Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬
  • ||

নির্দেশ না মানায় কলেজ অধ্যক্ষকে ছাত্রলীগ সভাপতির মারধর, অফিস ভাঙচুর, মামলা

প্রকাশ:  ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৫:১৬ | আপডেট : ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৭:৫৬
সাতক্ষীরা প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon
সাতক্ষীরা আশাশুনি সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুজ্জামান

সাতক্ষীরা আশাশুনি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষকে হুমকি দিয়ে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুজ্জামান তাজসহ তার কয়েকজন সহযোগী বলছেন, ‘চাকরি করতে চাইলে আমাদের কথা শুনতে হবে’।

এ সময় তারা তিন দফা হামলা চালিয়ে অধ্যক্ষের অফিস ভাঙচুর করেছে। এ ঘটনায় অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান আশাশুনি থানায় একটি মামলা করেন। পরে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুজ্জামান তাজসহ দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আশাশুনি থানার ওসি আবদুস সালাম জানান, এ ঘটনায় আশরাফুজ্জামান তাজ ও তার সহযোগী ছাত্রলীগ নেতা আল মামুনকে সোমবার রাতে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান জানান, গত শনিবার সন্ধ্যায় কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুজ্জামান তাজসহ তার কয়েকজন সহযোগী সালাম দিয়ে আমার রুমে ঢুকে বাইরে আসতে বলে। বাইরে আসার পরপরই একটি ছেলেকে তারা বেদম মারধর করতে থাকে।

কী হয়েছে তা জানতে চাইলে তারা জানায়- সাতক্ষীরা থেকে একটি মেয়েকে এনে কলেজ ক্যাম্পাসের মধ্যে ঢুকে সে অনৈতিক আচরণ করেছে। অধ্যক্ষ ছেলেটিকে মারধর না করে তার কাছে দিতে বলেন। পরে অধ্যক্ষ ওই ছেলের অভিভাবকদের ফোন করে ডেকে আনেন। একই সময়ে সেখানে পুলিশও পৌঁছায়। পরে পুলিশ থানায় এনে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয় অজ্ঞাত পরিচয় ছেলেটিকে।

অধ্যক্ষ জানান, পরে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুজ্জামান তাজ ও তার সহযোগী শাওন, আল মামুন ও সাইফুল্লাহসহ ৭/৮ জন ছাত্রলীগ ক্যাডাররা আমার কাছে জানতে চায় আমি কেনো তাদের হাতে ছেলেটিকে দেয়নি। এ কথা বলে তার আমার ওপর হামলা চালায়। ভাঙচুর করে অফিস কক্ষ, জানালার গ্লাস, চেয়ার টেবিল। ইটপাটকেল ছুড়ে তাণ্ডব চালায় তারা। এভাবে পরপর তিনবার হামলার শিকার হন অধ্যক্ষ। তাকে চড় কিল ঘুষি মেরে ফেলে দেয়া হয়।

তিনি জানান, বিষয়টি তিনি স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছেন। একই সঙ্গে তাদের নাম উল্লেখ করে আশাশুনি থানায় তিনি একটি মামলা দেন।

এ বিষয়ে ওসি আবদুস সালাম জানান, আমরা কলেজে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। মামলার পর সোমবার রাতেই আশরাফুজ্জামান তাজ ও আল মামুনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

জানতে চাইলে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমান বলেন, তাজ ও অন্যদের বিরদ্ধে অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত হলেই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/পিএস

সাতক্ষীরা,ছাত্রলীগ

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত