• রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
  • ||

সুনামগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রীকে কিছু প্রশ্ন?

প্রকাশ:  ১৬ নভেম্বর ২০২০, ২৩:৫১
মহি জামান

ভেবেছিলাম সুনামগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে আর কথা বলবো না। এই ইস্যুর সমাধান হয়ে গেছে কিন্তু না আবার আমাকে বলতে হচ্ছে। আজকে মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রীর সাথে জগন্নাথপুরের দলীয় নেতাকর্মীদের ভিডিও কনফারেন্সের একটি ভিডিও পেয়েছি। মন্ত্রী বলেছেন বিশ্ববিদ্যালয় এসেছে সুনামগঞ্জ জেলার জন্য। সুনামগঞ্জে জেলার ২৫ লাখ মানুষের ২০ লাখ নাকি দক্ষিণে বাস করে। এই বিবেচনায় তিনি দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলায় বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের প্রস্তাব দিয়েছেন। সেই সাথে তার যুক্তির পক্ষে সাফাই গাইলেন। তার কথায় বোঝা গেল তিনি তার অবস্থান থেকে এক চুল পরিমাণ নড়েননি।

প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রতিটি জেলা বিশ্ববিদ্যালয়। বাকী সব জেলার বিশ্ববিদ্যালয় জেলা সদরে হলেও সুনামগঞ্জ জেলায় এর ব্যতিক্রম। কেন এই বিমাতা সুলভ আচরণ? প্রস্তাবনায় জেলার নাম কেটে কেন উপ জেলার নাম বসানো হলো? কার প্রভাবে? বিশ্ববিদ্যালয় আন্দোনকে ছোট করার জন্য মন্ত্রী সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদের ওপর সকল দোষ চাপিয়ে দিচ্ছেন। সেই সাথে জেলাবাসীর সকলের ইচ্ছাটাকে ছোট করে দেখাতে চাইলেন।

মাননীয় মন্ত্রীকে বলবো মিথ্যাচারের একটা সীমা আছে। আপনার বয়স হয়েছে। দু'দিন পর চলে যাবেন। আল্লাহ বসুলকে একটু ভয় করুন। আপনি ভালোভাবে জানেন জেলা আওয়ামী লীগ আপনার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আবস্থান নিয়েছে। এই সেদিন ঢাকায় দলের নেতাকর্মীরা বসে আপনাকে তা জানিয়ে দিয়েছে। দলের সাধারণ সম্পাদক লিখিত আকারে সে সিদ্ধান্ত আপনার কাছে পৌছে দিয়েছেন। তারপরও আপনি বলছেন একজন ব্যক্তি আপনার সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করছে।

সুনামগঞ্জ জেলাবাসীর কথা চিন্তা করে সুনামগঞ্জ থেকে দূরে নয় এবং দক্ষিণ সুনামগঞ্জর কাছে সুবিধাজনক স্থানে জায়গা নির্ধারণে আওয়ামী লীগ দলীয় ভাবে প্রস্তাব করেছে। পত্রপত্রিকা থেকে আমরা তা জেনেছি। আপনি তাতে সম্মতিও দিয়েছেন। সরকার মালিকানাধীন জমি না নিয়ে আপনি কেন সরকারের টাকার শ্রাদ্ধ করতে চাচ্ছেন? কাদেরকে লাভবান করে দিতে চাচ্ছেন?

শহর থেকে ১৫/২০ কিলোমিটার দূরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হলে শহরতলীর শিক্ষার্থীরা না পারবে হোস্টেলে থাকতে না পারবে বাড়ি থেকে গিয়ে ক্লাস ধরতে। ৪/৫ কিলোমিটার মেনে নেয়া যায়। মন্ত্রী আজকে আবার তার নিজের পছন্দের জায়গায়তে হতে হবে বলছেন। কেন? কারণটা কি? এতে উনার স্বার্থটা কি?

জায়গা বাণিজ্যের যে কথা শোনা যাচ্ছে এটাইকি তা হলে সঠিক? জায়গা বাণিজ্যে আপনার ডান বামের কিছু লোকের নাকি সংশ্লিষ্টতা আছে। আমার কাছে অনেক গুলো দলিল নাম্বার এসেছে। সময়ে প্রকাশ করবো কারা এর সাথে জড়িত। তাদের সাথে আপনার কোন যোগ সুত্র থাকলে জেলাবাসীকে বলেন। টাকা পয়সার প্রয়োজন হলে বলেন, চাদা তুলে আমরা তার সমাধান করার চেষ্টা করবো।

আওয়ামী লীগের সভায় বিশ্ববিদ্যালয় ইস্যু শান্তি পূর্ণ সমাধান হয়েছে জেনে খুশি হয়েছিলাম। সাদা মনের মানুষ মনে করেছিলাম এখন দেখি সে মানুষের মনে কয়লার খনি। আমি নিজে আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সদস্য। বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে কথা বলার অধিকার আমার আছে। দলের সাধারন সম্পাদক, সভাপতির সাথে ফোনে কথা হয়েছে তারা সহ সকল এমপি এক দিকে আর আপনি এক দিকে। ক্ষমতা কি সারা জীবন থাকবে? একবার ভাবুন।

জয় বাংলা জয় বঙ্গ বন্ধু। খোদা হাফেজ।

(লেখকের ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

সুনামগঞ্জ,আওয়ামী লীগ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close