Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৫ আশ্বিন ১৪২৬
  • ||
শিরোনাম

বাংলাদেশকে নিয়ে আশা-আকাঙ্ক্ষার কথা শোনালেন দুই কোচ

প্রকাশ:  ২১ আগস্ট ২০১৯, ১৩:৫১
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট icon

বিশ্বকাপের পর থেকেই বাংলাদেশের প্রধান কোচের পদটি শূন্য ছিল। আগামী দুই বছরের জন্য রাসেল ডমিঙ্গোকে জাতীয় দলের প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।টাইগারদের প্রধান কোচের দায়িত্ব গ্রহণ করতে মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) বিকেলে ঢাকায় এসে পৌঁছেছেন তিনি। পেস বোলিং কোচ শার্ল ল্যাঙ্গেভেল্ট অবশ্য ওইদিন সকালেই পা রেখেছেন।

সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে পরিচয় করে দিতে বুধবার (২১ আগস্ট) সকালে শের ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের সম্মেলন কক্ষে বিসিবি সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করে। ক্রিকেটারদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক ভাবে পরিচয় পর্বটা তাই সেরে নিতে হলো এখানেই। তার হাত ধরেই বাংলাদেশের ক্রিকেট সামনের দিকে এগিয়ে যাবে আগামী দুই বছর।

নিঃসন্দেহে অনেকটা চ্যালেঞ্জ নিতে হবে এই প্রোটিয়া কোচকে। অন্যদিকে দলের সাথে যুক্ত হয়েছেন নবনিযুক্ত পেস বোলিং কোচ আরেক প্রোটিয়া চার্ল ল্যাঙ্গাভেল্টও। বাংলাদেশের পেস আক্রমণ তার মাধ্যমেই পরিচালিত হবে নতুন করে।

বুধবার মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে বাংলাদেশের কন্ডিশনিং ক্যাম্প শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন প্রধান কোচ ও পেস বোলিং কোচ। সেখানে বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ে নিজের পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন নতুন দুই কোচ।

প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো বলেন, বাংলাদেশে কাজ করাটা বেশ চ্যালেঞ্জিং। কোচ হিসেবে যদি আপনি যদি জানেন আপনার দায়িত্ব কি তবে কাজটা অনেক সহজ হয়ে যায়। আমিও এটা উপভোগ করি। এদেশের ক্রিকেট নিয়ে সমর্থকদের প্রত্যাশা বেশি। আমার প্রধান কাজ এখন ক্রিকেটারদের সাথে ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলা। বাংলাদেশ কিন্তু খারাপ দল না। বিশ্বকাপে ভালো করেছে। ফলাফল যাই হোক না কেন বাংলাদেশ কিন্তু ইতিবাচক ক্রিকেট খেলেছে। সবসময় ফলাফল দিয়ে সবকিছু বিচার করা যায় না।

অন্যদিকে পেস বোলিং কোচ চার্ল ল্যাঙ্গাভেল্টও শুনিয়েছেন আশার কথা। এই উপমহাদেশে উইকেটগুলো স্পিন সহায়ক হয়ে থাকে। সেই দিক দিয়ে এখানে কাজ করাটা বেশ চ্যালেঞ্জিং। নতুন বলে বল করাটাও কঠিন। বোলিংয়ের টেকনিক্যাল দিকগুলো জানতে হয়। ৫০ ওভারের ক্রিকেট বলুন আর টেস্ট ক্রিকেট বলুন নতুন বলে বল করাটা গুরুত্বপূ। পেস বোলিংয়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো লাইন-লেন্থ ঠিক রেখে বল করা। এগুলো নিয়েই আগে কাজ করবো।

জনাকীর্ণ সম্মেলনের শুরুতেই নিজের প্রাথমিক লক্ষ্যের কথা জানিয়ে দেন হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো। মূলত খেলোয়াড়দের সম্পর্কে ভালো ধারণা নেয়া এবং তাদের আস্থা অর্জনের দিকেই বেশি মনোযোগী তিনি।

ডোমিঙ্গো বলেন, আমার প্রাথমিক লক্ষ্য হলো প্রথমত, খেলোয়াড়দের ভালোভাবে দেখা, তাদের সম্পর্কে ধারণা নেয়া, সবার সঙ্গে ভালো সম্পর্ক তৈরি এবং খেলোয়াড়দের আস্থা অর্জন করা।

তিনি যে এ প্রাথমিক লক্ষ্যপূরণে বিশেষ মনোযোগী তা বোঝা গেছে দলের সঙ্গে তার ক্যাম্পের প্রথম দিনেই। কেননা সকাল ৯টায় ক্যাম্পে এসে সংবাদ সম্মেলন শুরুর আগপর্যন্ত খেলোয়াড়দের সঙ্গে কথা বলে তাদের সম্পর্কে ধারণা নেয়ার ও বোঝার চেষ্টা করতে দেখা গিয়েছে ডোমিঙ্গোকে। যা আশা জাগাচ্ছে দেশের ক্রিকেট অনুরাগীদের।

ডোমিঙ্গো নিজেও অভিভূত বাংলাদেশে ক্রিকেটের আবেদন ও জনপ্রিয়তা দেখে। প্রায় ১৫ বছর আগে দক্ষিণ আফ্রিকা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে এসেছিলেন ডোমিঙ্গো। তখন থেকে এ দেশের ক্রিকেট ক্রেজ সম্পর্কে অবহিত রয়েছেন এ প্রোটিয়া কোচ।

তিনি বলেন, আমি ২০০৪ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার কোচ হয়ে এসেছিলাম। তখনই ধারণা পেয়েছিলাম এ দেশে ক্রিকেটের কদর কত বেশি। এছাড়া গতকালও বিমানবন্দরে নেমে এত এত ক্যামেরার ফ্ল্যাশ, আজ সম্মেলনে প্রায় শতাধিক সাংবাদিক দেখেই বোঝা যায় এখানে ক্রিকেটের আবেদন অনেক বেশি।

এসময় বাংলাদেশের বিশ্বকাপ পারফরম্যান্স পর্যালোচনা করতে বলা হলে ডোমিঙ্গো বলেন, আমি তো ভেবেছিলাম বাংলাদেশ সপ্তম হয়েছে। তবে সাত বা আটের মধ্যে তেমন ফারাক নেই। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ অনেক ভালো ক্রিকেট খেলেছে। অন্তত সাত বা আটে থাকার চেয়ে অনেক ভালো খেলেছে তারা। বিশ্বকাপে ওদের অনেক ইতিবাচক বিষয় আমি খেয়াল করেছি। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয়টা পেলেই অবস্থান আরও ভালো হতো।

আগামী ৫-৯ সেপ্টেম্বর আফগানিস্তানের বিপক্ষে হবে একমাত্র টেস্ট। আর জিম্বাবুয়েকে সঙ্গে নিয়ে ১৩-২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হবে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজ। আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ও ত্রিদেশীয় সিরিজ দিয়ে শুরু হবে নতুন দুই কোচের বাংলাদেশ যাত্রা।

পূর্বপশ্চিমবিডি/জিএম

বাংলাদেশের প্রধান কোচ,রাসেল ডমিঙ্গো,বিসিবি,মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়াম
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত