Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬
  • ||

নিজেকে নির্দোষ দাবি করলেন মাহী বি চৌধুরী

প্রকাশ:  ২৫ আগস্ট ২০১৯, ২০:০৭
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট icon
মাহী বি চৌধুরী। ফাইল ছবি

দেশের বাইরে যদি কিছু থেকে থাকে তা বৈধ উল্লেখ করে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন বিকল্পধারা বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব ও সংসদ সদস্য (এমপি) মাহী বি চৌধুরী।

রোববার (২৫ আগস্ট) বিকেলে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বেরিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে পারবেন কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে মাহী বি চৌধুরী বলেন, প্রমাণের কিছু নেই, আমি নির্দোষ।

তিনি বলেন, একটি অভিযোগ এসেছে আমার নামে। সেই অভিযোগের তদন্ত করছে দুদক। এর সত্যতা যাচাইয়ের জন্য আমার বক্তব্য দরকার ছিল। দুদক আমায় ডেকেছে, আমি কথা বলেছি। আগামী ২৭ তারিখ (আগস্ট) সংবাদ সম্মেলনে আমি আমার পুরো বক্তব্য খোলাসা করবো।

এই সংসদ সদস্য বলেন, এর পেছনে কি কারণ রয়েছে, অভিযোগের ভিত্তি কতটুকু সেগুলো অবশ্যই আমরা দেবো, সেগুলো সেদিন-ই জানাবো। আমি মনে করি দুদকে যেহেতু অভিযোগগুলো এসেছে দুদক প্রকৃত অথরিটি। সত্য উদঘাটনের জন্য সময় দরকার। আমার কাছে দুদক যে তথ্য চেয়েছে দেবো। দুদক তার মতো করে কাজ করবে। পাশাপাশি আমার কিছু কাজ করতে হবে। ওই সংবাদ সম্মেলনে-ই তা আমি খোলাসা করবো।

হয়রানি করা হচ্ছে কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, না, না। ২৫ দিন ধরে চুপ আছি কিন্তু ট্রায়াল চলছে। যা ইচ্ছা এক তরফাভাবে বলা হচ্ছে। এও দেখেছি যে, হকাররা বলে বেড়াচ্ছে মাহী বি চৌধুরীর ৬টি বাড়ি। এগুলোও দেখছি, এগুলো পলিটিক্যাল ট্রায়াল বেশি হয়।

মাহী বি চৌধুরী বলেন, অভিযোগ আসার সঙ্গে সঙ্গে যদি মিডিয়া ট্রায়াল হয়ে যায়, যারা ষড়যন্ত্র করে তারা এটি প্রচার করে অন্যভাবে। এসব অভিযোগ নির্বাচনের আগে থেকে আসা শুরু হয়েছে। এগুলো একই অভিযোগ, এটা প্রমাণ করা কঠিন কোনো বিষয় না।

বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি ডা. একিউএম বদরুদোজ্জা চৌধুরীর ছেলে মাহী বলেন, দুদককে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দেওয়া না হলে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা পাবে না। দুদক আমাকে তলব করেছে বলেই আমি অভিযুক্ত বা দোষী তা নয়। অনেক সময় আমাদের ধৈর্য ধারণ করতে হয় রাজনৈতিক কারণে। ধৈর্য ধরলে সত্য উদঘাটিত হবে। এখানে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদের কোনো সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, দেশের বাইরে যদি কিছু থেকে থাকে তা আমার বৈধ আয়। এ বিষয়ে সবকিছু সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে খোলাসা করা হবে।

যুক্তরাষ্ট্রে অর্থপাচারের অভিযোগে রোববার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত মাহী বি চৌধুরীকে দুদকের প্রধান কার্যালয় সেগুনবাগিচায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

অভিযোগের অনুসন্ধান কর্মকর্তা ও সংস্থাটির উপ-পরিচালক জালাল উদ্দিন আহাম্মদ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তবে মাহীর স্ত্রী আশফাহ হক অসুস্থ থাকায় দুদকে হাজির হননি।

এর আগে ৭ আগস্ট মাহী বি চৌধুরী ও তার স্ত্রীর দুদকে হাজির হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তারা উপস্থিত না হয়ে সময় বাড়ানোর আবেদন করেন। দুদক তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে ২৫ আগস্ট সকাল ১০টায় হাজির হওয়ার নির্দেশ দেয়।

গত ৪ আগস্ট রোববার দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে মাহী বি চৌধুরীর রাজধানীর বারিধারার ঠিকানায় পৃথক দুটি নোটিস পাঠানো হয়।

ওই নোটিসে বলা হয়, মাহী বি চৌধুরী ও তার স্ত্রী আশফাহ হকের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে অর্থপাচারের মাধ্যমে জ্ঞাত আয় বহিভূর্ত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে।


পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

মাহী বি চৌধুরী,বিকল্পধারা,দুদক
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত