• রোববার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭
  • ||

ইন্ডিয়াতে জনতা কারফিউ, আমরা কি এমন করতে পারি না

প্রকাশ:  ২২ মার্চ ২০২০, ২১:০৪
আঁখি আলমগীর

এই জনতা কারফিউ আজ সংঘটিত হয়েছে ইন্ডিয়াতে। আমরা কি এমন কিছু করতে পারি না? আগে পড়েন, তাহলে বুঝবেন।

যারা জানেন না তারা জানুন ভারতবর্ষে একদিনের ‘জনতা কারফিউ’র ফল কি হবে বা এর কারণ:-

১) গবেষকদের মতে করোনাভাইরাসের একটা জায়গায় ১২ ঘণ্টার বেশি বাঁচতে পারে না। আর এই ১৪ ঘণ্টার কারফিউ এর ফলে মানুষ বাড়ি থেকে না বের হলে জমায়েত না হলে ভাইরাস আক্রান্ত মানুষের সংস্পর্শ এ না এলে এই একদিন ১৪ ঘণ্টা ভাইরাস এর সংক্রমণ এর চেইনটা ভেঙে যাবে।

২) রোববার ছুটির দিন কেন বাছা হলো কারণ ছুটির দিনে বেশি সংখ্যক মানুষ বাইরে একত্রিত হয়। ভারতে প্রায় ১৩০ কোটি মানুষ। তার এক চতুর্থাংশও সংক্রামিত হলে ত্রিশ কোটিরও বেশি। সেই চাপ সামলানোর মতো পরিকাঠামো ভারতে কেন, কোথাও নেই। সংক্রামিত রোগীদের দশ শতাংশের যদি আইসিইউ বা ভেণ্টিলেটর লাগে, তবে তিন কোটি। সমগ্র ব্যবস্থা ভেঙে পড়বে চাপে।

করোনায় মৃত্যুর হার বেশি নয় বলে যারা সচেতনতা বৃদ্ধির সরকারি প্রচারকে অহেতুক আতঙ্ক বলে বিদ্রূপ করছেন, তাদের জানাই, চিকিৎসা না পেলে কিন্তু মৃত্যুর হার অনেক বাড়বে। তবে যত বেশিদিন বন্ধ করা যাবে তত বেশি ভালো। একদিন করেই শুরু করা যাক।

আর এই রোববার জনতা কারফিউ এর মাধ্যমে ভাইরাস সংক্রমণ এর চেইনটা ভেঙে দিতে পারলে হয়তো ভারতবাসীরা বেঁচে যাবেন। আজ অন্তত রাস্তায় ক্রিকেট খেলা, চায়ের দোকানে আড্ডা বন্ধ রাখুন।

জনতা কারফিউ এ জন্য করা।

(লেখকের ফেসবুক থেকে নেয়া)

পূর্বপশ্চিমবিডি/অ-ভি

আঁখি আলমগীর,করোনাভাইরাস
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close