Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬
  • ||

সুনামগঞ্জে সাড়ে ৩লাখ কৃষকের দাবি চালের বদলে ধান কেনার

প্রকাশ:  ২৮ মে ২০১৯, ১৫:০৩
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

কৃষকদের দাবি চালের বদলে ধান। কিন্তু সরকার চাল কেনার এই সিদ্ধান্ত বদল না করলে এটি হবে কৃষকঘাতী সিদ্ধান্ত বলে দাবি সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলের ১১টি উপজেলার সাড়ে ৩লাখ কৃষকের।

ধান না কিনলে কৃষক সর্বশান্ত হয়ে যাবে। কৃষক না বাচঁলে কৃষি বাচঁবে কি প্রশ্ন কৃষকের। তাদের দাবির সাথে একাত্মতা পোষণ করে জনপ্রতিনিধি, কৃষক নেতাসহ সর্বস্থরের জনসাধারণ চালের বদলে ধান কেনার দাবি করেন।

জানা যায়, জেলায় এবার দুই লাখ ২৪হাজার ৪০হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে। উৎপাদন হয়েছে ১৩লাখ ১২হাজার ৫০০ মেঃ টন ধান। সরকার এই জেলার কৃষকদের কাছ থেকে ৬৫০৮ মেঃ টন ধান কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অথচ চাল কিনবে আতব ১৭হাজার ৭৯৮মেঃ টন এবং সিদ্ধ ১৪হাজার ১৭৮মেঃ টন। এই চাল কেনা হবে জেলার ৩০০মিলারের কাছ থেকে। সরকার সাড়ে ৩লাখ কৃষকের কাছ থেকে ধান কিনলে প্রতি কৃষকের কাছ থেকে ১৮.৫৯ কেজি ধান কেনা যেত। সরকারি ব্যবস্থায় জেলা ধান ক্রয় কমিটি কেবল জেলায় ১২হাজার প্রান্তিক কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনবেন। ধান বিক্রির বাইরে থাকা তিন লাখ ৩৮হাজার কৃষকই এখন চিন্তিত।

সরকারিভাবে ধান কেনার বরাদ্দ বাড়ানোর দাবি করে সুনামগঞ্জের মিল মালিক সমিতির নেতারা বলেন, আমরা ধান কেনায় ধানের দাম বাজার বেড়েছে। এখন সরকার কেনা শুরু করায় ধানের দাম আরও বাড়বে। জেলার ৩০০মিলের মধ্যে ১০-১৫টি মিল ছাড়া সকলেই এলাকার কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনে তা ভাঙিয়ে বরাদ্দের চাল গুদামে দেবে বলে দাবি করেন। তারাও চালের বদলে ধান কেনার পক্ষে রয়েছেন।

চালের বদলে ধান কেনার বরাদ্দ বাড়াতে উচিত বলে মনে করেন তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল। তিনি বলেন, চাল কেনার ক্ষেত্রেও নীতিমালা যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে। সুনামগঞ্জ থেকে সরকার ৩২হাজার মেঃ টন চাল মিল মালিকদের কাছ থেকে না কিনে কৃষকদের কাছ থেকে এই পরিমাণ ধান কিনলে কৃষকরা লাভবান হত।

আমরা সরকারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করি। যে মিলের বিরোদ্ধে অনিয়মের খবর পাওয়া গেলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জাকারিয়া মোস্তফা। তিনি বলেন, ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা বাড়ানো হলে আমিও খুশি হবো। কোন মিল বরাদ্দকৃত চাল ধান কিনে নীতিমালা মোতাবেক ভাঙিয়ে সরবরাহ না করলে সেই মিল কালো তালিকাভুক্ত হবে।

পিপিবিডি/আরএইচ

সুনামগঞ্জ
apps

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত