• সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
  • ||

দুদকের নোটিশ পেলেন জাপা এমপি জিন্নাহ ও বিএনপি নেতা শোকরানা

প্রকাশ:  ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৪:৪৯ | আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৪:৫১
বগুড়া প্রতিনিধি

বগুড়া জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ এমপি ও বিএনপি নেতা ব্যবসায়ী মো: শোকরানাকে নোটিশ দিয়েছে দুদক। তাদের সম্পদের বিবরণী চেয়ে পৃথকভাবে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। আগামী ২১ কার্যদিবসের মধ্যে সম্পদের হিসাব দাখিল করতে বলা হয়েছে নোটিশে। তাদের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ উঠেছে।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, দুদকের উপপরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম অবৈধ সম্পদের অভিযোগটি অনুসন্ধান করছেন। দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন স্বাক্ষরিত নোটিশটি এমপি’র বগুড়ার নিজ ঠিকানা বরাবর পাঠানো হয়েছে।

সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে তাঁকে নোটিশটি দেওয়া হয়। জাপার এই সংসদ সদস্য ও জেলা সভাপতি শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ্ ক্ষমতার অপব্যবহার করে অবৈধপন্থা অবলম্বন করে অঢেল সম্পদের মালিক হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে বগুড়া জেলা বিএনপির সাবেক উপদেষ্টা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. শোকরানার সম্পদের হিসাব চেয়ে চিঠি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। চিঠিতে দুদক বলেছে, প্রাথমিক অনুসন্ধানে তাঁর বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ থাকার তথ্য মেলায় এই নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

দুদকের উপপরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য জানান, মঙ্গলবার সংস্থার পরিচালক কাজী শফিকুল আলমের সই করা নোটিশ শোকরানার বগুড়া সদরের ছিলিমপুর ঠিকানায় পাঠানো হয়েছে। নোটিশে তাঁকে আগামী ২১ কার্যদিবসের মধ্যে সম্পদ বিবরণী দাখিল করতে বলা হয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে প্রাথমিক অনুসন্ধান করে কমিশনের স্থির বিশ্বাস জন্মেছে যে তিনি জ্ঞাত আয়বহির্ভূত স্বনামে-বেনামে বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়েছেন। তাই নোটিশ পাওয়ার ২১ কার্যদিবসের মধ্যে তাঁর নিজের, নির্ভরশীল ব্যক্তি বর্গের যাবতীয় স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি, দায়-দেনা, আয়ের উৎস ও তা অর্জনের বিস্তারিত বিবরণ নির্ধারিত ফরমে দাখিল করতে বলা হয়েছে। বিএনপির এই নেতার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান করছেন দুদকের বগুড়া সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক মো. মনিরুজ্জামান।

উল্লেখ্য ১৯৭২ থেকে ’৭৫ পর্যন্ত শোকরানা বগুড়ায় যুবলীগের নেতৃত্ব দিয়েছেন। বগুড়ার কিবরিয়া হত্যার ঘটনায় তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়। ওই মামলায় তিনি সোয়া ছয় বছর জেল খেটেছেন। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট তিনি গ্রেফতার হন। ১৯৮১ সালে বিচারপতি আবদুস সাত্তার ক্ষমতায় এলে ‘মুক্তিযোদ্ধা’ হিসেবে তিনি সাধারণ ক্ষমায় মুক্তি পান।

পরে ১৯৯৯ সালে তারেক রহমানের হাত ধরে বিএনপিতে যোগ দেন শোকরানা। এদিকে জেলা জাপার সভাপতি শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ্ ২০১৪ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ও ২০১৯ সালে এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তিনিসহ তার স্ত্রী ও সন্তানকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি বানিয়ে নিয়োগ বাণিজ্য করে বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠে। তাকে দুদক’র নোটিশ দেওয়ার খবরে বগুড়ার সচেতন মানুষের মাঝে স্বস্তি দেখা গেছে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/পিএস

বগুড়া,দুদক,জাপা এমপি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত