• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ২১ আষাঢ় ১৪২৯
  • ||

হজযাত্রীদের নিয়ে হাজির হওয়া প্রথম ফ্লাইট হতে চায় বাংলাদেশ

প্রকাশ:  ২৩ মে ২০২২, ১১:৫৪
নিজস্ব প্রতিবেদক

শুরুতে অনিশ্চয়তা থাকলেও সময় যত গড়াচ্ছে নির্ধারিত দিনে হজ ফ্লাইট শুরুর বিষয়ে অনিশ্চয়তা তত কাটছে। এরই মধ্যে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের চলতি বছরের হজ সূচিতে অনুমোদন দিয়েছে সৌদি সরকার।

প্রায় দুই বছর পর এবার বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে হজব্রত পালনের সুযোগ পাচ্ছেন মুসল্লিরা। এবার হজ মৌসুমে সৌদি আরবে হজযাত্রীদের নিয়ে হাজির হওয়া প্রথম ফ্লাইট হতে চায় বাংলাদেশ। সে লক্ষ্য নিয়ে এগোনোর কথা জানাচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। বিমান বলছে, হজ ফ্লাইট শুরু করতে তাদের সব প্রস্তুতি নেয়া আছে।

২০১৫ সালে মৌসুমের প্রথম হজ ফ্লাইট পরিচালনা করে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। এ বছরও একই লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

স্বাভাবিক সময়ে প্রতি বছর সারা বিশ্বের ২০ থেকে ২৫ লাখ মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পেয়ে থাকেন। কিন্তু করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে গত দুই বছর সৌদি আরবের বাইরের কেউ হজ করার সুযোগ পাননি। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় সৌদি সরকার এবার সারা বিশ্বের ১০ লাখ মানুষকে হজ পালনের অনুমতি দিচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে এ বছর সাড়ে ৫৭ হাজার মুসল্লি হজব্রত পালনে সৌদি আরবে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন ৪ হাজার মুসল্লি। বাকিরা যাবেন বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান বলেন, ‘হজ ফ্লাইটের জন্য যে সিডিউল দেয়া হয়েছিল, তা সৌদি সরকার অনুমোদন করেছে। আমরা আশা করি, ৩১ মে প্রথম ফ্লাইট শুরু করতে পারব। আমার ২০১৫ সালের কথা স্পষ্ট মনে আছে। বাংলাদেশের বিমানের মৌসুমের প্রথম ফ্লাইটটি যখন সৌদিতে গেল এবং এটাই ছিল সে বছরের প্রথম হজ ফ্লাইট।

‘আমরা চেষ্টা করব এবারও প্রথম ফ্লাইটটি করতে পারি কি না। আমাদের প্রথম ফ্লাইট যেটা যাবে, তা যদি প্রথম হয়, তবে সেটাকে সৌভাগ্য বলেই মনে করি। ২০১৫ সালে হয়েছিল। এবার হবে কি না জানি না, তবে আমরা চেষ্টা করছি। এবার সব যাত্রী যাতে ডেডিকেটেড ফ্লাইটে যেতে পারে, আমরা সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান বলছে, এরই মধ্যে ৩১ মে ফ্লাইট শুরু করতে সব ধরনের প্রস্তুতি চূড়ান্ত করা হয়েছে। বিমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু সালেহ মোস্তফা কামাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ৩১ মের জন্য প্রস্তুত আছি। তারপরও যেভাবে ধর্ম মন্ত্রণালয় আমাদের বলেছে যে, গ্যাপ দিয়ে মনে হয় বাকিগুলো করতে পারবে, আমরা সেভাবেই ঠিক রেখেছি। আমাদের দিক থেকে প্রস্তুত আছি।

‘আমরা যেভাবে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের কাছে ফ্লাইট চেয়েছি বা বলেছি, সেভাবেই অনুমোদন পাওয়া গেছে। আমরা অনুমোদিত সিডিউল পেয়েছি, আমরা আমাদের দিক থেকে প্রস্তুত আছি।’

মৌসুমের প্রথম ফ্লাইট পরিচালনা সম্ভব হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা বিষয়টি মাথায় রেখেই এগোচ্ছি। এখন সব দিক থেকে যদি সম্ভব হয়। ওনাদের দিক থেকে যদি সব শেষ করে হজযাত্রী দিতে পারেন, তাহলে আমরা চেষ্টা করছি।’

এবার সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের জন্য দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ প্যাকেজটি হলো ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা। সর্বনিম্নটি হলো ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকা। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনে জনপ্রতি ন্যূনতম খরচ ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৭৪৪ টাকা নির্ধারণ করেছে হজ এজেন্সিস অব বাংলাদেশ (হাব)।

এবার হজ হতে পারে ৮ জুলাই (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে)। সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী ৫৭ হাজার হজযাত্রীর অর্ধেক করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। বাকি অর্ধেক বহন করবে সৌদি রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইনস ও ফ্লাই নাস।

রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান এ বছর ৭৫টি ডেডিকেটেড ফ্লাইটের মাধ্যমে ৩১ হাজার যাত্রী বহন করবে। যাত্রী পরিবহনে বিগত বছরগুলোর মতোই বহরে থাকা বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ ব্যবহার করা হবে।

পূর্ব পশ্চিম/জেআর

হজ
  • নিউজ ট্যাগ:
  • হজ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close