Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬
  • ||

কথা দিয়ে নেইমারের মন জয় করার চেষ্টায় রামোস

প্রকাশ:  ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১৮:৩৮
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট icon

ইউরোপীয় ক্লাব ফুটবলে দলবদল চলবে আর নেইমারকে নিয়ে নাটক হবে না তা যেনো অসম্ভব ব্যাপার। সেই সান্তোস হয়ে বার্সেলোনা আসা থেকে শুরু! তারপর এই নাটক প্রতিবছর চলছেই। নেইমারকে পেতে চায় না এমন কোনো ক্লাব আছে? নেইমারের প্রতিভা কী কিংবা তার করার ক্ষমতা কতটুকু তা জেনেই পিএসজি ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরো দিয়ে দলবদলের আকাশচুম্বী রেকর্ড গড়ে বার্সা থেকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় প্যারিসে।

প্যারিসে যাওয়ার পরে ভালো নেই নেইমার। একেরপর এক বিতর্কের জেরে নাস্তানাবুদ হয়েছেন ব্রাজিলিয়ান এই ফরোয়ার্ড। চোট থেকেও মুক্তি পাননি। সব কিছু মিলিয়ে প্যারিস ছাড়তে চাচ্ছেন নেইমার। ফিরতে চাচ্ছেন আবার বার্সেলোনায়। নেইমারকে পিএসজি থেকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা গত দুই মাস ধরে চালিয়ে যাচ্ছে বার্সেলোনাও। সম্প্রতি রিয়াল মাদ্রিদও নেইমারকে দলে টানার লড়াইয়ে যোগ দিয়েছে।

২০১৯-২০ মৌসুমের দলবদলের সময় বাকি আর সপ্তাহখানেক। আগস্ট মাসের শেষদিনের মধ্যেই নিজেদের দল গুছিয়ে নিতে হবে সবাইকে। আর সে লক্ষ্যেই পিএসজির ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমারকে দলে চায় স্পেনের দুই ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনা। কিন্তু কিছুতেই বনিবনা হচ্ছে না পিএসজির সঙ্গে।

কথা দিয়ে মন গলানোর চেষ্টায় নেইমারকে জয় করার লড়াইয়ে নেমেছেন দুই দলের খেলোয়াড়রা। আগেই বার্সেলোনায় খেলায়, ক্লাবটির শীর্ষ খেলোয়াড় লিওনেল মেসি, লুইস সুয়ারেজদের সঙ্গে সখ্যতা রয়েছে নেইমারের। তারা প্রায়ই নানান উৎসাহব্যঞ্জক মন্তব্য করে নেইমারের মন গলানোর চেষ্টা করছেন।

মেসি, সুয়ারেজ, পিকের পরে এতে যোগ দিয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের অধিনায়ক সার্জিও রামোসও। নেইমারের জন্য এরই মধ্যে বড় অঙ্কের প্রস্তাব দিয়েছে রিয়াল। এছাড়া দুই ক্লাবের মধ্যে কথাবার্তাও এগুচ্ছে ইতিবাচকভাবেই। এরই মধ্যে রামোসের প্রশংসাবাক্য কাজ করতে পারে প্রভাবক হিসেবে।

লা লিগায় শনিবার রাতে রিয়াল ভায়াদোয়িদের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করার পর সংবাদ মাধ্যমে কথা বলতে আসেন রামোস। রীতিমতো প্রশ্ন শুনতে হয় নেইমারের ব্যাপারেও। ব্রাজিলিয়ান এ তারকা সম্পর্কে রিয়াল অধিনায়কের মূল্যায়ন হলো, ‘নেইমার উঁচুমানের খেলোয়াড়। বর্তমান বিশ্বের সেরা তিনজন খেলোয়াড়ের একজন হলেন তিনি।’

অবশ্য ফিফার দ্য বেস্ট পুরষ্কার রামোসের পক্ষে সাক্ষী দিচ্ছে না। কারণ বর্ষসেরা খেলোয়াড় হিসেবে ফিফার দ্য বেস্টের সংক্ষিপ্ত তালিকার সেরা দশেও ছিলেন না নেইমার। বার্সেলোনায় থাকাকালীন একবার লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর সঙ্গে জায়গা পেয়েছিলেন সেরা তিনে। এরপর পিএসজিতে নাম লিখিয়ে ইনজুরি আর অনিয়মে বারবার পিছিয়েছেন এ ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার।

একদিকে নেইমারের প্রশংসা করলেও, খেলার মধ্যে দলবদলের বিষয়ে কথা বলতে আগ্রহবোধ করেন না বলেই জানান রামোস। তার ভাষ্যে, ‘কাকে দলে নেয়া হলো বা কাকে ছাড়া হলো এসব বিষয়ে আলোচনা করাটা আসলে রিয়াল মাদ্রিদের জন্যই অপমানজনক। এসব কথা প্রতি মৌসুমেই হয়ে থাকে, বিশেষ করে দলবদলের মৌসুমে বেড়ে যায় অনেক। আমাদের খেলোয়াড়দের এসময় নিজেরদের ঠান্ডা রাখতে হবে।’

শুধু খেলোয়াড়দের পরামর্শ দিয়েই থামেননি রিয়াল অধিনায়ক। শেষপর্যন্ত নেইমারকে দলে না পেলে পরিকল্পনা কী হবে তাও ভেবে রেখেছেন রামোস। তিনি বলেন, ‘আমাদের দলে যারা আছে তাদের নিয়েই এগুতে হবে। দলের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। গ্যারেথ বেল, হামেস রদ্রিগেজের মতো খেলোয়াড়দের পুনরায় সেরা ছন্দে আনতে হবে।’

পূর্বপশ্চিমবিডি/ এসএ

নেইমার,রামোস,রিয়াল মাদ্রিদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত