• সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬
  • ||

প্রিয় ইলিয়াস কাঞ্চন, আপনি একা নন, আমরাও সাথে আছি

প্রকাশ:  ২২ নভেম্বর ২০১৯, ১৩:৪৭
এ আর সুমন নূর

বাংলাদের সবচেয়ে ব্যবসা সফল সিনেমা 'বেদের মেয়ে জোসনা'র নায়ক। আপনার ক্যারিয়ার তখন তুঙ্গে। দেশের নাম্বার ওয়ান হিরো। পরিচালকরা লাইন ধরেন। অগনিত ভক্ত। ঠিক সেই সময়। জীবনের সেই সোনালী সময়ে। এক মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনা। ২২ অক্টোবর ১৯৯৩। প্রিয়তমা স্ত্রীকে হারালেন। কতটা কষ্ট পেয়েছিলেন সেটা আপনি জানেন। আমরা জানি না। শুধু অনুমান করতে পারি, প্রিয়জন দূরে যাবার কষ্ট। শোকে পাথর না হয়ে আপনি শক্ত হলেন।

চলচিত্রের সেই বর্ণীল জীবন ছেড়ে নেমে এলেন রাস্তায়। একদম খোলা রাস্তায়।যানবাহনের কালো ধোঁয়ায়। যত্রতত্র হর্ণ। ধুলাবালিময় রাস্তায়। কখনো গুলিস্থান, কখনো মালিবাগ, বাংলামোটর, শাহবাগ। কখনো ছুটে যান চিটাগাং, চান্দিনা, ত্রিশাল থেকে সিলেট, পঞ্চগড় কী কক্সবাজার। ছুটে চলেছেন একলা। হাতে হ্যান্ডমাইক। ধুলোমাখা পথ। অবিরত বলছেন, প্লিজ রাস্তা পারাপারে ফুটওভার ব্রিজ ব্যাবহার করুন, জেব্রা ক্রসিং ব্যাবহার করুন, ড্রাইভার ভাইয়েরা দেখেশুনে গাড়ি চালাবেন। সময়ের চেয়ে জীবনের মূল্য অনেক বেশি! আপনার কথা কারও কানে পৌঁছে না। আমরা আইন মানি না। তবুও আপনি হতাশ হননি।

হেটে চলেছেন, দূর্গম পথে, কণ্টকাকীর্ণ পথে একাই চলেছেন প্রায় ২৭ টা বছর! ব্যাক্তিগত কোনো চাওয়া নেই। স্বপ্ন শুধুমাত্র নিরাপদ সড়ক। মিডিয়াতে প্রতিনিয়ত বলেন, আমি চাইনা আমার মতো, কেউ যেনো দূর্ঘটনায় স্বজন না হারায়! আর কাউকে যেনো গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রাণ দিতে না হয়।

আপনি লড়ছেন! এবং একাই লড়ছেন।

দুর্ঘটনায় মৃত মানুষদের যারা সংখ্যায় হিসাব কষে, মৃত্যু সংবাদে যারা বিন্দুমাত্র বিচলিত না হয়ে দাঁত কেলিয়ে হাসে, তাদের বিরুদ্ধে লড়ছেন। প্রতিযোগিতায় গাড়ি চালাতে গিয়ে যারা মানুষকে পিঁপড়ের মতো পিষে মেরে, দিব্যি ঘুরে বেড়ায়, দাদাদের কৃপায়। আপনি সেইসব দাদাদের বিরুদ্ধে, গডফাদারদের বিরুদ্ধে লড়ছেন। লড়ছেন পরিবহন সেক্টরের মাফিয়াদের বিরুদ্ধে। সড়কের অব্যবস্থাপনার হাত থেকে, সমগ্র বাংলাদেশকে রক্ষা করতে। এটাই আপনার সংগ্রাম।

সম্প্রতি কতিপয় দুর্বৃত্তরা আপনার ছবিতে জুতার মালা দিয়ে, রাস্তায় টানিয়ে রেখেছে। প্রতিকৃতি বানিয়ে ছেঁড়া জামা, জুতোর মালা পরিয়ে মোড়ে মোড়ে টানিয়েছে! অসন্মান করেছে। যারা এ কাজ করেছে, তারা জানেনা আপনি তো ওদের জন্যও লড়ছেন! আপনি লড়ছেন দেশটাকে রক্ষার জন্য। যে দেশটা ভাল থাকলে শুধু যাত্রী, পথচারী না। গাড়িচালক, মালিক সবাই ভাল থাকবেন।

জীবনের যেই সময়ে আপনার বিশ্রাম প্রয়োজন। সেই সময়েও আপনি লড়ছেন। নিজের জন্য নয়, আমাদের সবার জন্য। নায়ক তো কতজন ছিলো। আরও কতজন হবে। তবে আমাদের চোখে, টিভি পর্দার বাইরে, সত্যিকার নায়ক একজনই। তিনি হলেন ইলিয়াস কাঞ্চন। যিনি লড়ছেন স্রোতের বিপরীতে, একা, একদম একা। একটি 'নিরাপদ সড়ক চাই' এর দাবিতে।

সেদিন বলেছিলেন, নেক্সট বই লিখলে আপনার কথা যেনো লিখি। মাথা নেড়ে জবাব দিয়েছিলাম। বলেছিলাম- জী ভাই, লিখবো। আপনার মতো সত্যিকার হিরোকে নিয়ে লিখতে পারাটাও চরম স্বার্থকতা। বেঁচে থাকলে, কোনো বইয়ের পাতায়, গল্প কিংবা কবিতায় একজন ইলিয়াস কাঞ্চন থাকবেন।

প্রিয় ইলিয়াস কাঞ্চন,

সাথে আছি। শুধু আমরা না, সমগ্র বাংলাদেশ আপনার সাথে আছে। নিরাপদ সড়কের দাবিতে, যে যুদ্ধ আপনি শুরু করেছেন, সে যুদ্ধে আপনি জিতবেন এবং জিতবেনই।

নায়কেরা কখনো হারে না।

নিরাপদ সড়ক চাই

(লেখকের ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

পূর্বপশ্চিমবিডি/জিএম

নিরাপদ সড়ক আন্দোলন,ইলিয়াস কাঞ্চন,দুর্ঘটনা,ফেসবুক স্ট্যাটাস
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত