• সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯
  • ||

প্রতিহিংসার রাজনীতি

প্রকাশ:  ১২ আগস্ট ২০২২, ০৯:১৪
সামিয়া রহমান

মনে করুন আপনি একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। ধরেই নিন না, আপনি কোনো গণমাধ্যমেই চাকরি করেন। প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ পদের ব্যক্তিবর্গ আপনার প্রতি ভয়াবহ প্রতিহিংসাপরায়ণ। প্রতিষ্ঠানের নানারকম আইনগত বিধিবিধানের জন্য সরাসরি আপনার চাকরি খাওয়ার ক্ষমতা নেই শীর্ষ পদের ওই ব্যক্তিদের।

ব্যক্তিগত কারণে প্রতিষ্ঠানের প্রতি ত্যক্তবিরক্তে অনেকটা বাধ্য হয়েই প্রতিষ্ঠানের চাকরি ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে আগাম চিঠি দিয়ে তাদের জানিয়ে দিলেন যে ১ এপ্রিল থেকে যেন আপনার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করা হয়। প্রতিষ্ঠান পরের মাসে তাদের বোর্ড মিটিংয়ে সেটা মেনেও নেয়। কিন্তু ঘটনার পাঁচ মাস পর আকাশ থেকে টপকে হঠাৎ করে আপনার প্রতিষ্ঠান জানায়, আপনার আর্লি রিটায়ারমেন্ট তারা গ্রহণ করেছে তবে যখন থেকে আপনি নিজে রিটায়ারমেন্ট চেয়েছেন সেই তখন থেকে নয়, বরং গত বছর থেকে। আর গত বছর থেকে আপনার বেতন-ভাতাদি যা পেয়েছেন সেই সাড়ে ১১ লাখ টাকা যেন প্রতিষ্ঠানকে ফেরত দেওয়া হয়।

নইলে প্রতিষ্ঠান আপনাকে হুমকি দিয়ে জানায় তারা মামলা করবে! সভ্য দেশের কোনো প্রতিষ্ঠানের আচরণ কি এমন হতে পারে? ক্ষমতার অহংকারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কি কারও বাপদাদার সম্পত্তি আজ? কোন মুল্লুকে বাস করি আমরা?

একটি প্রতিষ্ঠান কি হারতে পারে? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কি কারও কাছে হেরে যেতে পারে? দুঃখজনক হলেও সত্যি, ৪ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আমার কাছে মামলায় হেরে যাওয়ার পর পত্রিকার হেডলাইন হয়েছিল তা-ই। আমি আজও মনেপ্রাণে বিশ্বাস করতে চাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হারেনি, হেরেছে কতিপয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি যারা ষড়যন্ত্র করে মানুষ ফাঁসানোর কাজে নিয়োজিত। অন্তত আমার ক্ষেত্রে আদালতের রায়ে তো তা-ই প্রমাণিত।

ছয়টা বছর ধরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শীর্ষ ব্যক্তিরা আমার নামে নানা গল্প বানিয়ে বছরের পর বছর গণমাধ্যমে বিক্রি করেছেন।

আমাকে তাঁরা হুমকিধমকির মধ্যে রেখেছিলেন ক্রমাগত। আমি চাকরি না ছাড়লে, আমি গণমাধ্যমে বক্তব্য দিলে আমার ক্ষতি করবেন এমন প্রচ- চাপের মধ্যে বছরের পর বছর আমি ছিলাম। একটা মিথ্যাকে বারবার সত্যি বলে প্রচারণা করার গোয়েবলসীয় নীতিতে তাঁরা ছয় বছর সফলও হয়েছিলেন, কারণ তাঁরাই ক্ষমতাধর, তাঁরাই বিচারক এবং তাঁরাই গণমাধ্যমের তথ্যের প্রচারক হিসেবে কাজ করেছেন। আমার কথা কেউ বিশ্বাস করেনি। কিন্তু আমার বিশ্বাস ছিল আদালতে গেলে আমি ন্যায়বিচার পাব।

