• রোববার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০ ফাল্গুন ১৪২৬
  • ||

কোচ টিটে ও বদলে যাওয়া ব্রাজিলের গল্প

প্রকাশ:  ১৫ মে ২০১৯, ২০:২১ | আপডেট : ১৫ মে ২০১৯, ২০:২৬
তূর্য হাসান
কোচ টিটে ও নেইমার। ছবি: সংগৃহীত

অধিপত্তের তরী ডুবিয়ে ব্রাজিল ফুটবল টিম যখন মধ্য সাগরে ভাসমান অবস্থায় ঠিক তখন ২০১৬ সালের জুনে স্কলারি ও দুঙ্গায় বিধ্বস্ত ব্রাজিলকে তীরে তোলার দায়িত্ব নেন কোচ টিটে।

স্কলারি ২০০২ বিশ্বকাপ জয় করার পর পরবর্তী মেয়াদকালে ২০১৩ সালে কনফেডারেশন কাপ জয় করে বিশ্বমঞ্চে জানান দেন তার অধীনে ২০১৪ বিশ্বকাপের শিরোপার দাবিদার ব্রাজিল। কিন্তু হঠাৎ করেই ছন্দ পতন হয় ব্রাজিলের, সেমি ফাইনালে জার্মানির কাছে ৭-১ ও তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে নেদারল্যান্ডের কাছে ৩-০ তে হারার পর ফলাফলস্বরূপ বরখাস্ত হন ২০০২ বিশ্বকাপ জয়ী কোচ স্কলারি।

২০০৬-২০১০ সালের পর দ্বিতীয় মেয়াদে নাবিক বিহীন ব্রাজিলের দায়িত্ব নেন বিশ্বকাপজয়ী ক্যাপ্টেন দুঙ্গা। নাবিক বিহীন ব্রাজিলের জাহাজের দায়িত্ব নেয়ার পর পুনরায় ২০১৫ সালের কোপা আমেরিকা ও ২০১৬ সালের শতবর্ষী কোপা আমেরিকা কাপে ব্যর্থ হয়ে যখন ব্রাজিল ফুটবল টীম মধ্য সাগরে ভাসতে শুরু করে ঠিক তখন ভাসমান ব্রাজিল দলকে পারে তুলে আনার দায়িত্ব নেন বর্তমান কোচ টিটে।

টিটে বিশ্বসেরা কোচ দের মাঝে অন্যতম হয়তো তিনি পেপ গার্দিওয়ালা কিংবা মরিনহোর মত পাবলিসিটি পাননি, তার কারন হতে পারে তিনি ইউরোপে ছিলেন না। কিন্ত তাতে কি আসে-যায়, "ঢেকি যে স্বর্গে গেলেও ধান ভাংতে পারে" কথাটার যথাযথ প্রমান দেন তলানিতে থাকা ব্রাজিল ফুটবল দলকে টেনে তুলে দক্ষিণ আমেরিকার প্রথম দল হিসেবে ১৮ বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করার মাধ্যমে। ব্রাজিল দলকে শক্তিশালী করতে পরিবর্তন করেন পূর্বের সব ট্যাক্টিস_

নির্ভরশীল দল গঠনঃ

২০১৪ বিশ্বকাপে কলম্বিয়ার বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে চোট পাওয়ার কারণে ব্রাজিলিয়ান নেইমার পরবর্তী ম্যাচ থেকে ছিটকে যায়। দলের ক্যাপ্টেন এবং সেরা খেলোয়াড় কে ছাড়াই জার্মানির বিপক্ষে ম্যাচ শুরু করে সেলেসাওরা। ডুবতে থাকা ব্রাজিল তখন বুঝতে পারে এক নেইমার এর উপর ভরসা করার কারণেই ম্যাচের এই করুন ফলাফল। পরবর্তী সময়ে কোচ টিটে একক নির্ভর ব্রাজিলকে দলগত শক্তিতে পরিনত করার উদ্দেশ্যে ডগলাস কস্তা এবং ফিলিপে কোটিনহোর মতো তরুণ খেলোয়াড়দের দলে নিয়ে নির্ভরযোগ্য একটি দল তৈরি করেন।

শক্তিশালী ডিফেন্স তৈরিঃ

থিয়াগো সিলভা বিগত পাঁচ বছরের মধ্যে ব্রাজিলের সেরা ডিফেন্ডার হিসেবে খেলে আসছেন 2014 বিশ্বকাপে জার্মানি ম্যাচের পূর্বে হলুদ কার্ডের কারণে ব্রাজিল বনাম জার্মানি ম্যাচ মিস করেন। দান্তে তার পরবর্তীতে মাঠে নামলেও সিলভার অপূর্ণতাকে পূর্ণতা প্রদানে সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ হন। কোচ টিটে ব্রাজিলের দায়িত্ব নেয়ার পর ডিফেন্সের জোরদার করে এবং দ্রুততার সাথে ফলাফল পেতে থাকেন। টিটে দায়িত্ব নেয়ার পর 18 ম্যাচে প্রতিপক্ষ ব্রাজিলের জালে মাত্র 5 বার বল পাঠায় যা ১৪ বিশ্বকাপের পর প্রশংসা পাওয়া দাবি রাখে।

২০১৮ বিশ্বকাপ থেকে ব্রাজিল ফুটবল টীম বিদায় নেয়ার পর জোর গুঞ্জন উঠেছিলো বরখাস্ত হতে চলেছেন কোচ টিটে। সকল গুঞ্জনের অবসান ঘটিয়ে ব্রাজিল ফুটবল ফেডারেশন (সিবিএফ) কোচ টিটের প্রতি আস্থা রেখে তাকে তার দায়িত্বে বহাল রাখেন। সিবিএফ বিশ্বাস করেন কোচ টিটের হাত ধরেই ব্রাজিলের ঘরে আসবে আরো একটি বিশ্বকাপ ট্রফি। আসন্ন ২০১৯ কোপা আমেরিকা কাপেই টিটে হয়ত প্রমান করবেন কেন তাকে দায়িত্বে বহাল রেখেছিলো সিবিএফ।


পিপিবিডি/কেএম

ব্রাজিল,কোচ টিটে,নেইমার
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close