• বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
  • ||

মৃত্যুর পর রিপোর্ট এলো সাবেক এমপি পুতুলের করোনা পজেটিভ

প্রকাশ:  ২২ মে ২০২০, ১৮:৫০ | আপডেট : ২২ মে ২০২০, ১৮:৫৬
আব্দুস সালাম বাবু, বগুড়া
বেগম কামরুন্নাহার পুতুল

মৃত্যুর পর রিপোর্ট এসেছে বগুড়ার সাবেক সংসদ সদস্য বেগম কামরুন্নাহার পুতুল (৬৫) করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন। তিনি বগুড়া-জয়পুরহাট জেলার সংরক্ষিত আসনের আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক মহিলা বিষয়ক সম্পাদক। কামরুন্নাহার পুতুলের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে, শুক্রবার এক শোকবার্তায় সরকারপ্রধান মরহুমার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

কামরুন্নাহার পুতুলের বগুড়ায় করোনায় প্রথম মারা গেলেন। জেলার সিভিল সার্জন ডা. গওসুল আজিম চৌধুরী পূর্বপশ্চিমকে জানান, বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কামরুন্নাহার পুতুল মারা যান। তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন।

সিভিল সার্জন জানান, গত তিনদিন ধরে বগুড়া শহরের শিববাটি এলাকায় নিজ বাসভবনে জ¦র, ডায়রিয়া ও খাবার অরুচিতে ভুগছিলেন। তার বাড়িটি লক ডাউন করে রাখা হয়েছে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, কামরুন নাহার পুতুল আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য শহীদ মোস্তাফিজার রহমান পটলের স্ত্রী। তিনি এক ছেলে ও দুই মেয়ের জননী। কামরুন্নাহার পুতুল গত তিনদিন ধরে করোনা উপসর্গ জ্বর, ডায়রিয়া নিয়ে বাসায় অসুস্থ থাকায় ২০ মে করোনা পরীক্ষার জন্য তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাতে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর কামরুন্নাহার পুতুল বগুড়া-জয়পুরহাট জেলার সংরক্ষিত নারী আসনে সংসদ সদস্য মনোনীত হন। তার স্বামী মােস্তাফিজার রহমান পটল ১৯৭৩ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে বগুড়ার গাবতলী আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। কামরুন্নাহার পুতুল এমপি নির্বাচিত হওয়ার আগে রূপালী ব্যাংকে কর্মরত ছিলেন।

বগুড়া সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সামির হোসেন মিশু পূর্বপশ্চিমকে জানান, কামরুন্নাহার পুতুল কয়েকদিন আগে তার অসুস্থ ছেলেকে দেখতে ঢাকায় গিয়েছিলেন। সেখান থেকে ফেরার পর পথকে তিনি অসুস্থতাবোধ করেন এবং পরে তিনি মারা যান। আইইডিসিআর নির্দেশ মোতাবেক সীমিত মুসল্লি নিয়ে শুক্রবার দুপুরে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার নামাজে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদপ্তর সম্পাদক মাশরাফি হিরো, বগুড়া পৌরসভার সাবেক প্যানেল মেয়র আমিনুল ফরিদ ও কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের বেশ কয়েকজন অংশ নেন। পরে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন, বগুড়া শাখার ২ জন নারী সহ ৯জন স্বেচ্ছাসেবকের একটি টিম তার মরদেহ বগুড়া শহরের নামাজ গড় কবরস্থানে দাফন করে।

এদিকে কামরুন্নাহার পুতুলের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

করোনাভাইরাস,বগুড়া,আওয়ামী লীগ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close