• বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৬
  • ||

জয়ের পথে টাইগাররা

প্রকাশ:  ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:৩৩ | আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:৫৩
স্পোর্টস ডেস্ক

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজের একমাত্র টেস্টে পুরোপুরি কোণঠাসা জিম্বাবুয়ে। লাঞ্চ বিরতির পর দলীয় স্কোরের সাথে আরও ৬৭ রান যোগ করতেই হারিয়েছে আরও ৪ উইকেট। তাতেই এই টেস্টে জয়ের পথে টাইগাররা।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৯ উইকেটে ১৮১ রান। বাংলাদেশের জয়ের জন্য প্রয়োজন আর মাত্র ১টি উইকেট। অন্যদিকে ইনিংস পরাজয় এড়াতে এখনও ১১৪ রান দরকার জিম্বাবুয়ের।

এর আগে সোমবার তৃতীয় দিনের তৃতীয় সেশনে মাত্র ৫ ওভারের জন্য জিম্বাবুয়েকে ব্যাটিংয়ে নামিয়ে দুই উইকেট তুলে নেয় বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের দুটি উইকেটই নিয়েছেন নাইম হাসান। তাও ইনিংসের প্রথম ওভারেই।

আজ দিনের শুরুতে, প্রথম দিনের মতোই টানা ৪ ওভার মেইডেন করেন আবু জায়েদ রাহী ও তাইজুল ইসলাম। দিনের পঞ্চম ওভারে কভার ড্রাইভে চার মেরে প্রথম রান নেন ব্রেন্ডন টেলর। তাইজুলের করা পরের ওভারে অন সাইডে ঠেলে দুই রান নেন ওপেনার কেভিন কাসুজা।

সে ওভারেই অবশ্য বিদায়ঘণ্টা বেজে যায় কাসুজার। ওভারের চতুর্থ বলটিতে খানিক বাড়তি ফ্লাইট দেন তাইজুল। যাতে বিভ্রান্ত হয়ে ফরোয়ার্ড ডিফেন্স খেলার চেষ্টা করেন কাসুজা। কিন্তু বল লাগে তার ব্যাটের বাইরের কানায়। প্রথম স্লিপে দাঁড়িয়ে সহজেই সেটি লুফে নেন মোহাম্মদ মিঠুন। ফলে ৩৪ বলে ১০ রান নিয়ে সাজঘরে ফেরেন কাসুজা।

নিজের ইনিংসের শুরু থেকেই ধৈর্য নিয়ে ব্যাট করছিলেন জিম্বাবুয়ের অভিজ্ঞতম ব্যাটসম্যান ব্রেন্ডন টেলর। কোনোরকমের ভুল শট না খেলে, একটু একটু করে এগিয়ে নিচ্ছিলেন নিজের ইনিংস। কিন্তু নাঈম হাসান আক্রমণে আসতেই যেন কী হয়ে গেল তার, হারিয়ে বসলেন নিজের উইকেট।

দিনের ১১ ওভার যাওয়ার পর প্রথমবারের মতো আক্রমণে আনা হয় ম্যাচের সফলতম বোলার নাঈম হাসানকে। কোনও ভুল করেননি নাঈম। নিজের প্রথম ওভারেই তুলে নিয়েছেন টেলরের উইকেট। জিম্বাবুয়ের দ্বিতীয় ইনিংসের প্রথম ওভারেই জোড়া উইকেট নিয়ে প্রথম ধাক্কা দিয়েছিলেন নাঈমই।

তাই হয়তো আজ নাঈম আক্রমণে আসতেই প্রতিশোধ নেয়ার ভূত চাপে টেলরের মাথায়। প্রথমে খেলার চেষ্টা করেন রিভার্স সুইপ। যা তার ব্যাট, উইকেট এবং উইকেটের পেছনে দাঁড়ানো লিটন দাসকে ফাঁকি দিয়ে বাই হিসেবে চলে যায় বাউন্ডারিতে।

সেই রিভার্স সুইপ মিস করেও যেনো শান্তি হয়নি টেলরের। তাই দুই বল পরেই উদ্ভ্রান্তের মতো ছক্কা হাঁকানোর আশায় স্লগ সুইপ করেন তিনি। যা ব্যাটের ওপরের কানায় লেগে উঠে যায় আকাশে। শর্ট স্কয়ার লেগ থেকে সহজেই ক্যাচ লুফে নেন তাইজুল ইসলাম। সাজঘরের পথ ধরেন ৪৭ বলে ১৭ রান করা টেলরে।

