• রোববার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

প্রত্যাবর্তনটা রাঙাতে পারলেন না তামিম

প্রকাশ:  ১০ অক্টোবর ২০১৯, ১৬:১০
স্পোর্টস ডেস্ক

দেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের মূল আসর জাতীয় লিগের প্রথম রাউন্ড বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) থেকে মাঠে গড়ালো। জাতীয় লিগের এটা ২১ নম্বর আসর।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় স্তরের খেলায় ম্যাচে মাঠে নেমেছে মুমিনুল হকের চট্টগ্রাম বিভাগ ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ঢাকা মেট্রো। আগে ব্যাটিং করতে নেমে তামিম ইকবালের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে দারুণ শুরু করে চট্টগ্রাম।

টসে জিতে ব্যাটিং করতে নেমে চট্টগ্রামের দুই ওপেনার দুর্দান্ত সূচনা এনে দেন। ৫১ রানে মাহমুদউল্লাহর বলে সাদিকুর ফিরে গেলে ভাঙে তামিম-সাদিকুরের ৮০ রানের জুটি। ৬৯ বলে ৫ চার ১ ছক্কায় ৫১ রান করে ফিরেন সাদিকুর। চট্টগ্রাম নিজেদের প্রথম সেশন শেষ করে ১ উইকেটে ৮৮ রানে।

প্রায় তিন বছর পর জাতীয় ক্রিকেট লিগে (এনসিএল) ফিরলেও, প্রত্যাবর্তনটা রাঙাতে পারলেন না তামিম ইকবাল। প্রথম রাউন্ডের ম্যাচে ৩০ রান করে আউট হয়েছেন তিনি। নিজের বলে নিজেই ক্যাচ নিয়ে তাকে সাজঘরে ফিরিয়েছেন ঢাকা মেট্রোর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

নিজের আউটে হতাশ তামিম দাঁড়িয়ে রইলেন ২২ গজে। সেখান থেকে সাজঘরের ফেরার পথটা তার জন্য যেন শেষই হতে চাচ্ছিল না। ১৩২ মিনিট ক্রিজে থেকে ইনিংসটি সাজিয়েছিলেন। বল খেলেছিলেন ১০৫টি। কিন্তু ইনিংসের শুরু থেকেই অতি সাবধানী দেশসেরা ওপেনার।

শহীদুলের বলে দারুণ ফ্লিকে চার মেরে রানের খাতা খুলেছিলেন। মনে হচ্ছিল সেই পুরোনো তামিম ফিরেছেন ব্যাটিংয়ে। কিন্তু ওই শটের পর শুরু হয় তার সতর্ক ব্যাটিং। ব্যাটে বলে টাইমিং হলেও রান তুলতে পারছিলেন না। ড্রাইভ, কভার ড্রাইভগুলো সবগুলো যাচ্ছিল ফিল্ডারদের হাতে। আবার অফষ্ট্যাম্পের বাইরের বলগুলো চার্জও করছিলেন। অতি সাবধানী ব্যাটিং যাকে বলে।

প্রথম বাউন্ডারি থেকে দ্বিতীয় বাউন্ডারি পেতে অপেক্ষা করতে হয় ৪০ বল। পেসার মেহরাব হোসেন জসির পায়ের ওপরের বল লাইনে চালিয়ে লং অন দিয়ে বাউন্ডারিতে পাঠান। ১৬তম ওভারে স্পিন আক্রমণ পান তামিম। মাহমুদউল্লাহ বোলিংয়ে আসলেও সুবিধা করতে পারেননি। তবে আরেক প্রান্তে আরাফাত সানী তাকে ভুগিয়েছেন।

লেগ স্লিপ ও শর্ট লেগে ফিল্ডার রেখে মিডল ও লেগ স্ট্যাম্পে টানা বল করে গেছেন সানী। তামিম বেশিরভাগ বলই লিভ করেছেন। মাঝে একবার স্লগ সুইপে ডিপ মিড উইকেট দিয়ে পাঠান বাউন্ডারিতে। মধ্যাহ্ন বিরতির আগে ২৬ রানে অপরাজিত ছিলেন তামিম।

বিরতির পর মনোযোগ ধরে রাখতে পারেননি। ধৈর্য্য পরীক্ষা দেওয়া তামিম ‘অস্থির’ শটে উইকেট উপহার দেন জাতীয় দলের সতীর্থকে। তাতে নিজের ফেরার ইনিংসটি রাঙাতে ব্যর্থ হন। ২০১৫ সালের পর তামিম ফিরলেন ওয়ালটন জাতীয় ক্রিকেট লিগে। ফিরলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও। মিরপুরে ৩ উইকেট নিয়ে মাহমুদউল্লাহ এগিয়ে রেখেছেন ঢাকা মেট্রোকে। তামিম দীর্ঘ সময় ক্রিজে থেকেও বড় ইনিংস খেলতে ব্যর্থ।

বৃষ্টির বাগড়ায় ম্যাচ আপাতত বন্ধ। এর আগে টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে চট্টগ্রাম বিভাগ ৩ উইকেট হারিয়ে তুলেছে ১১৪ রান। তামিমের সঙ্গে সাদিকুর ৫১ ও মুমিনুল ১১ রানে সাজঘরে ফিরেছেন। পিনাক ১৪ ও তাসামুল ১ রানে অপরাজিত আছেন।

এক নজরে দুই দলের একাদশ

চট্টগ্রাম বিভাগ

তামিম ইকবাল, সাদিকুর রহমান, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), পিনাক ঘোষ, তাসামুল হক, মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন, মাসুম খান, মেহেদী হাসান, নোমান চৌধুরী, মিনহাজুল আবেদীন ও রনি চৌধুরী।

ঢাকা মেট্রো

সাদমান ইসলাম, রাকিন আহমেদ, শামসুর রহমান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মার্শাল আইয়ুব (অধিনায়ক), আল-আমিন, জাবিদ হোসেন, সৈকত আলি, আরাফাত সানি, শহিদুল ইসলাম ও মেহরাব হোসেন।

পূর্বপশ্চিমবিডি/অ-ভি

তামিম ইকবাল,জাতীয় লিগ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত