• বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৯ আশ্বিন ১৪২৭
  • ||

মৌলভী সৈয়দ চট্টগ্রাম শহর মুক্তিযুদ্ধের এক মহানায়ক

প্রকাশ:  ১২ আগস্ট ২০২০, ০০:০১ | আপডেট : ১২ আগস্ট ২০২০, ০০:০৪
মাহফুজুর রহমান
বঙ্গবন্ধুর সাথে শহীদ মৌলভী সৈয়দ উপরে বাম থেকে তৃতীয়

আমি আজ প্রজন্ম ৭১ সংগঠনের সাথে মিলে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে মুক্তিযুদ্ধকালীন চট্টগ্রাম শহর যৌথ কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার মৌলভী সৈয়দ ভাইয়ের ছবিতে ফুল দিয়েছি। সেখানে গিয়ে একটি বুকলেট হাতে পেলাম যাতে লেখা আছে চট্টগ্রাম গেরিলা বাহিনী প্রধান মৌলভী সৈয়দ। তিনি সিটি কলেজের জিএস ছিলেন। আমি তখনই সত্যটা জানিয়েছি। সত্য হলো মৌলভী সৈয়দ ভাই তার আমলে ভিপি জিএস বানাতেন। নিজে হতেন না। মৌ সৈয়দ ভাই মুক্তিযুদ্ধের একেবারে শুরু থেকে মানে মার্চ মাস থেকেই ছাত্র যুবকদের সংগঠিত করে স্থানীয় ভাবে ট্রেনিং দিয়ে চট্টগ্রাম শহরে গেরিলা যুদ্ধের সূচনা করেছেন এবং ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত চট্টগ্রাম শহরে যুদ্ধ পরিচালনায় জড়িত ছিলেন। তার সাথে ছিলেন হারিস দা, আবু সাইদ সরদারও তার ছোট ভাই, মালেক চাচা, জালাল ভাই, মাইনুদ্দিন খান বাদল, আবদুল মোনাফ, দেলোয়ারসহ অনেকে। তিনি প্রাথমিকে দিকে আসা রহমানগ্রুপসহ বিভিন্ন গ্রুপের আশ্রয় দিয়েছেন তাদের সংগঠিত করে বিভিন্ন অপারেশনে পাঠিয়েছেন।

আমরা বিএলএফ এর ডা. মাহবুব, আমি, হারুনভাইসহ শহরে ঢুকি আগস্টের দিকে। এরপর সৈয়দ এমরান, ইঞ্জি.. আজিজ,পরে বিমানের শাহজাহান, ফকির জামালসহ বিএলএফএর বিভিন্ন গ্রুপ শহরে ঢুকি। প্রধম দিকে জাহাঙ্গীরআলম অপারেশন করে ভারত চলে যান ও পরে আবার শহরে ঢুকেন। রইসুল হক বাহার প্রথমে এফএফ গ্রুপ কমান্ডার হিসেবে ঢুকেন ও চলে গিয়ে আবার বিএলএফ এর সাথে ফিরে আসেন। ওমর ফারুখ শহরে ঢোকার পর অপারেশন করেন নিজ আশ্রয়ে থেকে এবং শহীদ হন। মৌলভী সৈয়দ ভাইয়ের এর সাথে তাদের দেখা হয়নি।

সম্পর্কিত খবর

    বিএলএফ আসার পর এফ এফ ও বিএলএফ যোদ্ধারা সম্মিলিতভাবে শহরে অপারেশন শুরু করেন। মৌলভী সৈয়দ ছিলেন চট্টগ্রাম শহর ছাত্রলীগের নেতা। আমরা সবাই সিদ্ধান্ত নিয়ে উনাকে চট্টগ্রাম শহরের কমান্ডার হিসেবে ঘোষণা করি। এখানে একটা কথা বলা প্রয়োজন। মৌ সৈয়দ ছিলেন মনিভাইপন্থী নেতা। বা জহুর আহমদ চৌধুরীপন্থী। আমিসহ আমরা অনেকেই ছিলাম সিরাজুল আলম খানপন্থী বা নিউক্লিয়াসপন্থী বা এমএ আজিজ পন্থী। মৌলভী সৈয়দভাই জয়বাংলা বাহিনী প্রধান ছিলেন ৭০ সালে শহর ছাত্রলীগের জয়বাংলা বাহিনী হিসিবে। স্বাধীনতাপন্থী জেলা ছাত্রলীগের জয়বাংলাবাহিনী হয়েছিল ৬৯ সালে যার প্রধান ছিলেন বাশখালীর শাহ ই জাহান চৌধুরী ও উপপ্রধান ছিলাম আমি। এই অভ্যন্তরীন বিরোধ সত্বেও আমরা সবাই সৈয়দ ভাইকে শহর প্রধান হিসেবে মেনে নেই কারণ তখন তিনি চট্টগ্রামের যুব সমাজকেভারতের সাহায্য ছাড়াই সংগঠিত করেছেন। তিনি শহরের অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধাকে আশ্রয দিয়েছেন, তাদের পুনর্গঠিত করেছেন। আমরা আসার পর নিউক্রিয়াসপন্থী ইঞ্জি হারুন ছিলেন সৈয়দ ভাইয়ের আমর্স ইন কমান্ড।

