• শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

৩০ ডিসেম্বরকে ‘কালো দিবস’ পালনের আহ্বান বাম জোটের 

প্রকাশ:  ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ১৯:১৩ | আপডেট : ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ১৯:১৮
নিজস্ব প্রতিবেদক

একাদশ সংসদ নির্বাচনের বর্ষপূর্তির দিন আগামী ৩০ ডিসেম্বরকে কালো দিবস হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতারা। এ দিনটিকে কালো দিবস হিসেবে পালনের জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে তারা।

জোটের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নজিরবিহীন ভোট ডাকাতির মাধ্যমে গণতন্ত্র হত্যা করা হয়েছে। তাই জনগণের ভোটাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠায় দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

সোমবার (১৮ নভেম্বর) রাজধানীর পুরানা পল্টনস্থ মৈত্রী মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই আহ্বান জানানো হয়।

জোটের অভিযোগ, ভোট কারচুপি, জালিয়াতি, ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিং, মিডিয়া ক্যু- সকল বিষয়কে ছাপিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ছিল ভোটের আগের রাতে ভোট বাক্স ভরে রাখার নৈশকালীন নির্বাচনের নতুন কীর্তি।

সংবাদ সম্মেলনে বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতারা জানান, গত নির্বাচনে ‘জনগণের ভোটাধিকার হরণের’ প্রতিবাদে ৩০ ডিসেম্বর দিনটিকে তারা কালো দিবস হিসেবে পালন করবেন।

ওই দিন সারা দেশে উপজেলা পর্যায়ে জোটের শরিক দলগুলোর কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ ও কালো পতাকা মিছিল হবে। সেদিন ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে কেন্দ্রীয় সমাবেশ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান। উপস্থিত ছিলেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাঈফুল হক, বাসদের (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় নেতা সুধাংশু শেখর চক্রবর্তী, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, গণসংহতি আন্দোলনের সদস্য সচিব মনির উদ্দীন পাপ্পু।

খালেকুজ্জামান বলেন, এটি যে জালিয়াতিপূর্ণ ভোট ডাকাতির নির্বাচন ছিল, সে বিষয়ে আজ আর কোনো বিতর্ক নেই। নির্বাচন কমিশন, পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, প্রশাসন, ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের সংগঠন, কায়েমি স্বার্থবাদী সকল চক্র, দলীয় সন্ত্রাসী গোষ্ঠী মিলে ভোটাধিকার হরণের মতো একটি গর্হিত কাজে একযোগে লিপ্ত হয়েছিল।

প্রশাসন ব্যবস্থাকে চরমভাবে বিকৃত ও কালিমালিপ্ত করে দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতির দানবীয় চেহারা প্রদর্শন করেছে। রাজনীতির অঙ্গনে নীতিনিষ্ঠ মানুষদেরকে কোণঠাসা করে ফেলা হয়েছে।

খালেকুজ্জামান অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগ ও তাদের ১৪ দলীয় জোট ‘জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে পুরো নির্বাচনী ব্যবস্থাকে হাস্যকর বিষয়ে পরিণত করেছে। জনগণের সম্মতি ছাড়া ভোট ডাকাতির অবৈধ জাতীয় সংসদ ও সরকার জনগণের ঘাড়ের উপর চেপে বসে আছে। জনগণ নির্বাচনী বিমুখ হয়ে পড়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে পেঁয়াজের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদও জানান তারা।

সম্প্রতি ভারতের সঙ্গে স্বাক্ষরিত চুক্তিগুলোর বিরোধিতা করে তারা বলেন, এই চুক্তি ও সমঝোতা স্মারকে বাংলাদেশের স্বার্থ ‘সম্পূর্ণরূপে উপেক্ষিত হয়েছে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/ওআর

বাম জোট,রাজনীতি,একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত