• বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
  • ||

দেশে ব্যারিস্টার রফিকের মতো আইনজীবীর খুবই অভাব: ফখরুল

প্রকাশ:  ২৪ অক্টোবর ২০২০, ১৩:২৬
নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রবীণ আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের ‍মৃত্যুতে আইন জগতে একটা বিরাট রকমের ক্ষতির সৃষ্টি হয়েছে উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, দেশে এ ধরনের আইনজীবীর এখন খুবই অভাব। তার অভাব আমরা অনুভব করছি।

শনিবার (২৪ অক্টোবর) জ্যেষ্ঠ এ আইনজীবীর মৃত্যুর সংবাদ শুনে মির্জা ফখরুল মগবাজারের আদ-দ্বীন হাসপাতালে ছুটি যান। তার মরদেহের সামনে নীরবে দাঁড়িয়ে থেকে দলের পক্ষে শ্রদ্ধা জানান তিনি।

এ সময়ে বিএনপি নেতা মজিবুর রহমান ও শায়রুল কবির খান উপস্থিত ছিলেন।

পরে সাংবাদিকদের মির্জা ফখরুল বলেন, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক চলে যাওয়ায় আইন জগতে একটা বিরাট রকমের ক্ষতির সৃষ্টি হয়েছে, এই ক্ষতিতে যে শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে, এই শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়।

তিনি বলেন, আমরা বিএনপি, দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে তার বিদাহী আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি, তার আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি। আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া করি, তিনি যে তাকে বেহেস্ত নসিব করেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, এ ধরনের আইনজীবীর এখন খুবই অভাব। তার অভাব আমরা অনুভব করছি। তিনি সব সময় নিপীড়িতদের পাশে দাঁড়িয়েছেন, তাদেরকে আইনি সহায়তা দিয়ে গেছেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক সারা জীবন যে আয় করেছেন, তার একটা বিরাট অংশ মানুষের সেবার জন্য ব্যয় করেছেন। এই হাসপাতালের চেয়ারম্যান ছিলেন, ক্যানসার হাসপাতালে তার বিরাট অবদান আছে। ডায়াবেটিক হাসপাতালের পুরো আইসিইউ তিনি করে দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, শনিবার (২৪ অক্টোবর) সকাল সাড়ে আটটার দিকে রাজধানীর মগবাজারের আদ্-দ্বীন হাসপাতালের ইন্টেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) লাইফ সাপোর্টে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ব্যারিস্টার রফিক-উল হক শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের জন্ম ১৯৩৫ সালের ২ নভেম্বর কলকাতার সুবর্ণপুর গ্রামে। ১৯৫৫ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক, ১৯৫৭ সালে দর্শন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। ১৯৫৮ সালে এলএলবি পাস করেন। ১৯৬২ সালে যুক্তরাজ্য থেকে বার এট ল সম্পন্ন করেন। ১৯৬৫ সালে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হিসেবে এবং ১৯৭৩ সালে আপিল বিভাগে আইনজীবী হিসেবে আইন পেশা শুরু করেন তিনি।

১৯৯০ সালের ৭ এপ্রিল থেকে ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন রফিক-উল হক। কিন্তু কোনো সম্মানী নেননি। পেশাগত জীবনে তিনি কখনো কোনো রাজনৈতিক দল করেননি। তবে, নানা সময়ে রাজনীতিবিদরা সব সময় তাকে পাশে পেয়েছেন।


পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর,ব্যারিস্টার রফিক-উল হক
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
cdbl
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close