• রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯
  • ||

বুয়েটের আন্দোলনকারীরা শিবির: জয়

প্রকাশ:  ১৪ আগস্ট ২০২২, ১৭:০৫
নিজস্ব প্রতিবেদক
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাষ্কর্যের সামনে ছাত্রলীগের মানববন্ধন।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ‘ছাত্রলীগের সাবেক নেতৃবৃন্দ’ ব্যানারে হওয়া শোক সভার যারা বিরোধিতা করেছেন তারা শিবির বলে মন্তব্য করেছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়। এসময় তিনি বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি চালু করারও দাবি জানান।

আজ রবিবার (১৪ আগস্ট) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রাজু ভাষ্কর্যের সামনে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, গতকাল বুয়েটে যে ঘটনা ঘটেছে, কোনো সাধারণ শিক্ষার্থী এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে পারে না। সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানে জাতির পিতা বাংলাদেশের জন্য কী। সুতরাং জামাত-শিবিরের প্রেতাত্মারাই এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

বুয়েট প্রশাসনের উদ্দেশে তিনি বলেন, ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করে আপনারা কী বোঝাতে চান? ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করে আপনারা কি বুয়েটকে জঙ্গিমুক্ত করতে পারবেন? আপনাদের জন্য অশনি সঙ্কেত। এই বিষয়ে আপনাদের এখনই সচেতন হওয়া উচিত। ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, বাংলাদেশের শিক্ষাঙ্গনে ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করার এখতিয়ার কারো নেই। শিক্ষার্থীরা শিক্ষার্থীদের জন্য কথা বলবে আর ছাত্ররাজনীতি চলবে। এটিই মেনে নিতে হবে। আপনাদেরকে বিষয়টি আবারো বিবেচনা করতে বলব। ছাত্ররাজনীতি আবারো সচল করে বুয়েটকে জঙ্গিমুক্ত করার জন্য আপনারা পদক্ষেপ নেবেন।

আল নাহিয়ান জয় বলেন, তারা কারা যারা স্লোগান দেয়, ছাত্রলীগের ঠিকানা, বুয়েট ক্যাম্পাসে হবে না- এত সহজ! এটা এত সহজ না।বাংলাদেশের প্রত্যেকটা ইঞ্চিতে ছাত্রলীগের ইতিহাস রয়েছে। ছাত্রলীগকে যারা ঠিকানা মনে করেন না তাদের উদ্দেশ্য আমরা বুঝে গিয়েছি। তাদের উদ্দেশ্য হলো বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর কাঁঠাল ভেঙ্গে মেধাবী শিক্ষার্থীদেরকে অন্যায়ের প্রতি উদ্ভুদ্ধ করা।

বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, আপনাদের পাশে আমরা আছি। কুচক্রী শিবিরদের আপনারা প্রতিহত করবেন। আপানদের প্রতি অনুরোধ, আপনাদের কেউ যেন ওই দুষ্কৃতকারী বাটপারদের কথা শুনে আন্দোলনে না নামেন। যারা ছাত্রলীগকে নিয়ে এবং বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করেছে তাদের বিচার হবে৷

এ সময় তিনি প্রশাসন এবং গোয়েন্দা সংস্থাকে অনুরোধ জানিয়ে বলেন, যারা বঙ্গবন্ধুর শোক সভা বানচাল করার জন্য প্রচেষ্টা হাতে নিয়েছ তাদেরকে আপনারা খুঁজে বের করুন। তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হওয়া উচিত। কারণ তারা সংবিধান লঙ্ঘন করার মত কাজ করেছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী, আইন বিষয়ক সম্পাদক ফুয়াদ হাসান শাহাদাত, উপ আইন বিষয়ক সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হল ছাত্রলীগের সভাপতি সজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আবু ইউনুস, হাজী মুহাম্মদ মহসিন হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হোসেনসহ বিভিন্ন হলের শতাধিক নেতাকর্মী।

প্রসঙ্গত, বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার পর ক্যাম্পাসে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ থাকলেও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গতকাল শনিবার (১৩ আগস্ট) আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন করেন ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা। এ আয়োজনকে ঘিরে বিক্ষোভ করেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এআই

বুয়েট,বাংলাদেশ ছাত্রলীগ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close