• মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৫ ফাল্গুন ১৪২৬
  • ||

একই মঞ্চে তাপস-খোকন

প্রকাশ:  ২৮ জানুয়ারি ২০২০, ২০:০৪
নিজস্ব প্রতিবেদক

নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপসের সঙ্গে দেখা হলো বর্তমান মেয়র সাঈদ খোকনের। মঙ্গলবার দুপুরে সদরঘাটে ডিএসসিসির জলবায়ু উদ্বাস্তু আশ্রয়কেন্দ্রে পরিদর্শনে যান বর্তমান মেয়র। আর নির্বাচনী জনসংযোগ কর্মসূচির অংশ হিসেবে সেখানে উপস্থিত হন ঢাকা দক্ষিণে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী। এসময় কুশল বিনিময় করেন তারা। একে অপরের সঙ্গে কোলাকুলি করে দুজনেই পাশাপাশি বসেন। বসার আগে তাপসের হাত ধরে উচিয়ে তুলে ধরেন খোকন। এ সময় নেতাকর্মীরা স্লোগানে মুখর হয়ে উঠেন।

ডিএসসিসির মেয়র পদে দুজনেই নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন চেয়েছিলেন এবার। কিন্তু দলীয় মনোনয়ন ঘোষণার পর দুজনকে একসঙ্গে দেখা যায়নি।

সেখানে সাঈদ খোকন বলেন, ‘আমরা দুই ভাই। আমরা সবসময় একসঙ্গে আছি এবং থাকব। ঢাকাবাসীর জন্য এক সঙ্গে কাজ করে যাব। আমি জানি, তাপস জয়যুক্ত হলে আমরা যে ইতিবাচক পরিবর্তনের সূচনা করতে সক্ষম হয়েছি, তার হাতেই সেই ধারা অব্যাহত থাকা সম্ভব।’

আরও পড়ুন: লোভে পড়ে ১৭ লাখ টাকা খোয়ালেন আ.লীগের তিন কাউন্সিলর প্রার্থী

শেখ তাপস বলেন, ‘আজ যেহেতু উনার আচরণবিধি লঙ্ঘন হবে, তাই তিনি গণসংযোগে অংশগ্রহণ করতে পারছেন না। আজ আমি গণসংযোগে অংশ নিয়ে যখন দেখেছি, তিনি এখানে সিটি করপোরেশনের একটি প্রকল্প দেখতে যাচ্ছেন। আমি এ সুযোগে এখানে একটু কুশল বিনিময় করতে এসেছি। আমি উদ্বাস্তু কেন্দ্রটি ঘুরে ঘুরে দেখেছি। এখানে পথশিশু ও বৃদ্ধ নারীদের জন্য অত্যন্ত সুন্দর আয়োজন করা হয়েছে। আমাদের ঢাকাকে সাজিয়ে তুলে নেয়ার জন্য আমরা এ ধরনের আরও উদ্যোগ নেব।’

পরে সাংবাদিকদের সাঈদ খোকন বলেন, ‘আজ আমাদের প্রাণপ্রিয় প্রার্থী এই এলাকায় গণসংযোগ করতে এসেছেন। আমি এখানে এসেছি আমাদের প্রকল্প পরিদর্শন করতে। দক্ষিণ সিটি এলাকায় যেসব পথবাসী থাকে, তাদের এখানে এনে পুনর্বাসন করে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের সুন্দর জীবন নিশ্চিত করার জন্য এই প্রকল্প গ্রহণ করেছি।’

দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র আরও বলেন, ‘আজ আমরা দুই ভাই এখানে উপস্থিত হয়েছি। আজ এই ঐতিহাসিক মুহূর্তে এ কথা বলতে চাই—আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসকে আমি নৌকা মার্কায় ভোট দেব বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি জানি, তাপস জয়যুক্ত হলে আমরা যে ইতিবাচক পরিবর্তনের সূচনা করতে সক্ষম হয়েছি তার হাতেই একমাত্র সম্ভব সেই ধারা অব্যাহত থাকা; এর মাধ্যমে ঢাকাবাসীকে একটি কাঙ্ক্ষিত স্বপ্নের ঢাকা উপহার দেয়া। যদি নির্বাচনী আচরণবিধির বাধ্যবাধকতা না থাকত, তাহলে আমি আমার ঢাকাবাসীকে আহ্বান জানাতাম—তাপসকে নৌকা মার্কায় ভোট দিন। তার পক্ষেই সম্ভব এই শহরের অগ্রগতি অব্যাহত রাখা। তাই আপনারা তাপসকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করুন। প্রিয় ঢাকাবাসী, আপনাদের কাছে এটাই আমার প্রত্যাশা।’

আরও পড়ুন: আড়ংয়ের ট্রায়াল রুমে গোপনে ১৩ তরুণীর ১২০টি ভিডিও!

