• রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭
  • ||

পুলিশ ভেরিফিকেশন এবং এএসপির মিষ্টি

প্রকাশ:  ১০ আগস্ট ২০২০, ১৭:২১
ওয়াহিদ মুরাদ আজম

আমার ৩৮তম বিসিএসের পুলিশ ভেরিফিকেশন শেষ হলো আজ। ভেরিফিকেশন করতে এসেছিলেন রাঙ্গুনিয়া সার্কেলের এএসপি আনোয়ার হোসেন শামীম স্যার। এতদিন ফেসবুকে ফলো করতাম, এভাবে নিজের বাড়িতে পেয়ে যাব ভাবিনি।

আমরা এতদিন ধরেই নিয়েছি, ভেরিফিকেশন মানেই পুলিশকে ঘুষ দিতে হবে। মিষ্টি খাওয়ার কথা বলে, মোটরসাইকেলে তেল ঢোকানোর কথা বলে টাকা চাওয়া হবে। কিন্তু আজ আমাদেরকে অবাক বানিয়ে উল্টো এএসপি শামীম আনোয়ার স্যারই আমার জন্য মিষ্টি ও ফুলের তোড়া উপহার হিসেবে নিয়ে এলেন। আমাদের অনেক অনুরোধের পরও এক কাপ চাও খেলেন না। এমনকি এক গ্লাস পানিও না। হঠাৎ বৃষ্টি না আসলে বাড়িতেও হয়তো ঢুকতেন না। কিন্তু যতটুকু সময় তিনি ছিলেন, এই স্বল্প সময়েই তিনি আমাকে শিখিয়ে গেলেন একজন সৎ, নীতিবান সরকারি কর্মকর্তার আদর্শ কেমন হওয়া উচিত।

তিনি আমাকে উপদেশ দিয়েছেন, চাকুরীজীবনে যেন গরিব, অসহায় মানুষের পাশে দাড়াই। তাদেরকে যেন সবসময় সহযোগিতা করি। এছাড়াও আমার মা-বাবাকে স্যার যে সম্মান দেখিয়েছেন,এটা আমার কল্পনারও বাইরে ছিলো।

ধন্যবাদ বাংলাদেশ পুলিশ। পুলিশে ইতিবাচক পরিবর্তন যে আসছে, তার প্রমাণ আজ হাতেনাতেই টের পেলাম। অনেকে বলবেন, আমার কাছ থেকে টাকা নেয়নি বলে এবং উপহার দিয়েছে বলেই আজ আমি পুলিশকে ভাল বলছি। কিন্তু না। আমি সত্যিই অবাক হয়ে গেছি, যা ঘটেছে তার ১০% ও আশা করিনি। ঘুষের ব্যাপার না, পুলিশের আচরণ, অমায়িক ব্যবহার, সত্যি বলছি, সবকিছু মিলিয়ে আমাকে উন্নত বিশ্বের পুলিশের কথা মনে করিয়ে দিয়েছে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

পুলিশ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close