Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • রোববার, ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬
  • ||

সৌরভ-রাইটের জন্যে কার্ডিফে ফিরল নস্টালজিয়া

প্রকাশ:  ২৯ মে ২০১৯, ০৯:২১
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট icon

জন রাইট-সৌরভ গাঙ্গুলি সম্পর্ক অনেকটা প্রিয় গুরু এবং তার বিশ্বস্ত শিষ্যের মত। এই দুই বর্ণময় চরিত্রের হাত ধরে ২০০০-২০০৫, ভারতীয় ক্রিকেট সাক্ষী থেকেছে একাধিক বর্ণময় অধ্যায়ের। তা সে ২০০২ নাসের হুসেনের ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ভারতের ন্যাটওয়েস্ট ট্রফি জয়ই হোক কিংবা ২০০৩ দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে সৌরভের টিম ইন্ডিয়ার ফাইনালে পৌঁছনো। অন্ধকার থেকে ভারতীয় ক্রিকেটকে ফের পাদপ্রদীপের আলোয় নিয়ে আসার পিছনে এই দুই চরিত্রকে দেশের ক্রিকেট অনুরাগীরা মনে রাখবেন বহুকাল।

স্বভাবতই রাইট-সৌরভ মুখোমুখি হওয়া মানেই নস্টালজিয়া। ক্রিকেট বিশ্বকাপের হাত ধরে ক্রিকেট মাঠে ফিরল সেই নস্টালজিয়া। মঙ্গলবার কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে অন্য ভূমিকায় মুখোমুখি সৌরভ এবং জন রাইট। ভারত-বাংলাদেশ প্রস্তুতি ম্যাচে কমেন্ট্রি বক্সে নস্টালজিক হয়ে পড়লেন দু’জনেই। দুর্দান্ত এক মুহূর্তের সাক্ষী হয়ে রইলেন দেশের ক্রিকেট অনুরাগীরা।

গুরু রাইটের সামনে তার একসময়ের প্রিয় ছাত্র। আলোচনায় পুরনোদিনের কথা ফিরবে না, তা আবার হয় নাকি। কমেন্ট্রি বক্সে ইন-চার্জের দায়িত্বে কে, তুমি না আমি? স্বকীয় ঢঙে রাইট প্রথম প্রশ্নটা ছুঁড়ে দিলেন সৌরভের উদ্দেশ্যে। দেশের প্রথম বিদেশি কোচকে তার যোগ্য সম্মান ফিরিয়ে দিয়ে প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক জানালেন, নিশ্চয় আপনি। আমি যখন অধিনায়ক ছিলাম জন রাইট সমস্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতেন আর আমি বাধ্য ছাত্রের মত তা পালন করতাম। কিন্তু সৌরভের উত্তরে নারাজ রাইট তাঁকে শুধরে দিয়ে বলেন, ইন-চার্জ তুমিই ছিলে। আমি কেবল এদিক-ওদিক ঘোরাঘুরি করতাম।

এরপর রাইট-সৌরভ মত্ত হয়ে যান তাদের সময়ে ভারতীয় দলের কম্বিনেশন এবং সেই সংক্রান্ত আলোচনা নিয়ে। কিউয়ি জন রাইট ছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের অষ্টম এবং প্রথম বিদেশি কোচ। তাঁর প্রশিক্ষণে ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক সিরিজ জয়, ২০০২ ন্যাটওয়েস্ট ট্রফি জয় তো ছিলোই। এরপর ২০০৩ দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে রাইটের প্রশিক্ষণে ও সৌরভের অধিনায়কত্বে রানার্স হয় ভারতীয় দল। ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারতে হত তাদের।

/এস কে

apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত