Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬
  • ||

অনলাইনের ডাকাতের চেয়ে ‘ব্লাকার ভালো’!

প্রকাশ:  ৩০ মে ২০১৯, ১৬:৩১
মৌলভীবাজার প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় থেকে আশপাশের চারটি উপজেলার মানুষ যাত্রা করেন ট্রেনে। এখানে থেকে দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে ঈদ যাত্রার টিকিট নিয়ে চলছে হাহাকার। যাত্রীরা কাউন্টারে ভীড় না করে অনলাইনে দ্বারস্থ হন। কিন্তু সেখানে চলছে গলাকাটা ব্যবসা। ভুক্তভোগি যাত্রীরা বলছেন- অনলাইনের ডাকাতের চেয়ে ব্লাকার ভালো।

কুলাউড়া রেলওয়ে স্টেশন থেকে ঢাকা, চট্রগ্রামসহ দেশে বিভিন্ন গন্তব্যের পৌঁছাতে টিকি প্রতিদিন স্টেশন গিয়ে লাইনে দাড়িয়ে টিকেট না পেয়ে মানুষ হতাশা নিয়ে ফিরছেন। বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে মানুষ অনলাইনে টিকিট ক্রয়ের চেষ্টা করছেন। কিন্তু সেখানেও মানুষ প্রতারিত হচ্ছে।

কুলাউড়া শহরের মিলি প্লাজায় কম্পিউটার সলিউন নামে একটি প্রতিষ্ঠান টিকিট বিক্রি করে থাকে।

বড়লেখা থেকে টিকেট কিনতে আসা রফিক উদ্দিন জানান, ছেলে মধ্যপ্রাচ্যের সৌদি আরবে যাবে। ঢাকায় বিমানবন্দর থেকে তাকে বিদায় দিতে ১ জুন পারাবত এক্সপ্রেস ট্রেনে ঢাকা যাবেন। আবার ফিরবেন ২ জুন কালনী এক্সপ্রেস ট্রেনে। ঈদের মৌসুমে টিকিটের সঙ্কট জেনে তিনি ২০ মে কম্পিউটার সলিউশনের দোকানি শাকের আহমদের দ্বারস্থ হন। যাতায়াতের ৫টি টিকেটের মুল্য ১৪শ’ টাকা হলেও তার কাছ থেকে ২ হাজার টাকা নেন দোকানি। নির্দিস্ট গন্তব্যের টিকিট একটি কাগজে প্রিন্ট করে দেন। তাতে মুল্য লেখা হয় ২ হাজার টাকা।

সেই কপি নিয়ে টিকিট কাউন্টার থেকে টিকিট মুল কপি প্রিন্ট নিলে সেখানে মুল্য লেখা ১৪শ’ টাকা। ভুক্তভোগী কুলাউড়া একে এনায়েত জিল্লুল কবির জানান, একটি ঢাকার প্রথম শ্রেণির টিকিটে তার কাছ থেকে ৪শ’ টাকা বেশি রেখেছে ওই দোকানি।

এত টাকা বেশি কেন রাখা হয়? এ প্রশ্নের জবাবে কম্পিউটার সলিউশনের মালিক শাকের আহমদ কোনও সুদোত্তর দিতে পারেননি। শুধু বলেন, তাদের অনেক খরচ। এখানে সরকারি কোনও নিয়ম নেই। অনলাইনে অনেক ঝামেলা। তাই টাকা বেশি রাখেন।

কুলাউড়া রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার আফতার উদ্দিন জানান, অনলাইনে টিকিটের কত মূল্য রাখবে।

অধিক মূল্য রাখলে তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়া যাবে কি-না? এ ব্যাপারে তাদের কাছে কোনও সুস্পষ্ট তথ্য নেই। ফলে মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হলে আপাতত তাদের কোনও করণীয় নেই। স্টেশন থেকে টিকিট ক্রয়ে কেউ বেশি অর্থ নিলে ব্যবস্থা নেয়ার বিধান আছে।

অনলাইনের চার্জ হিসেবে যদি টিকেট প্রতি ২০ টাকা বেশি নেয়া হয়, সেটাই বেশি। ১শ’ থেকে ৪শ’ টাকা বেশি নেয়া অমানবিক। তারচেয়ে কাউন্টারে দাঁড়িয়ে কষ্ট করে টিকিট কেনাই ভালো।

পিপিবিডি/অ-ভি

apps

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত