• সোমবার, ০৬ জুলাই ২০২০, ২২ আষাঢ় ১৪২৭
  • ||

আড়ংয়ের খামখেয়ালিপনা এবং ক্রেতাদের স্বপ্নভঙ্গ

প্রকাশ:  ২৩ মে ২০২০, ১৮:০৮ | আপডেট : ২৩ মে ২০২০, ১৯:৫৪
আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম
আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম

করোনার কারণে এবার পরিবারের কেউই ঈদ শপিং করছিনা। কিন্তু ৮৭ বছর বয়সি বৃদ্ধ পিতা এবং কাছাকাছি বয়সের আম্মা এবং শশুর শাশুড়ীর জন্য কিছু কিনার প্রয়োজনীয়তা থেকে আড়ংয়ের শরণাপন্ন হলাম তাদের অনলাইন শপের মাধ্যমে। আম্মা-বাবা করোনার আগে গ্রামে গিয়ে আটকা পড়েছেন আর শশুর-শাশুড়ী থাকেন চট্টগ্রামে। যোগাযোগ ব্যবস্থা সীমিত হওয়ায় অনেক সময় হাতে নিয়ে ৯ই মে অনলাইনে চাহিদা অনুযায়ী পুরুষের কিছু পোষাক অর্ডঅর দিয়ে ডেবিট কার্ডে মূল্য পরিশোধ করি।

মহিলাদের শাড়ি অর্ডার করি নারায়ণগঞ্জের একটি জামদানী শাড়ীর অনলাইন শপে। এক দিন পরেই শাড়ী ডেলিভারি পেলেও অদ্যাবদি আড়ং এর পণ্যের সরবরাহ পাই নি। ১৭/১৮ তারিখের দিকে একটি বার্তা পেলাম আড়ং থেকে। তাতে অনেক কথার মধ্যে আমাদের জন্য যা বলা ছিল তা হল অত্যধিক অর্ডারের কারণে তাদের পন্য পাঠাতে দেরী হচ্ছে। তবে ১৬ ই মের মধ্যে যারা অর্ডার দিয়েছেন তাদের ক্রয়কৃত পণ্য ঈদের আগে দেয়ার চেষ্টা করা হবে। মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো। কবে পাব আর কবে পাঠাব তা ভেবে। দেখার বা শুনার আরো বাকি ছিল। ২১ তারিখে আর একটি বার্তা পেলাম আড়ং থেকে। তা দেখে বাংলা ভাষার সেই বিখ্যাত শব্দা “কিংকর্তব্যবিমুড়” হয়ে গেলাম। বার্তাটি ছিল ক্রয়কৃত পণ্য পাঠানো সম্ভব হবে না। যথাসময়ে টাকা ফেরত দেয়া হবে। অপেক্ষায় রইলাম টাকা ফেরতের। না এখন পর্যন্ত (২৩ মে সন্ধ্যা) টাকা ফেরত আসেনি।

ভাবছি এটাও কি সম্ভব? দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম জনগোষ্ঠির সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদ উল ফিতর। সবাই চেষ্টা করে বাবা, মা, স্ত্রী সন্তানদের এই ঈদে নতুন কাপড় কিনে দিতে। অনেকেই সে চেষ্টাতেই আড়ংএ অর্ডার করেছিলেন। আড়ং এর বার্তানুযায়ি অধিক ক্রয়াদেশের কারণে ওনারা পণ্য সরবরাহ দিতে পারেন নি।

এখানে প্রশ্ন হলো ১। সাধ্যের অতিরিক্ত ক্রয়াদেশ ওনারা নিলেন কেন? ২। অগ্রিম টাকা নিয়ে কত শত কোটি টাকার ক্রয়াদেশ নেয়া পণ্য আড়ং সরবরাহ করতে পারেন নি। ৩। সীমিত আয়ের ক্রেতারা অর্ডারকৃত পণ্য না পেয়ে এবং যথাসময়ে অর্থ ফেরত না পেয়ে তাদের বাবা, মা, স্ত্রী পুত্র কন্যাদের ঈদের পোশাক দিতে না পাড়ার কষ্ট কি দিয়ে মেটাবেন। বা বাচ্চাদের কি দিয়ে ঈদের আনন্দে সামিল করবেন। ৪। আড়ংয়ের এ ধরনের অবিশ্বাসজনিত খামখেয়ালীপনার কারণে হাজার হাজার মানুষের স্বপ্নভঙ্গের কি কোন প্রতিকার নাই?

আশাকরি সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ, ক্যাবসহ যথাযথ কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিবেন।

লেখক: আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সাবেক সদস্য ও প্রধানমন্ত্রীর সাবেক প্রটোকল অফিসার।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close