    আমি অবশ্য একটু দুরত্ব বজায় রেখে চলতাম। চট্টগ্রাম শহরের অসংখ্য নিউক্লিয়াসপন্থী ছাত্রলীগারদের সংগঠিত করতে ফৌজদারহাট থেকে সেই বন্দর, কালুরঘাট, অক্সিজেন পর্যন্ত কাজ করতে হয়েছে। আমাদের গ্রুপ, আজিজ গ্রুপ, ইমরান গ্রুপ একহয়ে কাজ করেছি, আমাদের আশ্রয়সহ সব কিছু আমরাই ঠিক করেছি। কিন্তু সৈয়দ ভাইকে নেতা মানতে আমাদের কোন আপত্তি ছিল না তার অমায়িক ব্যবহার , সরলতা ও সাহসের জন্য। প্রত্যেক গ্রুপ অপারেশন করতো নিজস্ব ভাবে। এভাবেই চলছিল। অক্টোবর কি নভেম্বরের দিকে মেজর রফিক ও শেখ ফজলুল হক মনি ভাইয়ের চিঠি নিয়ে আসেন ইঞ্জিনিয়ার আফসারউদ্দিন। তিনি আমাদের চিঠি দেখান যাতে ‍তাকে এফ এফ এবং বিএলএফ এর এই জোনের সুপ্রীম কমান্ডারদ্বয় তাকে( ইঞ্জি আফসারকে) চট্টগ্রাম শহরের কমান্ডার হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছেে। এরপর আমরা আবার বসি। অনেক বাদানুবাদের পর ইঞ্জিনিয়ার আফসারকে কমান্ডার হিসেবে আমরা সবাই মেনে নেই, মৌ সৈয়দ ভাইকে আমরা ডেপুটি কমান্ডার করি। এর সাথে আমাকে, ইঞ্জি হারুন, ডা. জাফর. শাহাবুদ্দিনকে সদস্য করে চট্টগ্রাম শহর হাই কমান্ড গঠিত হয়। তাই ইতিহাসকে সঠিক রাখতে হলে সৈয়দ ভাইকে শহর গেরিলা বাহিনীর উপ প্রধান বলাই শ্রেয়। অথবা বলতে হবে প্রাথমিক দিকের প্রধান ও চুড়ান্ত সময়ের উপপ্রধান।

    মৌলভী সৈয়দ চট্টগ্রাম শহর মুক্তিযুদ্ধের এক মহানায়ক। তাকে মহানায়ক বলা চলে। কিন্তু তিনি গেরিলাবাহিনীর প্রধান ছিলেন এটা ঐতিহাসিক সত্য নয়। এটা লিখলাম একারণেই যে নতুন প্রজন্ম না জেনে এটা রলতে পারে কিন্তু মুক্তিযোদ্ধাদের কেউ কেউ সজ্ঞানে ভুল তথ্যটি প্রচার করছেন। আশা করি মৌ সৈয়দ ভাইকে নিয়ে বিতর্ক করবেন না। অনেক কমান্ডার যেমন মাহবুব, ইয়াসিন,সিইনসিজাহাঙ্গীর , লোকমান, গফুর জাহেদ,মুস্তাফিজ,ইলিয়াসসহ অনেকের নাম লেখায় আসেনি। এরজন্য ক্ষমা চাই। চট্টগ্রামের সব কমান্ডারই( প্রাথমিক দিকের ছাড়া) সৈয়দ ভাইয়ের সাথে কোন না কোন ভাবে জড়িত ছিলেন। তিনি শান্তিতে থাকুন এই কামনায়।

    (লেখকের ফেসবুক লিংক)


    পূর্বপশ্চিমবিডি/জেআর

    মৌলভী সৈয়দ
    মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
    cdbl
    • সর্বশেষ
    • সর্বাধিক পঠিত
    close