Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬
  • ||

সমর্থকদের ভালোবাসায় সিক্ত বিজয়ী পাপন

প্রকাশ:  ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২১:৪৫
ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

তৃতীয়বারের মত সংসদ সদস্য বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়ে জনতার ভালোবাসায় সিক্ত হলেন বিসিবি সভাপতি ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো.জিল্লুর রহমানের পুত্র নাজমুল হাসান পাপন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-৬ (ভৈরব-কুলিয়ারচর) আসনে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন তিনি।

তৃতীয়বারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে সোমবার তার ভৈরবস্থ নিজ বাসভবন অাইভি ভবনে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন উপস্থিত সাংবাদিকদেরকে বলেন, এবারের নির্বাচনে অামি যে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছি তা অামার ধারণার বাইরে ছিল। ভৈরব-কুলিয়ারচরবাসী সবসময় অামার বাবাকেও বিপুল ভোটে জয়ী করেছিলেন। অামি অামার এলাকার সার্বিক উন্নয়নে সর্বাত্মক কাজ করেছি, ভবিষ্যতেও করবো।

এ সময় উপস্থিত নেতাকর্মীরা তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

পাপন বলেন, বিগত সময়ে বিএনপি সরকারের আমলে ২০০৪ সালে গ্রেনেড হামলা মামলায় জঙ্গীরা আমার মা এদেশের সংগ্রামী নেত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন। এদিন আ’লীগের ৫০০ নেতাকর্মী আহত হয়ে আজও পঙ্গুত্ববরণ করছে। সেদিন আমার মাকে হাসপাতালে গিয়ে দেখলাম দুটি পা শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এদিন ডাক্তাররা ভয়ে আমার মায়ের চিকিৎসা পর্যন্ত করতে চায়নি। তারপর ২৪ আগস্ট আমার মা মারা যান। এই ব্যথা বেদনা নিয়ে আমার বাবা জিল্লুর রহমান ৯ বছর বেঁচে ছিলেন। তিনি এদেশের রাষ্ট্রপতি হলেও যতদিন বেঁচে ছিলেন ততদিন বঙ্গভবনে একাকি জীবন কাটিয়েছেন। তখন আমরা তার পাশে থাকলেও আমার মায়ের অভাবের কথা প্রতিদিন বলে তিনি কাঁদতেন। বিএনপি খুনীর দল। তাই এবারের নির্বাচনে বিএনপি পরাজিত হওয়ায় আমি খুশি।

তিনি বলেন, আমার বাবা স্বাধীনতার পর এই আসন থেকে ৬ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি ছিলেন এলাকার অভিভাবক। আপনাদের দুঃখ সুখ ও এলাকার উন্নয়ন নিয়ে আমার বাবা সময় ভাবতেন। বাবার মৃত্যুর পর এলাকাবাসী ভালবেসে তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত করেছে বলে তিনি জানান।

বিসিবি সভাপতি বলেন, এতদিন আমি ব্যবসা বাণিজ্যে ও বিসিবি নিয়ে ব্যস্ত থাকায় এলাকাবাসীকে তেমন একটা সময় দিতে পারেনি। এবার নির্বাচনে এলাকার প্রতিটি স্হানে আমি ঘুরেছি। মানুষ আমাকে পেয়ে অনেক খুশি হয়েছে, দোয়া করেছে এবং আমার বাবার কথা বলেছে। আমার ভুল ভেঙেছে। এখন থেকে সবসময় আমি এলাকায় আসব।

তিনি বলেন, আজকের এ বিজয় আমার নয়, এ বিজয় হয়েছে এলাকাবাসীর। এই এলাকাবাসীর জন্য আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে উঁচু করে কথা বলতে পারব। আপনারা সকলেই আমার জন্য দোয়া করবেন।

/পিবিডি/আরাফাত

apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত