• রোববার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
  • ||

কে এই তৃতীয় নারী, যার জন্য হৃদয় ভাঙল সানিয়ার!

প্রকাশ:  ১২ নভেম্বর ২০২২, ১৪:৪৮
নিজস্ব প্রতিবেদক

কানাঘুষা চলছিল অনেক দিন ধরেই। শেষ পর্যন্ত সিলমোহর পড়ল তাতেই। ফাটল ধরেছে ক্রীড়া দম্পতি সানিয়া মির্জা আর শোয়েব মালিকের দাম্পত্যে। শোনা যাচ্ছে, তারা নাকি আর এক সঙ্গে থাকতে চান না!

কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের দাবি, ইতোমধ্যে নাকি বিচ্ছেদের মামলাও দায়ের করেছেন দম্পতি। যদিও এই সব জল্পনা অস্বীকার করেছেন সানিয়ার বাবা। তবে ভারত ও পাকিস্তানের একাধিক সংবাদমাধ্যমের দাবি, সানিয়া-শোয়েবের বিয়ে ভাঙছে।

সম্পর্কিত খবর

    তার মাঝেই প্রশ্ন উঠেছে- বিচ্ছেদের কারণ কী? আর এটা নিয়েও রয়েছে হাজারো জল্পনা। যদিও এ ক্ষেত্রে অভিযোগের পাল্লাটা নাকি ভারী শোয়েবেরই। শোনা যাচ্ছে, পাকিস্তানি ক্রিকেটারের বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কের কারণেই নাকি সম্পর্ক ভাঙছেন সানিয়া।

    কে সেই তৃতীয় নারী, যার জন্য ঘর ভাঙছে শোয়েব আর সানিয়ার? সংবাদমাধ্যমের দাবি, পাকিস্তানি নায়িকা আয়েশা ওমরের প্রেমে পড়েছেন শোয়েব। বিষয়টি মানতে পারেননি ভারতীয় টেনিস কন্যা।

    আয়েশার সঙ্গে কীভাবে পরিচয় হয়েছিল শোয়েবের? জানা গেছে, পাকিস্তানের ‘ওকে’ পত্রিকার এক ফটোশুটে গিয়েই আলাপ হয়েছিল দু’জনের। পাকিস্তানের এই পত্রিকায় মূলত তারকাদের ফ্যাশন, জীবনযাপন নিয়ে আলোকপাত করা হয়। পত্রিকাটির গত বছরের সেপ্টেম্বর সংখ্যাতেই প্রচ্ছদ ছিলেন শোয়েব আর আয়েশা।

    আর ওই ফটোশুটের কারণেই নাকি পুরো একটা দিন একসঙ্গে কাটিয়েছিলেন শোয়েব আর আয়েশা। দিনভর ফিটনেস, ক্রিকেট, সিনেমা- এসব নিয়েই নাকি চলেছিল আলোচনা। আর সেই আড্ডার ফাঁকেই চলেছিল ফটোশুট। প্রতিটি ছবিতেই ঘনিষ্ঠভাবে ধরা দিয়েছিলেন শোয়েব ও আয়েশা। সে সব ছবিতেই নাকি স্পষ্ট হয়ে উঠছিল নতুন ‘সম্পর্কের রসায়ন’।

    শোয়েব আর আয়েশার সুইমিং পুলের একটি ছবি ভাইরাল হয়। সেখানে পাউডার নীল রঙের স্বচ্ছ শার্ট পরা শোয়েবকে জড়িয়ে রয়েছেন কমলা পোশাকের আয়েশা।

    অপর একটা ছবিতে পুলের পানিতে দাঁড়িয়ে শোয়েব। হাত ধরে পুলের পাশে আয়েশা। ভেজা চুলের লাস্যময়ী তাকিয়ে আছেন শোয়েবের দিকে। নিন্দুকেরা বলছেন, প্রেম না থাকলে নাকি এভাবে তাকানো যায় না!

    এছাড়া নাইটড্রেস পরেও ফটোশুট করেন আয়েশা ও শোয়েব। নায়িকার হাতে চায়ের কাপ। আর ঘনিষ্ঠ হয়ে তার চুল ঠিক করে দিচ্ছেন শোয়েব। পিছনে অতল সমুদ্র।

    বেডরুমেও ফটোশুট করেন শোয়েব-আয়েশা। আর সেই চিত্র দেখেই ভুরু কুঁচকে ওঠে অনেকেরই। ওই ফটোশুট নিয়ে শোয়েব পরে বলেছিলেন, ‘অনেক মজার ফটোশুট ছিল। চিত্র ধারণের সময়গুলোতে আয়েশা আমাকে সহজ করে দিয়েছিলেন। তিনি আমার শিক্ষক!’

    মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
    • সর্বশেষ
    • সর্বাধিক পঠিত
    close