• শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
  • ||

আমিরাতকে হারাতে ঘাম ছুটলো বাংলাদেশের

প্রকাশ:  ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:৫৩ | আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:৫৩
স্পোর্টস ডেস্ক

দুবাইয়ে দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে বাংলাদেশকে ভালোভাবেই চেপে ধরেছিলো সংযুক্ত আরব আমিরাত। শেষ পর্যন্ত তারা পেরে উঠলো না অল্পের জন্য। ৭ রানের জয়ে সিরিজে এগিয়ে গেলো বাংলাদেশ।

রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুবাইয়ের স্পোর্টস সিটি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে আমিরাত বোলারদের তাওপের মুখে পড়ে বাংলাদেশ। ৭৭ রানেই ৫ উইকেট হারানোর পর আফিফ হোসেনের ক্যারিয়ার সেরা ৭৭ রান ও অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহানের ৩৫ রানের ইনিংসে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৫৮ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

১৫৯ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে জয়ের সম্ভাবনা জাগিয়েও বাংলাদেশকে হারাতে ব্যর্থ স্বাগতিকরা। জয় থেকে ৮ রান দূরে থাকতেই ইনিংসের শেষ ওভারে এসে আমিরাত অলআউট হয় ১৫১ রানে।

প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়েরর মুখে পড়ে বাংলাদেশ। ওপেনিংইয়ে নেমে আবারো ব্যর্থ সাব্বির রহমান। দুই নাম্বারে নামা লিটন দাসও এদিন ফিরে যান মাত্র ১৩ রানেই। ইঞ্জুরি থেকে ফিরে ইয়াসির রাব্বি আর সাইফুদ্দিন করতে পারেননি তেমন কিছুই।

৭৭ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলা বাংলাদেশের ইনিসগসের হাল ধরেন আফিফ হোসেন আর অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান। উইকেটের চারপাশে দুর্দান্ত সব শটে ৫৫ বলে ৭ চার ও ৩ ছয়ে শেষ পর্যন্ত ৭৭ রানে অপরাজিত থেকে দলকে বড় সংগ্রহ এনে দিয়েই মাঠ ছাড়েন আফিফ। অধিনায়ক সোহান অপরাজিত থাকেন ২৫ বলে ৩৫ রান করে।

১৫৯ রানের টার্গেটে ব্যাটিংইয়ে নেমে শুরুটা বেস ভালো করে আমিরাত। ওপেনিং জুটিতেই ২৭ রানে তুলে বিদায় নেন মোহাম্মদ অয়াসিম। এরপর আরেক ওপেনার চিরাগ সুরি ও আরিয়ান লাকরার ব্যাট বেশ ভালোভাবে জবাব দিচ্ছিলো টাইগার বোলারদের।

এক পর্যায়ে এই দুই ব্যাটার যখন বাংলাদেশের হাত থেকে ম্যাচ বের করে নিয়ে যাচ্ছিলো বলা যায়, তখন অষ্টম ওভারে এসে চিরাগ সুরিকে আউট করে টাইগারদের ম্যাচে ফেরান মেহেদি হাসান মিরাজ। ২৪ বলে ৩৯ রান করে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন এই ব্যাটার। জুটির আরেক ব্যাটার লাকরাকেও ফেরান মিরাজ। ১৫ বলে ১৯ রান করে শরিফুলের হাতে ক্যাচ দেন লাকরা।

দুই ব্যাটারকে একসঙ্গে হারিয়ে খেই হারায় আমিরাত। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকা আমিরাতের ১২৪ রানেই চলে যায় ৮ উইকেট। তবে সেখান থেকে নবম উইকেট জুটিতে স্বাগতিকদের জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছিলো আফজাল খান ও জুনাইদ সিদ্দিকি। শেষ ওভারে এসে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ১১ রানের।

শরিফুল ইসলামের করা শেষ ওভারের প্রথম দুই বল থেকে ৩ রান তুলে নেয় আমিরাত। তবে তৃতীয় আর চতুর্থ বলে বিপদজনক হয়ে ওঠা আফজাল আর জুনায়েদ দুজনকেই ফিরিয়ে আমিরাতকে ১৫১ রানে অলআউট করেন শরিফুল। ১৭ বলে ২৫ রান করে ফেরেন আফজাল আর জুনায়েদ করেন ৯ বলে ১১ রান।

বাংলাদেশের হয়ে ৩ ওভারে ১৭ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন মিরাজ। ৩.৪ ওভারে ২১ রান দিয়ে ৩ উইকেট তুলে নেন শরিফুলও। এছাড়া মুস্তাফিজ নেন ২টি উইকেট।

দলকে জেতানো এবং ক্যারিয়ার সেরা অপরাজিত ৭৭ রানের ইনিসের সুবাদে ম্যাচসেরার পুরস্কার পান আফিফ হোসেন।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

আরব আমিরাত,বাংলাদেশ,ঘাম,টি-টোয়েন্টি,সিরিজ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close