তাদের ধরে ফেলে। পরে ভুলু সেখান থেকে বের হয়ে চলে যায়।

পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাইফুল বারী ভুলু গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ার এমপির সঙ্গে তার দূরত্ব সৃষ্টি হয়।

জানতে চাইলে পারিলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল বারী ভুলু বলেন, আমি পাশের রুমে বসে অন্য চেয়ারম্যানদের সঙ্গে গল্প করছিলাম। এ সময় এমপি ডাকছে বলে একজন পিয়ন আমাকে ডেকে নিয়ে যায়। রুমে ঢুকার পর এমপি আয়েন উদ্দিন (রাজশাহী-৩ পবা-মোহনপুর আসন) তাকে গালাগালি করি বলে আমাকে ধমকায়। আমি বিষয়টি অস্বীকার করে রুম থেকে বের হওয়ার সময় উপজেলা চেয়ারম্যান মনসুর পিছন থেকে আমার উপর হামলা ও মারধর শুরু করে। সে আমাকে ৩/৪ ঘুষি মারে আমিও তাকে দুই ঘুষি মেরে দিয়েছি। এমপি ডেকে নিয়ে গিয়ে তাকে মারপিট করিয়েছে বলে দাবি করেন এই জনপ্রতিনিধি।

হাতাহাতির বিষয়টি অস্বীকার করে উপজেলা চেয়ারম্যান মনসুর বলেন, গালাগালি করা নিয়ে এমপি আয়েন উদ্দিন ও ইউপি চেয়ারম্যার সাইফুল বারী ভুলুর মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এ নিয়ে সেখানে উত্তেজনা সৃষ্ট হয়। এর বেশি কিছু ঘটেনি।

জানতে চাইলে সাংসদ আয়েন উদ্দিন বলেন, ইউপি চেয়ারম্যার ভুলুকে আমি ডেকে নিয়ে জিজ্ঞেস করি; আপনার বয়স হয়েছে; আপনি আমাকে কেন গালাগালি করেন। তবে তিনি আমাকে গালাগালি করার কথা অস্বীকার করেন। এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান বলেন, আমাকেও গালাগালি করে ভুলু। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও উভয়ের মধ্যে উত্তেজনা হয়। তবে হাতাহাতির মত কোন ঘটনা সেখানে ঘটেনি বলে দাবি করেন এই সাংসদ।

জানা গেছে, বুধবার দুপুরে পবা উপজেলা আইনশৃংখলা বিষয়ক সভায় ছিল। আইনশৃংখলা বিষয়ক সভার কারণে স্থানীয় এমপি আয়েন উদ্দিনসহ সকাল চেয়ারম্যান উপজেলা পরিষদের উপস্থিত ছিলেন। এ সভা শেষে খাবারের আগে এমপির সামনে দুই চেয়ারম্যানের এই হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/আরএইচ

রাজশাহী
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত