• রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
  • ||

শা‌ন্তি‌তে থাকুন রবার্ট ফিস্ক

প্রকাশ:  ০২ নভেম্বর ২০২০, ১৫:১৭
মাসুদ ক‌রিম
রবার্ট ফিস্ক

এক

মা‌র্কিন পররাষ্ট্র দফত‌রের আমন্ত্রণে আমি একবার যুক্তরাষ্ট্র সফ‌রে গি‌য়ে‌ছিলাম। পেন্টাগ‌নে আমা‌দের‌কে নি‌য়ে গি‌য়ে নাইন ইলেভে‌নে সন্ত্রাসী হামলার ক্ষ‌তিগ্রস্ত অংশ দেখা‌নো হ‌য়ে‌ছিল। ওই হামলায় নিহত‌দের তা‌লিকা ছিল। মে‌মো‌রি বু‌কে আমরা নিহত‌দের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জা‌নি‌য়ে এবং হামলাকারী‌দের নিন্দা জা‌নি‌য়ে মন্তব্য লি‌খি। ইরা‌কে যু‌দ্ধের পর আমা‌দের সফর অনু‌ষ্ঠিত হয়। আমরা বি‌ভিন্ন দে‌শের সাংবা‌দিকরা সেখা‌নে যাই। সেখা‌নে আমা‌দের জন্য ব্রি‌ফিং‌য়ের আ‌য়োজন করা হয়। আমরা নানা‌বিধ প্রশ্ন ক‌রি।

ওই সম‌য়ে একটা বিষয় নি‌য়ে খুব বিতর্ক চল‌ছিল। সেটা হ‌লো ‘এম‌বে‌ডেড জার্না‌লিজম’। ইরা‌কে যু‌দ্ধে মা‌র্কিন বা‌হিনীর স‌ঙ্গে থে‌কে তা‌দের দেয়া ব্রি‌ফিং ও ফু‌টেজ নি‌য়ে সংবাদ প‌রি‌বেশন। সকল সংবাদ ও ব্রি‌ফিং সেন্স‌রের মধ্য দি‌য়ে যেত। পেন্টাগ‌নের ব্রি‌ফিংকা‌লে আমা‌দের স‌ঙ্গের এক বি‌দেশী সাংবা‌দিক এম‌বে‌ডেড জার্না‌লিজম নি‌য়ে প্রশ্ন তো‌লেন। মা‌র্কিন কর্মকর্তারা মান‌লেন, এম‌বে‌ডেড জার্না‌লিজ‌মে এক প‌ক্ষের খবর যায়, কিন্তু তারা এও ব‌লেন যে, এম‌বে‌ডেড না হ‌লে যু‌দ্ধের এত লাইভ ফু‌টেজ, উদ্ধৃ‌তি কোথায় পে‌তেন? ওই সাংবা‌দিক পাল্টা যু‌ক্তি দেন। যু‌ক্তি ত‌র্কের এক পর্যা‌য়ে মা‌র্কিন কর্মকর্তা একটা ঘটনার কথা ব‌লেন। এর আগেও এক বি‌দেশী সাংবা‌দিক আমা‌দের ম‌তো মা‌র্কিন পররাষ্ট্র দফত‌রের ইন্টারন্যাশনাল ভি‌জিটরস প্রোগ্রা‌মে এসে এম‌বে‌ডেড জার্না‌লিজম নি‌য়ে প্রশ্ন তু‌লে‌ছেন। তারপর তা‌কে এম‌বে‌ডেড ক‌রে মা‌র্কিন বা‌হিনীর স‌ঙ্গে পাঠা‌নো হ‌লো। সেখা‌নে গি‌য়ে তি‌নি খুব খু‌শি। এমন বর্ণনা ক‌রে পেন্টাগনের অফিসার আমা‌দের স‌ঙ্গের বি‌দেশী সাংবা‌দিক‌টির স‌ঙ্গে র‌সিকতা ক‌রে ব‌লেন, ‘তু‌মিও তোমার ফোন ও ইমেইল নম্বর দি‌য়ে যাও। তোমা‌কেও পাঠাব!’

ইরাক যু‌দ্ধের সম‌য়ে বাংলা‌দে‌শের মানুষ এম‌বে‌ডেড জার্না‌লিজ‌মের মাধ্যমে পাওয়া খব‌রে খু‌শি ছি‌লেন না। তারা আরেকটু বস্তু‌নিষ্ঠ সংবাদ পে‌তে উদগ্রীব ছি‌লেন । ওই সম‌য়ে যে সাংবা‌দি‌কের সংবাদ ও ভাষ্য বাংলা‌দেশ ও বি‌শ্বে আলোড়ন তু‌লে‌ছিল, তি‌নি হ‌লেন রবার্ট ফিস্ক। তি‌নি মধ্যপ্রা‌চ্যের ব্যাপা‌রে মা‌র্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইসরা‌য়েল ও প‌শ্চিমা নী‌তির কড়া সমা‌লোচনা ক‌রে‌ছি‌লেন। এ কার‌ণে তা‌দের কা‌ছে তি‌নি বিত‌র্কিত। কিন্তু বাংলা‌দে‌শের পাঠক ফি‌স্কের বি‌শ্লেষন ছাড়া আর কাউকে বিশ্বাস কর‌তো না। তাই এদে‌শের প‌ত্রিকাগু‌লো তার লেখা অনুবাদ ক‌রে প্রকাশ কর‌তো।

‌দ্বিতীয় বিশ্বযু‌দ্ধের পর ১৯৪৬ সা‌লে তি‌নি যুক্তরা‌জ্যে জন্মগ্রহণ করেন। তারপর তি‌নি আয়ারল্যা‌ন্ডের নাগ‌রিকত্ব নি‌য়ে রাজধানী ডাব‌লি‌নের উপক‌ন্ঠে বসবাস ক‌রেন। সেখা‌নে থে‌কে তি‌নি ব্রি‌টিশ বি‌ভিন্ন মি‌ডিয়ার জন্য কাজ ক‌রে‌ছেন। তি‌নি বলকান, উত্তর আফ্রিকা, মধ্যপ্রা‌চ্যের যুদ্ধ কাভার ক‌রে‌ছেন। সান‌ডে এক্স‌প্রে‌সে তার ক্যা‌রিয়ার শুরু হলেও ক্যা‌রিয়া‌রের বে‌শির ভাগ সময় টাইম‌সের ক‌রেসপন‌ডেন্ট হিসা‌বে কাজ ক‌রে‌ছেন। ১৯৮৯ সা‌লে প‌ত্রিকা‌টির মা‌লিক রুপার্ট মারদু‌কের স‌ঙ্গে মতপার্থ‌ক্যের কার‌ণে তা ছে‌ড়ে দেন। তারপর তি‌নি দ্য ইন্ডে‌পেন‌ডে‌ন্টে যোগ দেন। রবার্ট ফিস্ক তিনবার ওসামা বিন লা‌দে‌নের সাক্ষাৎকার নি‌য়ে‌ছেন। তি‌নি লেবান‌নে থে‌কে দেশ‌টির প‌রি‌স্থি‌তি সম্প‌র্কে সংবাদ প‌রি‌বেশন ক‌রে‌ছেন। ইরাক, সি‌রিয়াসহ গোটা মধ্যপ্রাচ্য সম্প‌র্কে তার মাধ্যমে বিশ্ব যা জান‌তে পা‌রে তা ছিল মুদ্রার উল্টো‌পিঠ যা অনে‌কের অজানা ছিল। ঝুঁকি নি‌য়ে সংবাদ সংগ্রহ ক‌রে নির‌পেক্ষভা‌বে তা প‌রি‌বেশন করা তার সাংবা‌দিকতার বৈ‌শিষ্ট্য।

দুই

আমি বৈ‌দে‌শিক সম্পর্ক বিষ‌য়ে সাংবা‌দিকতা ক‌রে থা‌কি। রবার্ট ফি‌স্কের কাছ থে‌কে আমি বি‌শেষভা‌বে জান‌তে পা‌রি যে, বৈ‌দে‌শিক সম্পর্ক নি‌য়ে বস্তু‌নিষ্ঠ সংবাদ প‌রি‌বেশন কর‌তে হ‌লে সা‌র্বিক বিষ‌য়ে গভীর জ্ঞান থাক‌তে হয়। ইতিহাস, ঐতিহ্য, রাজনী‌তি, সমাজসহ মধ্যপ্রাচ্য বিষ‌য়ে ফি‌স্কের অগাধ জ্ঞান ছিল। যুদ্ধ, নিরাপত্তা এসব বৈ‌দে‌শিক সম্পর্ক‌কে ক‌তো প্রভাব বিস্তার ক‌রে এটা ফি‌স্কের কাছ থে‌কে জান‌তে পাই।

রবার্ট ফি‌স্কের মারা যাওয়ার খবর আজ সকা‌লে জানলাম। ৭৪ বছর বয়‌সে তি‌নি স্ট্রো‌কে মারা যান। তার প্রতি শ্রদ্ধা জা‌নি‌য়ে আইরিস প্রে‌সি‌ডেন্ট হি‌গ্গিনস টুইটা‌রে লি‌খে‌ছেন, তার চ‌লে যাওয়ায় সাংবা‌দিকতার জগ‌তে এবং মধ্যপ্রা‌চ্যের বিষ‌য়ে জানা‌শোনার সম্প্রদায় শ্রেষ্ঠ ক‌মে‌ন্টেটর হারা‌লো।

শা‌ন্তি‌তে থাকুন রবার্ট ফিস্ক।

মাসুদ ক‌রিম ২ ন‌ভেম্বর ২০২০


পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

মাসুদ ক‌রিম,রবার্ট ফিস্ক
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close