মাত্র ৪৪ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলায় প্রতি আক্রমণের পরিকল্পনা সাজিয়েছিলেন জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন। ম্যাচে বাংলাদেশের সফল বোলার নাঈম হাসান থেকে শুরু করে বাকি সব বোলারকেই একের পর এক পাঠাতে থাকেন সীমানা দড়ির ওপারে। যা দ্রুত রান এনে দিচ্ছিল জিম্বাবুয়েকে।

সিকান্দার রাজার সঙ্গে পঞ্চম উইকেট জুটিটাও হয়ে গিয়েছিল ৬০ রানের, তাও মাত্র ১৩ ওভারে। কিন্তু একটু বেশিই তাড়াহুড়ো দেখা গেল আরভিনের ব্যাটিংয়ের। ইনিংসের ৩০তম ওভারের শেষ বলে শর্ট পয়েন্ট অঞ্চল থেকে দ্রুত রান নেয়ার চেষ্টা করেন তিনি।

কিন্তু ক্ষিপ্রতার সঙ্গে ফিল্ডিং করে বাঁহাতের সরাসরি থ্রোতে ব্যাটিং প্রান্তের স্টাম্প ভেঙে দেন টাইগার অধিনায়ক মুমিনুল। ফলে বিদায়ঘণ্টা বেজে যায় জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক আরভিনের। এ ইনিংসে ৬ চার ও ১ ছয়ের মারে ৪৯ বলে ৪৩ রান করেছেন তিনি।

লাঞ্চ বিরতির পর ইনিংসের ৩৬তম ওভারে তাইজুল ইসলামের করা শর্ট লেন্থের ডেলিভারিটি সজোরে পুল করেছিলেন রাজা। বলে চলে যাচ্ছিল শর্ট মিড উইকেট দিয়ে। সেখানে দাঁড়ানো মুশফিক পুরো শরীর হাওয়ায় ভাসিয়ে দুই হাতে ক্যাচ ধরে ফেলেন। শরীরের ভারসাম্য হারিয়ে নিজে পড়ে গেলেও, বল হাত থেকে ছাড়েননি মুশফিক। শুধুমাত্র ফিল্ডার হিসেবে খেলতে নেমে মুশফিকের ষষ্ঠ ক্যাচ এটি। আউট হওয়ার আগে ৩৭ রান করেন রাজা।

রাজার বিদায়ের পর রেজিস উইকেটে চাকাভা আর টিমিসেন মারুমা বেশ সেট হয়ে গিয়েছিলেন। তাইজুলের টসড আপ বলটা মিড অনের ওপর দিয়ে খেলতে গিয়েছিলেন চাকাভা, তামিম ছিলেন সেখানে। একদম টাইমিং করে দেওয়া লাফে বলটা চলে এলো হাতের মুঠোয়।

একদম ঈগলের মতো ক্যাচটা নিলেন তামিম; ১৮ রানে ফিরলেন চাকাভা, ১৬৫ রানে জিম্বাবুয়ে হারায় সপ্তম উইকেট। এরপর মাঠে নামা এন্ডিলভু চার দিয়ে শুরু করেন নাঈম হানাসের বলে কিন্তু পরের বলেই আটকে গেলেন ক্রিজে। ব্যাকফুটে খেলতে গিয়ে লাইন মিস করলেন, নাঈম আবেদন করার সময়েই জানতেন কাজ হয়ে গেছে। আম্পায়ার আঙুল ওঠাতে দেরি করলেন না, এন্ডিলভুও আর রিভিউ নিলেন না। তাতেই ১৭০ রানে ৮ম উইকেট হারায় সফরকারীরা।

দলীয় ১৮১ রানের মাথায় ৯ম উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। ব্যক্তিগত ৪১ রানে নাঈম হানাসের বলে তামিমের হাতে ধরা পড়েন তিনি। ফলে বাংলাদেশের ইনিংস জয় এখন সময়ের ব্যাপার।

জিম্বাবুয়ে এর আগে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৬৫ রানে অলআউট হয়। তবে বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে মুশফিকুর রহিমের ডাবল সেঞ্চুরি ও মুমিনুল হকের সেঞ্চুরিতে ভর করে রান পাহাড় গড়ে। ৬ উইকেট হারিয়ে ৫৬০ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/অ-ভি

বাংলাদেশ,ক্রিকেট,টেস্ট,সিরিজ,জিম্বাবুয়ে
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close