কারণ আদালত প্রমাণ দেখবেন, প্রতিহিংসা নয়। শেষ পর্যন্ত ৪ আগস্ট উচ্চ আদালতের রায়ে প্রমাণিত হয়েছে আমার বিরুদ্ধে নেওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্ধান্ত অবৈধ এবং আমার পদ ও সব সুযোগ-সুবিধা ফিরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যে লেখাটিতে আমি জড়িত ছিলাম না, আমার স্বাক্ষর ছিল না সেই লেখাটি নিয়ে আমার বিরুদ্ধে তাঁরা ষড়যন্ত্র করে গেছেন বছরের পর বছর। শিকাগো ইউনিভার্সিটি ও শিকাগো প্রেসের নাম করে মিথ্যা ফেক চিঠি তৈরি করে আমার বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন তদন্ত শুরু করে ২০১৭ সালে। শিকাগো ইউনিভার্সিটি ও শিকাগো প্রেস বারবার জানিয়েছে তারা আজ পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে কোনো চিঠি দেয়নি। অ্যালেক্স মার্টিন বলে তাদের প্রতিষ্ঠানে কেউ কখনো চাকরি করেনি, এটা ফেক, যা আদালতেও প্রমাণিত হয়েছে। সিআইডির ভাষ্যমতে, এ চিঠি প্রিন্ট হয়েছে প্রো-ভিসির অফিস থেকে। হাস্যকর বিষয়, বিশ্ববিদ্যালয় বলেছিল তারা ইমেইলে এ চিঠি পেয়েছিল, কিন্তু ইমেইলের কোনো সফট্ কপি তারা আদালতকে দেখাতে পারেনি। আর আদালতে তো প্রমাণিত হয়েছেই এটি মিথ্যা, ফেক চিঠি। প্রভাষক সৈয়দ মাহফুজুল হক মারজান নিজেই তাঁর স্বীকারোক্তিতে লিখেছিলেন, তিনিই জমা দিয়েছেন, তিনিই স্বাক্ষর করেছেন, তিনিই রিভিউ করেছেন। আমার কাছ থেকে লেখা জমা নেওয়ার বা রিভিউ করার কোনো স্বাক্ষরের প্রমাণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আজ পর্যন্ত দেখাতে পারেনি। কারণ আমি এর সঙ্গে জড়িত ছিলাম না। মারজানের এ স্বীকারোক্তিও কিন্তু একবারের জন্যও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন গণমাধ্যমে প্রকাশ করেনি। একবারের জন্যও প্রকাশ করেনি যে আমার কাছ থেকে তারা কোনো লেখা পায়নি এবং ডিন অফিস থেকেও কোনো লেখা আমার কাছে রিভিউ করার জন্য আসেনি। ট্রাইব্যুনাল কিন্তু আমার বিরুদ্ধে রায় দেননি। অথচ বর্তমান উপাচার্য গণমাধ্যমে বলেছিলেন, ট্রাইব্যুনালের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে সামিয়া রহমানের পদাবনতি। কিন্তু ট্রাইব্যুনাল এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্তই দেননি। কতটা গোয়েবলসীয় প্রচারণা! ট্রাইব্যুনাল বলেছেন, প্লেজারিজম হয়নি। অথচ বিশ্ববিদ্যালয় শাস্তি দিল। কীসের ভিত্তিতে? এমনকি ট্রাইব্যুনালের রায়ের কপি পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আমাকে দিতে চায়নি মাসের পর মাস, পাছে সত্যি প্রমাণ হয়ে যায়। আদালতের নির্দেশে শেষ পর্যন্ত তারা দিতে বাধ্য হয়। আর আজ তো সবই আদালতে প্রমাণিত। পুরনো কাসুন্দি ঘেঁটে আর কী করব? তাই না! কিন্তু মজার বিষয় হলো, ৪ আগস্ট মামলায় হেরে বর্তমান প্রশাসন ৮ আগস্ট আমার কাছে টাকা দাবি করে একটা ইমেইল পাঠায়। যে ইমেইল ৮ আগস্ট পাঠানো কিন্তু এর ভিতরে ব্যাক ডেটে হাতে লেখা ‘৩ আগস্ট’। মামলায় হেরে গিয়ে কি এখন এই প্রতিহিংসা?

২০২১ সালের ১৫ নভেম্বর থেকে সন্তানের অসুস্থতার কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হালের এই প্রশাসনের লিখিত অনুমতি নিয়েই ৩১ মার্চ, ২০২২ পর্যন্ত আমি অর্জিত ছুটিতে ছিলাম। সন্তানের সুস্থতার জন্য তার পাশে এ মুহূর্তে আমার থাকা আমার জীবনের চেয়েও প্রয়োজন ছিল। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে এ বছর ফেব্রুয়ারিতে চিঠি দিয়ে অনুরোধ করেছিলাম যেন মানবতার খাতিরে হলেও তারা আমাকে বিনা বেতনে আরও কিছুদিন ছুটি দেন। অবশ্য এই প্রশাসনের কাছে মানবতা বিষয়টি নেহায়েতই অসম্ভব, বিশেষ করে আমি সামিয়া রহমানের ক্ষেত্রে। তাই যথারীতি তারা ৩১ মার্চের পর আর ছুটি মঞ্জুর করেননি। যেহেতু ৩১ মার্চ, ২০২২ আমার অর্জিত ছুটির অনুমতি শেষ, তাই লিখিত চিঠি দিয়ে ১ এপ্রিল, ২০২২ থেকে বাধ্য হয়েই আমি আর্লি রিটায়ারমেন্ট চাই। পাঠক খেয়াল করুন, রিটায়ারমেন্ট আমি চেয়েছি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নয়। তাই যখন আমি চাইব পদত্যাগ করতে, তখন থেকে তারা সেটি কার্যকর করবেন। কারণ চাকরি ছাড়ার অধিকার সবার আছে। আর চাকরি ছাড়ার ক্ষেত্রে আমি কোনো নিয়ম লঙ্ঘন করিনি। সন্তানের পাশে থাকার জন্য বাধ্য হয়ে চেয়েছি আর্লি রিটায়ারমেন্ট। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে আমার কোনো দেনা নেই। বরং বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে আমার পাওনা আছে।

প্রশাসন এখন নানা কথা বলছে, যেমন বলেছে গত ছয় বছর। যার সম্পূর্ণটাই মিথ্যা, প্রতিহিংসায় ভরপুর। আদালত তো আজ প্রমাণ করেই দিলেন। আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে উড়ে এসে জুড়ে বসিনি। আমার বাবা, চাচা, শ্বশুর বা ক্ষমতাধর পরিচিত রাজনীতিকের সূত্রেও যোগদান করিনি। অনার্স ও মাস্টার্সে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করে দুবার স্বর্ণপদক পেয়েই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেছিলাম। দলীয়করণের রাজনীতি বোধহয় তখনো এত প্রবল ছিল না বলেই সর্বোচ্চ স্থান পেয়েছিলাম। গণমাধ্যমেও জায়গা করে নিয়েছিলাম নিজের যোগ্যতায়, কাউকে তেল দিয়ে নয়। ছয়টা বছর ধরে ক্রমাগত বলেছি আমি অন্যায় করিনি। আদালত তার প্রমাণ দিয়েছেন। অথচ তখন ক্ষমতাধর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অঙ্গুলিহেলনে কেউ বিশ্বাস করেনি আমাকে। আজ মামলায় হেরে গিয়ে আবারও শুরু হলো প্রতিহিংসার রাজনীতি। মানুষ ভুলে যায় ক্ষমতা তাদের অন্ধ করে। সর্বোচ্চ শক্তিমান ভাবতে ধারণা দেয়। কিন্তু ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়। আদালত আছেন, আইন আছে। সেই আদালতেই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সত্য। আদালতের এ সত্য মেনে নিতেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এখনো আপত্তি। আদালতে লড়াই করেছি। করে যাব। সৃষ্টিকর্তা বলে তো একজন আছেন। তিনিই ন্যায়বিচার করবেন। হয়তো নিশ্চয়ই কোনো না কোনো একদিন এই নষ্ট শিক্ষক-রাজনীতির প্রতিহিংসার অবসান হবে। তখন আমার মতো শিক্ষক যাঁরা কোনো রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নন, তাঁরা এই নষ্ট শিক্ষক-রাজনীতির প্রতিহিংসার কবল থেকে মুক্ত হবেন।

লেখক : গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব

সামিয়া রহমান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close