• শনিবার, ০৪ এপ্রিল ২০২০, ২১ চৈত্র ১৪২৬
  • ||

ক্রেতা জোটেনি পালসার বাবুর, হতাশ মালিক

প্রকাশ:  ২৯ আগস্ট ২০১৯, ১৬:২০
মণিরামপুর প্রতিনিধি

যশোরের মণিরামপুরের ইত্যা গ্রামের আলোচিত সেই বড় গরু ‘পালসার বাবু’কে বিক্রি করতে পারেননি মালিক। কাঙ্ক্ষিত ক্রেতার অভাবে গত দুই ঈদুল আজহায় গরুটি অবিক্রিত রয়ে গেছে। পছন্দের দামে গরু বিক্রি করতে না পেরে হতাশ দরিদ্র ইয়াহিয়া মোল্যা। আবার একবছর পালন করে আগামী ঈদে তিনি গরুটি বিক্রি করতে পারবেন কিনা তা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

ইত্যা গ্রামের ইয়াহিয়ার বাড়িতে একটি বড় গরু রয়েছে এমন খবরে গত দুই মাস আগে থেকে সাধারণ দর্শনার্থীরা সেই বাড়িতে ভিড় জমাতে থাকে। এরপর বিভিন্ন গণমাধ্যমে পালসার বাবুকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ায় দূরদুরন্তের দর্শনার্থীর ভিড় বাড়তে থাকে। দিনে কয়েকহাজার দর্শনার্থী ভিড় জমাতো পালসার বাবুকে দেখতে।

দর্শনার্থীদের চাহিদা মেটাতে অস্থায়ী কয়েকটি খাবারের দোকানও বসেছিল সেই বাড়িতে। পালসার বাবু বিক্রি না হলেও দর্শনাথীর ভিড় কিন্তু কমেনি। এখনও নিয়মিত শতশত দর্শনার্থীর দেখা মেলে সেই বাড়িতে।

তিন বছর আগে ৪৫ হাজার টাকায় শংকর জাতের একটি ষাঁড় কেনেন ইয়াহিয়া। ষাড়টির দুরন্তপনা দেখে শখ করে তার নাম দেন পালসার বাবু। ২০১৮ সালে ঈদুল আজহায় পাঁচ লাখ টাকা দাম হলেও গরুটি বিক্রি করেননি তিনি। রেখে দিয়েছিলেন অধিক লাভের আশায়। এবারের ঈদে ১২ লাখ টাকায় পালসার বাবুকে বিক্রি করতে চেয়েছিলেন তিনি। সাথে ক্রেতাকে দিতে চেয়েছেন একটি পালসার বাইক। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত দামে ক্রেতার অভাবে তার ষাঁড়টি অবিক্রিত রয়ে গেছে। পালসার বাবুর ওজন এখন প্রায় ২১ মণ। উচ্চতা সাড়ে ৬ ফুট ও দৈর্ঘ্য ১২ ফুট।

ইয়াহিয়া বলেন, যশোরের চাঁচড়ার আনোয়ার হোসেন নামে এক মৎস্য ব্যবসায়ী পালসার বাইক বাদেই কোরবানির জন্য সাত লাখ টাকায় গরুটি কিনতে চুক্তিবদ্ধ হন। চুক্তি অনুযায়ী তিনি দুই লাখ টাকা বায়না দিতে চেয়েছিলেন। পরে যশোরের বাড়িতে টাকা আনতে যান তিনি। কিছুক্ষণ পর মোবাইলে জানান তিনি গরু কিনবেন না। ঢাকার এক বড় ব্যবসায়ী অনলাইনে পালসার বাবুকে দেখে পছন্দ করেছিলেন। ঈদের ৫-৭ দিন আগে আট লাখ টাকায় গরু কিনবেন বলে হেলিকাপ্টারে চড়ে তিনি আমার বাড়িতে আসতে চেয়েছিলেন। কিন্তু পরে আর যোগাযোগ করেননি।

ইয়াহিয়ার স্ত্রী মনোয়ারা বেগম বলেন, এলাকার লোকজন আমাদের ক্ষতি করেছে। কোন ক্রেতা এসে আমাদের বাড়ির পথ জানতে চাইলে গরু বিক্রি হয়ে গেছে এই বলে রাস্তা থেকে তারা লোকজন ফিরিয়ে দিয়েছে।

হতাশা প্রকাশ করে ইয়াহিয়া বলেন, গরু বিক্রি করতে পারিনি। আগামী ঈদে বিক্রির নতুন আশায় ওরে পালন করছি। এরমধ্যে উপযুক্ত দামে ক্রেতা পেলে পালসার বাবুকে ছেড়ে দেব।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এস.খান

গরু
  • আরও পড়তে ক্লিক করুন:
  • গরু
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close