• রোববার, ০৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮
  • ||

মুস্তাফিজের চমকে রাজস্থানের জয়

প্রকাশ:  ০২ মে ২০২১, ২০:২০
স্পোর্টস ডেস্ক

ডেভিড ওয়ার্নার আর তার সমর্থকদের অবাক করে দিয়ে কঠোর সিদ্ধান্ত, কাঁধ বদলে অধিনায়কত্বের দায়িত্বে কেন উইলিয়ামসন। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনার নেই সেরা একাদশেও। তবুও ভাগ্যের বদল ঘটলো না সানরাইজার্স হায়দরাবাদের। রাজস্থানের বিপক্ষে তাদের হার ৫৫ রানে। এবারের টুর্নামেন্টে যা দলটির ৬ষ্ঠ পরাজয়। অবস্থান যথারীতি টেবিলের তলানিতে। ২২১ রানের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে রাজস্থানের এটা তৃতীয় জয়। বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে উইলিয়ামসনের দল থেমেছে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৬৫ রানে। এ ম্যাচে দারুণ বল করেছেন বাংলাদেশের মুস্তাফিজুর রহমান। ৪ ওভারে ২০ রান দিয়ে পেয়েছেন ৩ উইকেট। যা এবারের আসরে এখন পর্যন্ত ফিজের সেরা বোলিং ফিগার।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই বোলিংয়ে আসেন ফিজ। ৪ মেরে তাকে স্বাগত জানান বেয়ারস্টো। পরের দুই বলে নিতে পারেননি কোন রান। শেষ তিন বলে দুই রান নিলে প্রথম ওভারে ফিজ দেন ৬ রান। নিজের দ্বিতীয় ওভারে অসাধারণ বল করেন ফিজ। ৪ রান দিয়ে নিয়েছেন ১ উইকেট। প্রথম বলেই ফুল লেন্থের কাটারে মনিষ পান্ডের স্ট্যাম্প উপড়ে ফেলেন। বাকি ৫ বলেও বোলিং ভ্যারিয়শনে বেশ ভুগিয়েছেন উইলিয়ামসন এবং বেয়ারস্টোকে। তিন নম্বর বলে ছিল উইলিয়ামসনকে শূন্য রানে ফেরানোর সুযোগ। ফিজের কাটার তার ব্যাটের কানায় লেগে উইকেট কিপারের হাতে যাবার আগে যদি মাটিতে না পড়তো।

তৃতীয় ওভারে ফিজ ছিলেন আরও ভয়ঙ্কর। ৩ রান দিয়ে নিয়েছেন ৫ বলে ১৭ রান করা নবীর উইকেট। এই ওভারের প্রতিটি ধারালো কাটারে পরাস্ত হয়েছেন হায়দরাবাদের ব্যাটসম্যানরা। চতুর্থ ওভারেও ফিজ পেয়েছেন উইকেটের দেখা। তার করা স্লোয়ারে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেছেন রশিদ খানকে। যদিও শেষ বলে ৪ দিয়ে এই ওভারে ফিজ দিয়েছেন ৭ রান।

২২১ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালোই করেছিল হায়দরাবাদ। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে তারা তুলেছিল ৫৭ রান। ৭ম ওভারের প্রথম বলে ৩১ রান করা পান্ডেকে বোল্ড করলে ফিজ, ভেঙ্গে পড়তে থাকে হায়দরাবাদের ব্যাটিং অর্ডার। ৩০ রানের বেশি করতে পারেনি বেয়ারস্টোও। তার উইকেটটি রাহুল তেওয়াতিয়ার। ৮ রান করে আউট হয়েছেন বিজয় শঙ্করও।

অধিনায়ক উইলিয়ামসনের ব্যাট থেকে আসে ২০ বলে ২১ রান। আর বিদ্ধংসী রূপ ধারণ করার আগেই নবীকে ফিরিয়েছেন ফিজ। আউট হবার আগে করেন ৫ বলে ১৭ রান। রশিদ ব্যাট করতে এসে ফিজের বলে আউট হয়েছেন ০ রানে। শেষ দিকে আর তেমন কেউই রান করতে না পারলে লক্ষ্য হতে ৫৫ রান দূরে থেকে শেষ হয় হায়দরাবাদের ইনিংস। রাজস্থানের হয়ে পিজের পাশাপাশি ৩ উইকেট নিয়েছেন মরিসও।

আগে ব্যাট করে জস বাটলারের ব্যাটিং তাণ্ডবে ২২০ রানের পাহাড়সম পুজি রাজস্থানের। হায়দরাবাদের বোলারদের তুলোধুনা করে এই ইংলিশ ব্যাটসম্যান পেয়েছেন নিজের প্রথম আইপিএল সেঞ্চুরির দেখা। ৬৪ বলে ১২৪ রানের ঝকঝকে এক ইনিংস খেলে আউট হয়েছেন সন্দীপ শর্মার বলে। বাটলারকে দারুণ সঙ্গ দিয়েছেন সাঞ্জু স্যামসন।

অধিনায়কের ব্যাট থেকে আসে ৩৩ বলে ৪৮ রান। দুজনে মিলে গড়েছেন দেড়শ রানের জুটি। দলীয় ১৭ রানের সময় ১২ রান করে আউট হয়েছিলেন জয়সওয়াল। তার উইকেটটি রশিদ খানের। স্যামসন আউট হয়েছেন বিজয় শঙ্করের বলে আব্দুস সামাদকে ক্যাচ দিয়ে। ১৯তম ওভারের শেষ বলে ২০৯ রান করে বাটলার আউট হলে বাকি ১১ রান আসে মিলার আর পরাগের ব্যাট থেকে। শেষ পর্যন্ত পরাগ ৮ বলে ১৫ এবং মিলার ৩ বলে ৭ রানে অপরাজিত ছিলেন। ব্যর্থতার দিনে ১টি করে উইকেট সঙ্গি রশিদ, শঙ্কার আর শর্মার।

পূর্বপশ্চিমবিডি/আর

মুস্তাফিজ,রাজস্থান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close