এ সময় তাপস বলেন, ‘আমি এখানে গণসংযোগ করতে এসে দেখেছি মেয়র মহোদয় খুবই ভালো একটি উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। এখানে সদরঘাটে জলবায়ু উদ্বাস্তুদের জন্য একটি আশ্রয়কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। এখানে ছিন্নমূল ও বিভিন্ন বয়সের নারী ও শিশুদের পুনর্বাসন করা হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র আমার ভাই। আমাদের প্রয়াত নেতা মেয়র হানিফের সুযোগ্য সন্তান। আজ এখানে এসেছি তার সঙ্গে কুশল বিনিময় করতে। আমার ভাই যেসব উন্নয়ন কাজ হাতে নিয়েছেন, ইনশাআল্লাহ ঢাকাবাসীর সমর্থনে নির্বাচিত হলে আমরা সেসব উন্নয়নমূলক কাজ দ্রুতগতিতে শেষ করব। আমাদের যে লক্ষ্য আমরা দিয়েছি, সেই ঢাকা গড়ার লক্ষ্যে সাঈদ খোকন এরই মধ্যে অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। সেগুলো সঠিক বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমরা উন্নত ঢাকা গড়ে তুলব।’

আওয়ামী লীগ মনোনীত এই মেয়র প্রার্থী বলেন, ‘মেয়র সাঈদ খোকন এরই মধ্যে যেসব কার্যক্রম গ্রহণ করেছেন, আমি নির্বাচিত হলে সেগুলো সামনের দিকে এগিয়ে নেব। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সেগুলো বাস্তবায়ন করব।’

এর আগে সকাল সাড়ে ১১টায় রাজারবাগ এলাকায় ১৯ তম দিনের নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন শেখ ফজলে নূর। তিনি বলেন, শঙ্কিত হয়ে বিএনপি সন্ত্রাসের আশ্রয় নিচ্ছে। আমরা এর নিন্দা জানাই। আমরা ধৈর্য ও সহনশীলতার সঙ্গে এগোচ্ছি। সুষ্ঠু পরিবেশে সবাই যাতে ভোট দিতে পারেন, তার ব্যবস্থা করতে নির্বাচন কমিশন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আহবান জানান তিনি।

প্রচারের শুরুতেই আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের স্থানীয় শত শত নেতা-কর্মী ভিড় করেন। তারা নৌকা প্রতীকের পক্ষে স্লোগান দেন। এখান থেকে শহীদবাগের কয়েকটি গলিতে হেঁটে হেঁটে নিজের প্রচারপত্র বিলি করেন তাপস। একপর্যায়ে তিনি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের বাসার ভেতরে প্রবেশ করে প্রচারপত্র বিলি করেন। যদিও সেখানে মির্জা আব্বাস বা তার পরিবারের কেউ উপস্থিত ছিলেন না।

নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে তাপস বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করার মতো কিছু করবেন না। বিরোধী পক্ষ নিজ থেকে পরিবেশ নষ্টের পাঁয়তারা করছে। একজন মেয়র প্রার্থী কীভাবে একজন কাউন্সিলর প্রার্থীর প্রচার কার্যালয়ে হামলা চালায়, এতে খুব অবাক হয়েছি। ভোটারদের উদ্দেশে পাঁচ দফায় উন্নয়ন পরিকল্পনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, চমকপ্রদ কিছু বলছি না। স্থানীয় সরকার আইনে দেওয়া ক্ষমতা বুঝেই প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি। আগামী কাল পাঁচ দফার বিস্তারিত নিয়ে নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করা হবে বলেও জানান তিনি।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএস

সিটি নির্বাচন,আওয়ামী লীগ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close