Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৪ কার্তিক ১৪২৬
  • ||

দুই শীর্ষ নেতাসহ অনেককেই চাঁদার ভাগ দিতেন সম্রাট

প্রকাশ:  ১০ অক্টোবর ২০১৯, ২০:৫৪
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট icon

দুই শীর্ষ নেতাসহ অনেককেই মোটা অঙ্কের চাঁদা দিতেন ঢাকা মহানগর যুবলীগ দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী ওরফে সম্রাট। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটলিয়ন (র‌্যাব) এ তথ্য পেয়েছে।

গত রোববার ভোরে যুবলীগের নেতা সম্রাট ও তার সহযোগী এনামুল হক ওরফে আরমানকে কুমিল্লার মুরাদনগর থেকে গ্রেফতার করে র‍্যাব। সেখানে মদ্যপ অবস্থায় পাওয়ায় আরমানকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়ে কুমিল্লার কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। সম্রাটের তথ্যের ভিত্তিতে তাকে সঙ্গে নিয়ে র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত রোববার দুপুরে রাজধানীর কাকরাইলে ভূঁইয়া ট্রেড সেন্টারে অভিযান চালান। বন্যপ্রাণীর চামড়া রাখার দায়ে সম্রাটকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়। অস্ত্র এবং মাদক রাখায় সম্রাট ও আরমানের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলা করা হয়।

অভিযানে যুক্ত র‍্যাবের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, ভূঁইয়া ট্রেড সেন্টারে অভিযানের সময় সম্রাট কেঁদে ফেলেন। কখনো ভাবেননি তিনি গ্রেফতার হবেন। জিজ্ঞাসাবাদে সম্রাট বলেন, ভূঁইয়া ট্রেড সেন্টারটি তিনি দখলে নিয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার করছিলেন। তিনি মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রসহ ঢাকার এক ডজন ক্লাবের জুয়া ও ক্যাসিনো নিয়ন্ত্রণ করতেন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাঈদকে দিয়ে তিনি ক্যাসিনো চালাতেন। এ ছাড়া তিনি সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে টেন্ডারবাজি ও চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণ করতেন। এসব খাতের টাকা সম্রাটের ‘ক্যাশিয়ার’ হিসেবে পরিচিত আরমানের কাছে জমা হতো। ক্যাসিনো, টেন্ডারবাজি ও চাঁদাবাজির টাকার একটি বড় ভাগ যেত যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মো. আবু কাওছারসহ আওয়ামী লীগের অনেক নেতার পকেটে। সম্রাট মাঝেমধ্যে ক্যাসিনো খেলতে সিঙ্গাপুরে যেতেন। একাধিক দেশে টাকা পাচার করার কথা স্বীকার করেন তিনি।

র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, সম্রাট তার টাকার উৎস সম্পর্কে কিছু তথ্য দিয়েছেন। সম্রাট যাদের টাকা দিতেন, তাদের নাম বলেছেন। সম্রাটের বিরুদ্ধে করা অস্ত্র ও মাদকের মামলা দু-এক দিনের মধ্যে তদন্তভার পাবে র‍্যাব-১। রিমান্ড পাওয়া গেলে তাদের সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

২০১২ সালে সম্রাট ঢাকা মহানগর যুবলীগ দক্ষিণের সভাপতি হন। এরপর তাকে আর পেছনে তাকাতে হয়নি। দক্ষিণ যুবলীগের নিজস্ব কোনো কার্যালয় না থাকলেও সম্রাট কাকরাইলে ভূঁইয়া ট্রেড সেন্টার দখল করে কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার করেন।

পূর্বপশ্চিমবিডি/অ-ভি

সম্রাট,র‌্যাব,চাঁদা,ভাগ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত